গভীর সঙ্কটে কলকাতার স্বনামধন্য চলচ্চিত্র অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা। স্থানীয় হাসপাতাল সূত্রে খবর, তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। সোমবার হাসপাতাল সূত্রে আরও জানানো হয়, করোনায় আক্রান্ত সৌমিত্রের প্রস্টেট ক্যানসার নতুন করে ছড়িয়েছে তাঁর ফুসফুস এবং মস্তিষ্কে। তাঁর মূত্রথলিতেও সংক্রমণ ঘটেছে। ফলে ৮৫ বছরের সৌমিত্রের শারীরিক অবস্থা নিয়ে ফের নতুন করে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

কোভিডে সংক্রমণের পর পশ্চিমবঙ্গের মধ্য কলকাতার বেলভিউ নার্সিং হোমে চিকিৎসাধীন রয়েছেন সৌমিত্র। মঙ্গলবার তাকে ওই নার্সিং হোমে ভর্তি করানো হয়েছিল। এর পর গত শুক্রবার থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তবে দ্বিতীয় বার প্লাজমা থেরাপির পর সৌমিত্রর অবস্থার উন্নতি লক্ষ করা যায়। যদিও এ দিনের মেডিক্যাল বুলেটিন জানানো হয়েছে, প্রবীণ অভিনেতার অস্থিরতা বেড়েছে। সেই সঙ্গে মাঝেমধ্যেই বিভ্রান্ত এবং উত্তেজিতও হয়ে পড়ছেন তিনি।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় মেধায় আর সাবলীল অভিনয় করে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য এক উচ্চতায়। একই সঙ্গে অভিনেতা, নাট্যকার, বাচিক শিল্পী এবং কবি। তার চিত্রশিল্পী পরিচয়ও সবাইকে মুগ্ধ করেছে। সরকারি চাকরি থেকে শখের বসে অভিনয়ে আসেন। তবে কখনো ভাবনায় ছিল না অভিনয় পেশা হিসেবে নিবেন। একটা নাটক দেখতে গিয়ে জীবনটা কেমন বদলে গেল। শিশির ভাদুড়ির নাটক। সেই নাটকে শিশির ভাদুরির অভিনয় দেখে সৌমিত্র স্থির করলেন পেশাগত ভাবে অভিনয় করবেন। দ্বিতীয়বার জীবনে মোড় ঘোরে যখন তিনি সত্যজিৎ রায়ের ‘অপু’ হলেন। পরের গল্পটা সবারই জানা। মঞ্চ এবং পর্দা দুটি মাধ্যমেই তাঁর নিয়মিত কাজে বয়স কখনও বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। শুধু বর্তমান প্রজন্ম নয়, আগামী আরও কয়েকটি প্রজন্মের অভিনেতাদের কাছে তিনি অনুপ্রেরণা।

Previous articleকলকাতার চলচ্চিত্র উৎসবে প্রধান জুরী হলেন মনজুরুল ইসলাম মেঘ
Next articleমনির খানের ‘ঝড়ে ঝড়ে সাধের পিরিত’

Leave a Reply