ছবি: এম এ এইচ সাগর

রঞ্জু সরকার: ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেতা সৈয়দ জামান শাওন। চাকরির পাশাপশি অভিনয়ে ব্যস্ত তিনি। চরিত্র বাছাইয়ের জন্য চরিত্রের উপর গুরুত্ব দিচ্ছেন। গল্পের ব্যাপারে ছাড় দিতে নারাজ এ অভিনেতা। তার ভাষায় প্রয়োজনে কাজ করব না তবে গল্পে ছাড় নয়। মানহীন কাজ করে সংখ্যা না বাড়িয়ে কম হলেও ভালো কাজ করতে চাই। সম্প্রতি বেশ কিছু নাটকের কাজ শেষ করেছেন এ অভিনেতা। প্রচারের অপেক্ষায় আছে ‘তোমাকে দিয়ে কিছু হবে না’ শিরোনামের একটি একক নাটক। পরিচালনা করেছেন শাহরিয়ার রহমান। প্রতিটি সন্তান তার পরিবার থেকে প্রতিনিয়ত শুনছে তোমাকে দিয়ে কিছু হবে না। একটা সময় সেই সন্তানেরাও মেনে নেয় তাকে দিয়ে কিছু হবে না। তবে এমন সময় কেউ কেউ নাটকীয় ভাবে পাশে এসে ঘুরিয়ে দেন জীবনের মোড়। একটা সময় শাওন উপলব্ধি করেন তাকে দিয়ে কিছু হবে না। এমন সময় গল্পের নায়িকা বৃষ্টি (সারিকা) এসে বলেন তোমাকে দিয়েই সম্ভব, তুমিই পারবে। এভাবেই গল্পটি এগিয়ে যাবে।–বললেন শাওন।

করোনা ভাইরাসে নাকাল জনজীবন। ক্রমশ শোবিজে আক্রান্তর খবর শোনা যাচ্ছে। শাওনের কাছে প্রশ্ন রাখি স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কি? সত্যি কথা বলতে সবাই মুখে মুখে স্বাস্থ্যবিধি মানছি বাস্তবে নয়। সব কিছু মিলিয়ে মানা হচ্ছে না। সবার উচিত এটি মেনে কাজ করা। এবং সবারই সর্তক অবলম্বন করে কাজ করা উচিত। ক্রমশ করোনা আক্রান্তর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরইমধ্যে আমাদের মিডিয়ার অনেকেই আক্রান্ত হয়েছেন। কেউ সাবধনতা অবলম্বন করছি না। যে যার খুশি মতো চলছি। আমার অবস্থান থেকে মেনে চলার চেষ্টা করছি। কেউ মাস্ক না পরলে তাকে মাস্ক পড়ার অনুরোধ করছি। অভিযোগ বর্তমান নাটক অবিভাকহীন। আপনিও কি তাই মনে করেন? আমিও একমত কারণ বর্তমান নাটকে বাবা-মা বা পরিবারের অনন্য চরিত্রগুলো বিলপ্ত। এক দুজন শিল্পী নিয়েই নাটক শেষ করে দেওয়া হচ্ছে। এমন অভিযোগ আামাকেও শুনতে হচ্ছে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে সব নাটক অভিভাবকহীন থাকবে সে নাটকে কাজ করব না। এতে যদি কেউ আমার প্রতি রাগ করে তাহলে আমার কিছু করার নেই। আমরা তো বাবা মা বিহীন জন্ম নেইনি। তাহলে নাটক কেন অবিভাবকহীন হবে?

বাজেট সংকটের কথা উল্লেখ করে এ অভিনেতা বলেন, বাজেট সমস্যা পূর্বেও ছিল এখনও আছে এটি থাকবেই। তার মধ্যেই আমাদের কাজ করে যেতে হবে। একটা গল্পের সুন্দর উপস্থাপনের জন্য চাইলেই কিন্তু বাবা-মায়ের চরিত্র রাখতে পারি। কঠিন হবে হয়তো তবে অসম্ভবের নয়। সৎ ইচ্ছে থাকলে সম্ভব। আবার অনেক নাটকে দেখা যায় নায়কের বাবা আছে মা নেই। আবার নায়িকার মা আছে বাবা নেই। এ রকম আর কত দিন? বাজেটের কথা বলে পাশ কাটিয়ে অনেক কিছুই বলা যায়। কিন্তু দোহাই দিয়ে বা পাশ না কাটিয়ে সবার কাছে অনুরোধ থাকবে বাবা মায়ের চরিত্র রাখার জন্য। প্রেম ভালোবাসা মূখ্য না। নাটকে পরিবারকে অস্বীকার করা যাবে না। একটা ডায়লগ দিয়ে দর্শককে বুঝিয়ে দিচ্ছি কিন্তু এটি ঠিক না। তাদের সাথে প্রতারণা করছি। পারিবারিক গল্প থেকে আমরা হারিয়ে যাচ্ছি। শ্রদ্ধেয় পরিচালক, প্রযোজক, লেখক ভাইবোনদের কাছে আবেদন বাজেটের দোহাই দিয়ে গল্প থেকে বাবা মাকে মেরে ফেলবেন না কিংবা গ্রামে পাঠাবেন না! আমরা টেস্ট টিউব বেবি না ভাই!

শাওন আগের থেকে চুজি। বুঝে শুনে কাজ করার চেষ্টা করছেন। বর্তমান টেলিভিশন নাটকের গুণগত মান কাঠগড়ায়। আপনার দৃষ্টিতে কেমন? একজন অভিনেতা হিসেবে যদি বলি তাহলে বলতে হয় ঘুরে ফিরে একই গল্প। প্রেম ভালোবাসার মধ্যে বর্তমান নাটক সীমাবদ্ধ। এ জায়গা থেকে বেরিয়ে একটু ভিন্নতা আনার চেষ্টা করতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে দর্শককে বাংলা নাটক মুখি করতে হবে। এমনও শোনা যায় গল্পকার পরাধীন- একজন পরিচালকের পছন্দ থাকতে পারে তবে এর অপপ্রয়োগ অন্যায়। গল্পকার স্বাধীন। ওটিটি মাধ্যম কিভাবে দেখছেন? বাংলাদেশে ওটিটি মাধ্যমের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে অভিনেতাদের কাজের মান বাড়াতে হবে। কারণ দর্শক মানহীন কাজ দেখবে না। তাই অভিনেতার দায়িত্ব দিগুন বেড়ে যাবে। কারণ টাকা খরচ করে কেউ মানহীন কাজ দেখবে না। গল্পের প্রয়োজনে অনেক সিন থাকতে পারে যেটি আমাদের সংস্কৃতির সাথে যায় না তবে সর্তকতার সাথে চাইলেই এরিয়ে যেতে পারি। যেগুলো গল্পের প্রয়োজনে একান্ত দেখানো দরকার সেটি শৈল্পিক ভাবে দেখানো সম্ভব। সর্বশেষ এ অভিনেতা বলেন, করোনা আমাদের শিক্ষা দিয়ে গেছে ছোট একটা জীবন। আশেপাশের মানুষদের ভালোবাসতে হবে। সবাই সচেতন হন নিজে ভালো থাকুন অন্যকে ভালো রাখুন।

Previous articleওয়েব সিরিজে ফারজানা রিক্তা
Next articleক্ষমা চাইলেন অনন্ত জলিল

Leave a Reply