রঞ্জু সরকার: চলচ্চিত্র অভিনেতা ড্যানি রাজ। দুই শতাধিক চলচ্চিত্রে নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয় করেছেন সরোয়ার উদ্দিন, যিনি ড্যানি রাজ নামেই পরিচিত। তিন বছর চলচ্চিত্র ছেড়ে দূরে আছেন এ অভিনেতা। তার হার্টে তিনটি রিং বসানো এবং সিআরটি করানো। তবে এখন অনেকটা ভালো আছেন। সর্বশেষ ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন ‘আগুনে পোড়া কান্না’ ছবির শুটিংয়ে। তারপর থেকে অনিয়মিত তিনি। চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাইলেও বর্তমানে চলচ্চিত্রর সংখ্যা কমের কারণে বেকার সময় পার করছেন এ অভিনেতা। করোনার এ সময়ে কেমন আছেন তিনি? যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘করোনার শুরু থেকেই বাসা থেকে বের হচ্ছি না। একান্ত বের হতে হলে গাড়িতে বসেই কথা বলে চলে আসছি। অনেক দিন কাজ নেই। মাঝে ইউটিউবের একটি নাটকে কাজ করেছি। এখন পর্যন্ত আল্লাহর রহমতে অনেক ভালো আছি। এখন শারীরিক অবস্থা অনেক ভালো। কাজ ছাড়া ভালো লাগছে না।’

নতুন কাজের খবর? এরইমধ্যে কয়েক জনের সাথে নতুন কাজের ব্যাপারে কথা হয়েছে। মনতাজুর রহমান আকবর ভাই তার নতুন ছবিতে নিতে আগ্রহী হয়েছেন। আশা রাখছি খুব শীঘ্রই কামব্যাগ করব। পরিচালক মালেক আফসারী ভাইয়ের সাথে নতুন ছবি নিয়ে কথা হয়েছে। সামনেই কাজ শুরু করব। এর আগেও মালেক ভাইর অনেক কাজ করেছি। মালেক ভাইকে বললাম কাজ করতে চাই তবে আগের মতো আর পারব না। আগে যেভাবে উড়ে ফাইট করতাম সেটা আর করা হবে না। ফাইট করতে পারব ওটা সমস্যা নেই। তবে উড়ে এসে ফাইট করা আর যাবে না। কারণ হার্টে তিনটি রিন বসানো। বড়পর্দার অনেকেই ছোটপর্দায় কাজ করছেন। আপনি কি ভাবছেন? নাটকে কাজ করতে চাই। একজন শিল্পী সব মাধ্যমে কাজ করতে চায়। নাটকে কাজ পেলে করব। নিয়মিত হতে চাই নাটকে। নাটকে কাজ করলে শরীরের সমস্যা হবে না। নাটক তো আর ফাইট করতে হয় না তাই আমার জন্য ভালো হবে।

করোনাকালে চলচ্চিত্রর কেউ খোঁজ নিয়েছে? ‘পরিচালক মনতাজুর রহমান আকবর ভাই, শিল্পী সমিতি খোঁজ খবর নিয়েছে ও সহযোগিতা করেছে। এছাড়া ওমর সানী, অমিত হাসান খোঁজ খবর নিয়েছেন। আমার দুঃখ একটাই মিশা আমাদের সভাপতি কিন্তু তিনি একটা দিনও কল বা কোন প্রকার খোঁজ খবর নেয়নি। জায়েদ খোঁজ নিয়েছেন। যখন যা পেরেছেন পাঠিয়েছেন। জায়েদ অনেক কিছু করেছে এটা অস্বীকার করব না।’

চলচ্চিত্রর কথা উঠতেই এ অভিনেতা যোগ করে বলেন, ‘শুনছি বর্তমানে চলচ্চিত্রে অনেক গ্রুপিং। এ সব বিষয় নিয়ে মাথা ব্যাথা নেই। অনেক আগ থেকেই কাজ করছি। সালমান শাহ, ওমর সানী আসার আগ থেকেই কাজ করছি। সেই দিক থেকে অনেক সিনিয়র। শাবনাজ ও সোনিয়া তাদের সময় থেকেই প্রধান চরিত্রে কাজ করছি। সবার সাথেই ভালো সম্পর্ক। সবাইকে  ভালোবাসি, সম্মান করি এটাই সবচেয়ে বড় বিষয়। গ্রুপিংয়ের মধ্যে নেই।’

