শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘বিজয়া’ নামের একটি নাটকের মাধ্যমে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগ উঠেছে। তাই অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশাসহ চারজনকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন লিটন কৃষ্ণদাসের পক্ষে আইনজীবী সুমন কুমার রায়। এদিকে এই নোটিশের প্রেক্ষিতে নাটকটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট পক্ষ থেকে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) প্রতিষ্ঠানটির ডেপুটি সিইও মো. তাজুল ইসলামের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ব্যাখ্যা দেওয়া হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের প্রযোজনায় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নির্মিত ‘বিজয়া’ টেলিভিশন কাহিনীচিত্রকে কেন্দ্র করে কিছু ‘দুর্বৃত্ত’ গত কিছুদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে (সদানন্দ দাস মুন্সি, দেবু কর্মকার, অরূপ বণিকসহ আরো অনেকই) এই গল্পের লেখক সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী, নির্মাতা আবু হায়াত মাহমুদ, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশাসহ সংশ্লিষ্টদের হত্যার হুমকিসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ দিয়ে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় জনৈক লিটন কৃষ্ণ দাস তার নিয়োজিত আইনজীবী সুমন কুমার রায়ের মাধ্যমে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ তুলে একটি উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। যা ইতিমধ্যে কয়েকটি গণমাধ্যমের অনলাইন ভার্সনে প্রকাশিত হয়েছে। ওই উকিল নোটিশে খুবই পরিকল্পিতভাবে দাবী করা হয়েছে তারা নাকি এই নাটকের ট্রায়াল ভার্সন দেখেছেন, যা খুবই হাস্যকর।

এদিকে ‘বিজয়া’ নাটকের পরিচালক আবু হায়াত মাহমুদ আজ (২৪ অক্টোবর) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক স্ট্যাটাস দিয়ে জানান, তিনি আর ভবিষ্যতে পূজা উপলক্ষে আর কোন টেলিভিশন নাটক নির্মাণ করবেন না সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি ‘বিজয়া’ নামের একটি নির্মাণধীন নাটক নিয়ে দুভাগ্যজনক নাটকীয়তা শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যে নাটকটি এখনও আলোর মুখ দেখলো না, প্রচার হলো না-সে নাটক নিয়ে যে সব উস্কানিমূলক শিষ্টাচার বির্বজিত মন্তব্য করা হচ্ছে- তাতে সভ্য এবং প্রগতিশীল সমাজকে ভাবিয়ে তুলেছে। যে শিশুটি মাতৃগর্ভে-এখনও ভৃমিষ্ঠই হলো না- সে শিশুর আচার কিংবা আকৃতি নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ থাকে না। এ কথা সবারই জানা উচিত যে একটি অনুষ্ঠান নির্মাণ করলেই তা চ্যানেলগুলোতে সরাসরি প্রচার করে না। বেশ কিছু অনুষ্ঠানিকতার সিড়ি পার হতে হয়। বিষয় বস্তু লিখিত ভাবে জানাতে হয়। তারপর প্রিভিউ কমিটির বিজ্ঞজনরা গভীর মনোযোগ দিয়ে অনুষ্ঠানটি দেখে থাকেন। কোথাও কোন অসংগতি, অশালীন বাক্য কিংবা বাক্যে কোন শব্দের অসংযত প্রয়োগ ঘটে অথবা রাষ্ট্র, সমাজ, কোন গোষ্ঠীর, মহল, ব্যক্তি অথবা ধর্মের প্রত্যেক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে কটাক্ষ করা হয়েছে বলে অনুমিত হয় তবে তাৎক্ষিণক সেই অনুষ্ঠানটি প্রচারের অনুপোযুক্ত বলে বিবেচিত হয়। এটাই নিয়ম। অথচ কোন এক গুজবে কান দিয়ে একটি বিশেষ মহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘বিজয়া’ নামক নাটকটি নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করেই যাচ্ছে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি ভবিষ্যতে আর পুজার নাটক নির্মাণ করব না।’

