দেশব্যাপী ঘটে চলছে একের পর এক ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ভয়াবহ ঘটনা। নৃশংসতায় একটি ছেড়ে যাচ্ছে অন্যটিকে। একটি ঘটনার রেশ শেষ না হতেই আরেকটি ঘটনা আতঙ্কের সৃষ্টি করছে। প্রতিবাদে পথে নেমেছে সাধারণ মানুষ। দাবি উঠছে আইন পরিবর্তনের। সম্প্রতি ধর্ষণ নিয়ে একটি ভিডিও বার্তা পোষ্ট করেন চিত্রনায়ক ও প্রযোজক অনন্ত জলিল। যেখানে তিনি ধর্ষণের জন্য নারীদের খোলামেলা পোশাক দায়ী করেন। সেই ভিডিও অল্প সময়ে ভাইরাল হয়ে যায়। ভাইরাল সেই ভিডিও বার্তার সূত্র ধরেই সমালোচনার মুখে পড়েন অনন্ত জলিল। ভিডিও বার্তা দেখে তাকে বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী নির্মাতা মেহের আফরোজ শাওন, প্রসূন আজাদ সহ আরও অনেকে।

জানা গেছে, ধর্ষণের বিরুদ্ধে ভিডিও বার্তায় বক্তব্য দেয়ার সময় অনন্ত জলিল নারীদের নিয়ে বিশেষ করে দেশীয় শোবিজ মিডিয়ার নারী কর্মীদের পোশাক ও চালচলন নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার অভিযোগ তুলে এই বয়কটের ঘোষণা দেন শাওন।  জলিলকে নিয়ে শাওনের ফেসবুক পোষ্ট ভাইরাল হয়ে যায়। এতে শোবিজ সেলিব্রেটি থেকে শুরু করে সমাজের বিভিন্ন পেশাজীবী নারী পুরুষ নির্বিশেষে অনন্ত জলিলের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন।

অবশেষে সেই ভিডিও থেকে বক্তব্য কর্তন করে ক্ষমা চাইলেন অনন্ত জলিল। এরপর তিনি তার ফেসবুক পেইজে লিখেন, গতকালের ভিডিওতে মূলত মেয়েদেরকে শালীনতা বজায় রাখার কথা বলতে চেয়েছি। অনেকেই বিষয়টিকে পজিটিভ ভাবে নিয়েছেন আবার অনেকেই নেগেটিভ ভাবে নিয়েছেন। আমি কোনো বিতর্কে জড়াতে চাই না। তাই উক্ত বিষয় কারেকশন করে দিলাম। কেউ ভুল বুঝে থাকলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। নারী-পুরুষ উভয়েই পরিবার ও সমাজের জন্য অনিবার্য। পরিবার টিকিয়ে রাখার জন্য যেমন নারী-পুরুষের সম্মিলিত উদ্যোগ, পরিকল্পনা, ত্যাগ ও সংযমের প্রয়োজন। এক জনকে উপেক্ষা করে বা বাদ দিয়ে কেবল পুরুষ কিংবা নারীর পক্ষে বেশি দূর এগোনো সম্ভব নয়। তাই আমরা চাই নারী-পুরুষের সৌহার্দ্যপূর্ণ সমঝোতামূলক সম্পর্ক, শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার সম্পর্ক।

Previous articleঅভিভাবকহীন নাটক আর করব না: শাওন
Next articleপর্দায় ফিরছেন ওমর সানী-মৌসুমী জুটি

Leave a Reply