ড্যানি রাজের সর্বশেষ মুক্তি পাওয়া ছবি শাকিবের সাথে ‘ঢাকা টু বোম্বাই’। এরপর কাজ করেছেন মেহেদী হাসানের ‘আগুনে পোড়া কান্না’। ছবিটি মুক্তির অপেক্ষায় আছে। দীর্ঘ আঠাশ বছরের ক্যারিয়ার ড্যানি রাজের। খল চরিত্রে কাজ করেছেন অসংখ্য ছবিতে। প্রথম দিকে কিছুটা বেগ পেতে হলেও তারপর তার পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। খল-চরিত্রে দাপুটের সাথে অভিনয় করেছেন। হঠাৎ  অসুস্থ হলে এক সময়ের ব্যস্ত এ অভিনেতা দম নেন। এখন বাসায় বসেই কাটছে সময়। চলচ্চিত্রের শুরু কথা উল্লেখ করে ড্যানি রাজ বলেন, ‘স্কুলে পড়াকলীন ফুটবল খেলায় বেশ সুনাম অর্জন করি। ঢাকা আসি নাজির মাহমুদের সাথে পরিচয় হয়। সে একটা ছবিতে ছোট একটি চরিত্র দেয়। সম্ভবত ‘সতী পুত্র আবদুল্লাহ’ ছবিতে এভাবে শুরু হয় চলচ্চিত্রে। পরে আবার রাজশাহীতে চলে যাই। দুই বছর পর আবার ঢাকায় আসি। ১৯৯২ সালে চলচ্চিত্রে নিয়মিত কাজ শুরু করি। সে সময় চলচ্চিত্রে খল চরিত্রের ব্যাপক চাহিদা ছিল এখনও আছে তবে এখন নায়ক-নায়িকা নিয়ে সবাই ভাবে। খল চরিত্র নিয়ে কেউ ভাবে না।’

তিনি বলেন, শাকিব খান যখন কাজ শুরু করে তখন তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না। একাই আট দশ বছর ধরে রাজত্ব করছে। হল মালিকরাও বলেন শাকিব ছাড়া ছবি চলে না। আগে নায়কদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছিল। যা শাকিব পায়নি যার ফলে একাই রাজত্ব করছেন। আর ভিলেন হিসেবে আমি এবং মিশা ছিলাম। আমরা দুজনই ভিলেনের জায়গাটা ধরে রেখেছি। মিশা চলচ্চিত্রের জন্য অনেক কষ্ট করেছে। অনেক বড় বড় রিস্ক নিয়ে কাজ করেছে।

বেশ আক্ষেপ নিয়ে এ অভিনেতা বলেন, ‘আমাদের সময় শিল্পীদের যেভাবে মূল্যায়ণ করা হতো সেটা এখন নেই। সে সময় একজন সিনিয়র শিল্পী দেখলেই উঠে দাঁড়াতাম, সালাম দিতাম। যা এখনকার সময়ে কেউ করে না। এখন অনেকে আসেন নায়ক-নায়িকা ট্যাগ লাগাতে শিল্পী হতে আসে না। এখন তো ছবিই চলে না হলে কে সুপারস্টার আর কে সুপারস্টার না সেটা দর্শকরা কিভাবে বুঝবে? এখন দর্শকও হলে গিয়ে ছবি দেখছে না। দর্শকদের আবার হল মুখি করতে হবে। দর্শক হল মুখি না হলে তো আর ভালো ছবি দেখতে পারবে না। একজন হিরোকে কাউন্ট করতে পারবে না কে ভালো কে মন্দ।’

নতুনদের পরামর্শ দিয়ে ড্যানি রাজ বলেন, ‘চলচ্চিত্রে নতুন কিছু ভালো হিরো দরকার। কারণ একই হিরো নিয়মিত দেখতে চায় না কেউ। ভিলেন হিসেবেও চাই আমার আর মিশার জায়গাটা কেউ ধরে রাখুক। নতুনদের মধ্যে ভালো কাজ করছে শুভ, সিয়াম, নিরব, বাপ্পি ও রোশান। আশা করি সবাই ভালো করবে। সবার কাজের প্রতি আরো সিরিয়াস হতে হবে, কাজের প্রতি সম্মান থাকতে হবে। দর্শকদের ভালোবাসা থাকতে হবে তাহলেই এগিয়ে যেতে পারবে।’ উল্লেখ্য, নাঈম-শাবনাজের ‘সোনিয়া’ ছবির মাধ্যমে অভিনয়ে পা রাখেন ড্যানি রাজ। এরপর সালমান শাহ, ওমর সানী, রুবেল, মান্না, আলেকজান্ডার বো, আমিন খান, রিয়াজ, শাকিব খানসহ সকলের সঙ্গে তিনি অভিনয় করেছেন।

Previous articleআজ মিলন, অর্পণা ও শ্যামেলের ‘শূন্য ঠিকানায়’
Next articleভারতীয় দর্শকদের কাছে এখন বাংলাদেশী নাটকই সেরা

Leave a Reply