সামাজিক যোগোযোগ মাধ্যমে নির্মাতা আবু হায়াত মাহমুদ স্ট্যাটাস দিয়ে লিখেছেন, আমি একজন শিল্পী। পরিচালক হিসেবে নানা গল্পে, নানা চরিত্র পর্দায় ফুটিয়ে তোলা একজন পরিচালকের শিল্পের ক্ষুধাই বলা যায়। আমি যখন কাজ করি, আমার ইউনিটে ৩০-৪০ জন সদস্য থাকে। লাইট, ক্যামেরা, প্রোডাকশন, এডিটর, ডিওপি, আর্টিস্ট, মেকাপ, পরিবহন, সেট প্রপস নানা ডিপার্টমেন্টে তারা কাজ করে। এখানে নানা ধর্মের বন্ধুরা থাকে। এখন পর্যন্ত কোন দিন মনেই হয়নি অমুক এই ধর্মের, সে ঐ ধর্মের। কারণ আমরা একটা পরিবার হয়ে কাজ করি। এটাই আমাদের বাংলাদেশ। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে হিন্দু, বৌদ্ধ, মুসলমান, খ্রিস্টিয়ান সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলে। যখন কাউকে বলতে শুনি এই মুসলমান অভিনেতা বা ঐ হিন্দু অভিনেত্রী এটা করতে পারবে না, ওটা করতে পারবে না, এটা খুবই দুঃখজনক। অভিনেতা-অভিনেত্রীদের চরিত্রের প্রয়োজনে অনেক কিছু করতে হয়, এটা শুধু এ দেশে নয়, পৃথিবীর সব দেশেই। আর এভাবে হিন্দু-মুসলমান উল্লেখ করে বলাটাও কিন্তু সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে আঘাত করা। আমরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে চাই। ঈদে আমরা যেমন সবাই উৎসবে শামিল হই, পূজার এই রঙ্গিন উৎসবেও আমরা ধর্ম বর্ণ ভেদাভেদ ভুলে উৎসবে অংশগ্রহণ করতে চাই।

তিনি আরও লিখেছেন, সম্প্রতি ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর প্রযোজনায় পূজার জন্য একটা কাজ করলাম। নাম ‘বিজয়া’। কাজটি করার পর থেকে আমাদের কিছু ভাই উত্তেজিত হয়ে বলতে চাচ্ছেন এ নাটকে হিন্দু ধর্মালম্বীদের ধর্মানুভূতিতে আঘাত করা হয়েছে, তাঁদের ধর্মকে অবমাননা করা হয়েছে। আমি আবারও বলছি এ কাজের সাথে যুক্ত লেখক, অভিনয় শিল্পী, পরিচালক সবাই অত্যন্ত সচেতন। আমরা অন্য ধর্মের অবমাননা হতে পারে তেমন কিছু কখনোই করবো না। কারণ এমন কিছু করলে শুধু আপনিই কষ্ট পাবেন না, আমার সহকর্মী ভাইটিও কিন্তু কষ্ট পাবে।

আবু হায়াত মাহমুদ লিখেছেন, প্রযোজনা সংস্থার সাথে একটু আগেই কথা বলে আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেহেতু সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বী ভাই বোনেরা নাটকটি না দেখেও এটির প্রতি আপত্তি জানিয়েছেন, আমরা দূর্গাপূজার এই উৎসবকে রঙ্গিন করতে ও আপনারা যেনো কোন কারনে মনে কষ্ট নিয়ে না থাকেন সে জন্য ‘বিজয়া’ নাটকটির প্রচার আপাতত স্থগিত করা হচ্ছে। পরবর্তীতে আপনাদের নীতিনির্ধারকদের সাথে আলোচনান্তে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত আমরা নিব। বিঃদ্রঃ ভবিষ্যতে পূজা উপলক্ষে আমি আর কোন টেলিভিশন নাটক নির্মাণ করবো না বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ধন্যবাদ সবাইকেই। আসন্ন শারদীয় দূর্গাপূজার শুভেচ্ছা রইলো।

Previous articleআলোর দিশারি ‘অদম্য শেখ হাসিনা’
Next articleচোখে দেখতে পারছেন না মিষ্টি মারিয়া

Leave a Reply