শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নির্মিত ‘বিজয়া’ নাটককে ঘিরে বাংলাদেশ এবং ভারতের উগ্র হিন্দুত্ববাদী কিছু লোক এই নাটকের শিল্পী, নির্মাতা এবং কাহিনীকারকে মন্দিরে নিয়ে বলি দেয়ার কিংবা এটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর অফিসে বোমা হামলার হুমকি দিয়েই ক্ষ্যান্ত হচ্ছে না, তারা এখন ইসলাম ধর্মের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) সম্পর্কে ক্ষমার অযোগ্য মন্তব্যের পাশাপাশি গোটা মুসলমান জাতিকে ‘বেজন্মা’, ‘শুকরের বাচ্চা’ ইত্যাদি বিশেষণ দেয়ার পাশাপাশি মুসলিম নারীদের গণধর্ষণেরও হুমকি দিচ্ছে। ফেইসবুকে সনাতন HINDU নামের একটি গ্রুপের চার লাখের বেশি সদস্যের পাশাপাশি বিভিন্ন উগ্র হিন্দু গ্রুপের সদস্যরা অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ভাবে এসব অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। দেশে সাইবার ক্রাইম আইন বিদ্যমান থাকার পরও বেপরোয়া উগ্র হিন্দুরা ক্রমাগতভাবে ইসলাম ধর্ম, মুসলমান এবং প্রিয় নবীজির বিষয়ে প্রকাশের অযোগ্য কথাবার্তা বলে যাচ্ছে।

এদিকে এই গল্পের লেখক ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরীর ফেইসবুক পোষ্ট এবং ইনবক্সে ক্রমাগত জঘন্য মন্তব্যের পাশাপাশি নানা ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে যাচ্ছে। আরো জানা গেছে, উগ্র হিন্দুরা ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত মুজিব বর্ষ উপলক্ষে নির্মিত নাটকগুলোর পোস্টেও নানা ধরনের অশ্লীল মন্তব্য করছে এবং ওই নাটকগুলোও প্রচার না করার দাবি জানাচ্ছে, যা সরাসরি রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল। উগ্র হিন্দুরা বলছে ‘বিজয়া’ নাটকে নাকি দুর্গাপূজার দিনে এক হিন্দু নারীকে ধর্মান্তরের দৃশ্য আছে, যা সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিক্তিহীন। এমন একটি ভিক্তিহীন অপপ্রচারের উপর ভিক্তি করেই দুর্বৃত্তরা ইসলাম ধর্ম এবং হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর বিষয়ে জঘন্য মন্তব্য করে চলেছে।

নাটকের বিষয়বস্তু সম্পর্কে এটির কাহিনীকার শোয়েব চৌধুরী বলেন, ‘দুর্গাপূজার নাটকে হিন্দু নারীকে ধর্মান্তরের ঘটনা কোনো বিবেকসম্পন্ন মানুষের পক্ষেই দেখানো অসম্ভব। কারা এসব অপপ্রচার করছে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার জন্যে আমি সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। পাশাপশি, ইসলাম ধর্ম, মুসলমান এবং আমাদের প্রিয় নবী সম্পর্কে জঘন্য কটূক্তি করে দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাঁধানোর অপচেষ্টার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার কিংবা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এবং নির্মাতার কাছ থেকে এই নাটকের গল্পের বিষয়ে কোনো কথাই বলা হয়নি। এমনকি নাটকের টিজারও মুক্তি দেয়া হয়নি তাহলে অভিযোগকারীরা কোথায় এসব বানোয়াট তথ্য পেলো? আমার মনে হয়, দেশের শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর সাফল্যে ঈর্ষান্বিত হয়ে কিছু লোক ইচ্ছে করেই গুজব ছড়িয়ে এই নাটকটি বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। এসব দুর্বৃত্ত চক্রের বিরুদ্ধে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

এই নাটকের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর ডেপুটি সিইও তাজুল ইসলাম বলেন, ‘কাল্পনিক অভিযোগের উপর ভিক্তি করে কিছু লোক যে ধরনের অসভ্যতা চালাচ্ছে তা স্মরণকালে আর কখনো ঘটেনি। সবাইকে বলবো, অকারণে মিথ্যে গুজবে কান না দিয়ে নাটকটি প্রচার হওয়া অব্দি অপেক্ষা করুন। আর যারা ইসলাম ধর্ম, মুসলমান এবং আমাদের প্রিয় নবী সম্পর্কে জঘন্য কটূক্তি করছে, তাদের উদ্দেশ্যে বলবো, এ ধরনের অপরাধ থেকে বিরত হোন। দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করবেন না।’

কি চাইছে উগ্র হিন্দুরা? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্রমাগত উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ এবং ভারতের কিছু উগ্র হিন্দু, যাদের বক্তব্যের ভাষা দেখলেই বোঝা যায়, এদের অধিকাংশই অর্ধ শিক্ষিত। এদের কেউ কেউ বাংলাদেশ সম্পর্কেও খুবই আপত্তিকর মন্তব্যের পাশাপাশি এদেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি আঘাত হানার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। উগ্র হিন্দুদের কেউ কেউ বলছে, বাংলাদেশে কখনোই দুর্গাপূজা উপলক্ষে কোনো ধরনের নাটক বানানো যাবে না এবং হিন্দু শিল্পীদের মুসলমান চরিত্রেও অভিনয় করানো যাবে না। তাদের কেউ কেউ বলছে বাংলাদেশে নাকি হিন্দুদের নিরাপত্তা নেই।

Previous articleঅপুর মন খারাপের জন্মদিন
Next articleভক্তদের উদ্যোগে ভিন্নভাবে অপুর জন্মদিন উদযাপন

Leave a Reply