রঞ্জু সরকার: বাংলাদেশী টেলিভিশন চ্যানেল ভারতীয় কেবল অপারেটররা ইচ্ছে করেই দেখায় না, নানা অজুহাতে। অথচ আমরা ভারতীয় চ্যানেলগুলো এখানকার কেবল নেটওয়ার্কে শুধু নেইই নি, বরং প্রতিমাসে একহাতে কোটি কোটি টাকা দিচ্ছি ভারতীয় চ্যানেল মালিকদের। আমাদের নাটক ভারতীয় দর্শকদের দেখতে না দেয়ার পেছনে মূল কারণ হচ্ছে, সেখানকার দর্শকদের কাছে বাংলাদেশী নাটকের চাহিদা ব্যাপক। সেখানকার দর্শকরা বলছেন, কলকাতায় নির্মিত বাংলা নাটকের গল্প ভীষণ দুর্বল। সেখানে গল্পের চাইতে যৌণ সুড়সুড়ি বেশী থাকে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এসব দেখাই মুশকিল।

বাংলাদেশের দর্শকরা যখন দুপুর ঠাকুরপো, দাদাগিরি ইত্যাদি নাটক দেখতে ভারতীয় চ্যানেল কিংবা ওটিটি প্ল্যাটফর্মে উঁকি মারছেন, তখন কলকাতায় রাজত্ব করছে বাংলাদেশের নাটক। ইউটিউবের কল্যাণে মোশারফ করিম, আ খ ম হাসান চৌধুরী, চঞ্চল চৌধুরীরা যেন হয়ে উঠছেন ভারতের বাঙালি মননেরও মনের মানুষ। দুই বাংলায় মিলিয়ে বাংলা ভাষাভাষী দর্শকদের সংখ্যাটা ২৬ কোটির বেশী। আর ঠিক এই কারণেই বাংলাদেশের নাটকের দর্শক বা ‘ভিউয়ার’ সংখ্যা রীতিমতো রেকর্ড গড়ে চলেছে।

‘ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৮’-এর সমাপ্তি অনুষ্ঠানে আড্ডায় মেতেছিলেন দুই বাংলার গুরুত্বপূর্ণ দুই কথাসাহিত্যিক-শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় ও ইমদাদুল হক মিলন। ‘বাংলাদেশের টিভি নাটকের নিয়মিত দর্শক আমি’, শীর্ষেন্দুর মুখে কথাটা শুনে নড়েচড়ে বসে বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনের উপচে পড়া দর্শক। উপস্থিত দর্শকদের চেহারায় ফুটে ওঠা অস্বস্তির রেখাটা চট করে পড়ে নিলেন ‘মানবজমিন’ লেখক। বললেন, ‘এখানকার টিভি চ্যানেল ভারতে দেখানো হয় না। আমি নাটক দেখি ইউটিউবে। এভাবেই ধীরে ধীরে দুই বাংলার সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান বাড়বে। সংস্কৃতি কখনওই জোর করে চাপিয়ে দেওয়া যায় না। মানসম্পন্ন কাজ হলে তা দর্শকের কাছে পৌঁছবেই।’ বেসরকারি স্যাটেলাইট টিভি যুগের শুরু থেকেই নিরবচ্ছিন্নভাবে ওপার বাংলার টিভি চ্যানেলের সঙ্গে সম্পর্ক ভারতের দর্শকদের। বিপরীতে বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো দীর্ঘদিন ধরে দেখানোই হয় না ভারতে। মাঝেমধ্যে দুই-একটি চ্যানেল দেখা যায়, কয়েক দিন পর আবার বন্ধ। ফলে এপারের দর্শকদের অভ্যস্ত করাতে পারেনি বাংলাদেশি চ্যানেলগুলো। বাধা না পেলে এপার বাংলাও হত বাংলাদেশি বিনোদনের অন্যতম গ্রাহক।

পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও অসমের বাঙালিরা টিভির অ্যান্টেনা ঘুরিয়ে অনেক কসরত করে দেখতেন বিটিভি। সেখানকার নাটক, ম্যাগাজিন আর গানের অনুষ্ঠান দেখার স্মৃতি পাওয়া গেছে বিখ্যাত লোকেদের দিনলিপিতে। ‘একতলা দোতলা’, ‘সকাল সন্ধ্যা’, ‘ঢাকায় থাকি’, ‘সংশপ্তক’ ধারাবাহিকের প্রতি পর্বের জন্য বাংলাদেশের মতো অপেক্ষা করে থাকত এপার বাংলাও। বিটিভির ১৯৭৯ সালের জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘সকাল সন্ধ্যা’র অভিনেত্রী আফরোজা বানু এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, কলকাতায় গেলে রাস্তায় বের হতে পারতেন না। লোকজন চিনে ফেলত, দিতে হতো অটোগ্রাফও। বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেতা-গায়কদের তখন বেশ কদর ছিল এপারে। সেই পরিস্থিতি আমূল বদলে গিয়েছে নতুন শতাব্দীর শুরুতে।

২০০৩ সালের কথা। কলকাতার নিউ মার্কেটে শপিং করতে দেখা গিয়েছিল বাংলাদেশের জনপ্রিয় এক চিত্রনায়ক ও এক জনপ্রিয় গায়ক। তবে এটুকু বলা যায়, সেই চিত্রনায়ক টালিগঞ্জের কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেছেন। তাঁদের দুজনের দিকে আড়চোখে তাকাতেও দেখা যায়নি কাউকে। এমন আরও কিছু ঘটনার উদাহরণ টেনে বাংলাদেশের তারকারা প্রায়ই ক্ষোভ প্রকাশ করেন দেশীয় গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে। তাঁদের অভিযোগ, বাংলাদেশের গণমাধ্যমে ভারতীয় শিল্পীদের খবর ছাপা হয় নিয়মিতই। ভারতীয় গণমাধ্যমে বাংলাদেশি তারকাদের খবর প্রকাশিত হয় না বললেই চলে।

তবে পশ্চিমবাংলার শিল্পীরা অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের সংস্কৃতির খোঁজ খবর ঠিকই রাখেন। জয়া আহসানকে পশ্চিমবঙ্গের ছবিতে সুযোগ দিয়েছিলেন অরিন্দম শীল, ‘আবর্ত’ ছবিতে। ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটিতে জয়ার সুযোগ হয়েছে টিভি নাটকের কল্যাণেই। দুই বাংলার দর্শকদের মেলবন্ধনে বড় চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রি বিনির্মাণের চেষ্টা চলেছে বেশ কয়েক বছর ধরে। ঢালিউড-টালিগঞ্জের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত বেশ কিছু চলচ্চিত্র যে কাজটা করতে পারেনি, টিভি নাটক সেই কাজটা অনায়াসেই করে ফেলল। সারা বিশ্বের বাঙালি দর্শকদের এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার ভিত তৈরি হল এখানে। এই দর্শকদের নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখতেই পারেন বিনোদন জগতের পুঁজিপতিরা।

ভারতের টিভি দর্শকদের কাছে বাংলাদেশী নাটকের অভিনেতা এবং অভিনেত্রীদের ব্যাপক কদর। এ কারণেই কলকাতার নিউ মার্কেটে যদি মোশাররফ করিম কিংবা চঞ্চল চৌধুরীকে দেখে ফেলে লোকজন, ওমনি সবাই হুমড়ি খেয়ে পড়ে কথা বলতে কিংবা অটোগ্রাফ নিতে। এখনকার নাটকের নায়িকাদেরও কদর সেখানে অনেক। যেমন, নুসরাত ইমরোজ তিশা। তিনি কলকাতার নাটক দেখা বাঙ্গালীদের কাছে বড় সেলিব্রিটি। তিশার নতুন নাটক মুক্তি পেলে ওপার বাংলার দর্শকরা দেখবেই। কিন্তু অজানা কারণেই এখনও অপূর্ব, নিশো কিংবা তানজিন তিশারা ওপার বাংলার দর্শকদের মন জয় করতে পারেননি।

Previous articleখল চরিত্র নিয়ে কেউ ভাবে না: ড্যানি রাজ
Next articleতৃতীয় বিয়ে করলেন শমী কায়সার

Leave a Reply