‘চিতকার’ ছবির শিল্পী ও কলাকুশলীরা

দিনের পর দিন রাতের পর রাত নাটক-সিনেমার কলাকুশলীদের সময় কাটে শুটিং হাউজগুলোতে। এ কারণেই বছরের বেশির ভাগ সময় উৎসবমুখর। কিন্তু করোনাকালে হাউজগুলোর অবস্থা নাজুক। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে রাজধানীর শুটিং হাউজগুলো। ঢাকা শহরে মিডিয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত অনেক কলাকুশলীর দিনের বেশির ভাগ সময় কাটে শুটিং হাউজে। এমনকি শুটিংয়ের জন্য কোনো সময় গভীর রাত অবধি শুটিং স্পটে থাকতে হয়। করোনার দিনে কেমন চলছে শুটিং হাউজগুলো?

দীর্ঘদিন শুটিং বিরতির পর জমে উঠতে শুরু করেছে তারকাদের দ্বিতীয় বাড়ি। শোবিজ তারকা ও কলাকুশলীদের নিজের বাড়ি থেকে বেশি সময় কাটে রাজধানীর শুটিং বাড়িতে। কাজের তাগিতে আজ এই শুটিং হাউজ কাল অন্য শুটিং হাউজ। তারকাদের দ্বিতীয় বাড়ির অবস্থা এখন নাজুক। করোনার কারণে দীর্ঘ সময় শুটিং বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন শুটিং হাউজগুলোর মালিকরা। বর্তমানে ঢাকার উত্তরায় আপন ঘর, মন্দিরা, আনন্দবাড়ি, লাবনী, ক্ষণিকালায়, আশ্রয় সহ প্রায় বারোটির মতো শুটিং হাউজ। আগে সাতাশ দিন শুটিংয়ের ব্যস্ততা থাকলে এখন তা স্বপ্নের মতো। শুটিংয়ের অনুমতি অনেক আগে পেলেও আগের মতো কাজ হচ্ছে না। যার ফলে হাউজের খরচ মেটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে হাউজগুলোর মালিকদের।

শুটিং হাউজ ওনার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম বলেন, এই সেক্টরটি স্বল্প আয়ের। অনেক দিন বন্ধ থাকার পর শুটিংয়ের অনুমতি পেলেও আগের মতো ব্যস্ততা নেই। যার ফলে খরচ মেটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে আসার খবর শুনিয়েছেন হাউজ মালিকদের। শীঘ্রই এ ক্ষতি কাটিয়ে লাভের মুখ দেখতে পারবেন তারা। কারণ অল্প অল্প করে প্রতিদিনই কাজ বাড়ছে। এ ধারাবাহিকতা চলতে থাকলে অচিরেই পুরানো চেহারায় ফিরবে হাউজগুলো। শুটিং হাউজ ওনার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর উপদেষ্টা খলিলুর রহমান বলেন, গত দুই মাস শুটিং একেবারে খারাপ হয়নি ভালোই হয়েছে। তবে খরচ বহন করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। যা হচ্ছে তা দিয়ে পোষায় না।

করোনার মহামারির মধ্যে শুটিং বন্ধ থাকলেও শুটিং হাউজগুলোর সাজসজ্জা একেবারে কম নয়। কোন কোন মালিক এই বন্ধ সময়টি কাজে লাগিয়েছেন। নতুন করে ঠেলে সাজিয়েছেন নিজের হাউজটি। এরপরও শুটিং হাউজগুলোর সংশ্লিষ্টদের নানা অভিযোগ রয়েছে। সে সব অভিযোগ আমলে নিয়ে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, শুটিং হাউজ থেকে যে ভাড়া পাই তাতে বাড়ি ভাড়া কর্মচারীদের বেতন দিতে কষ্ট হয়। তারপরও চেষ্টা করি ইউনিটের চাহিদা মেটাতে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্মাতাদের চাহিদা অনুযায়ী ভবিষ্যতে হাউজগুলোরে আধুনিকায়নে চেষ্টা অবহ্যাত থাকবে। সংগঠনের নেতারা বলেছেন, করোনার প্রকট কমলে হাউজগুলো আধুনিকায়ন করণে নির্দেশনা প্রদান করা হবে।

Previous articleসারিকার স্বপ্ন পূরণ
Next articleআলোর দিশারি ‘অদম্য শেখ হাসিনা’

Leave a Reply