গল্পটা নব্বইয়ের দশকের যখন দেশীয় চলচ্চিত্র যাচ্ছিলো নায়িকা সংকটের মধ্য দিয়ে। ঠিক ওই সময়ই পরিচালক এহতেশামুর রহমান ঝুঁকি নেন। নতুন এক নায়িকাকে নিয়েই তৈরি করেন চলচ্চিত্র ‘চাঁদনী’। ছবিটি সফল হয় পাশাপাশি দর্শকের মন জয় করে সেই অভিনেত্রী। তাকে আর কখনোই পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এই গল্পটা শাবনাজের। জিদ, লাভ, চোখে চোখে, ঘরে ঘরে যুদ্ধ, আঞ্জুমান মতো সফল চলচ্চিত্র উপহার দিয়েছে ভক্তদের। পর্দায় জুটি বেঁধেছেন সালমান শাহ, নাঈম, বাপ্পারাজ, ইলিয়াস কাঞ্চন কিংবা মান্নার বিপরীতে। তবে ১৯৯৪ সালে পর্দার প্রণয় থেকে দাম্পত্য সম্পর্কে আবদ্ধ হন তার প্রথম ছবির অভিনেতা নাঈমের সাথে। ক্যারিয়ারে অভিনয় করেছেন ২০টির মতো ছবিতে। বিয়ের পর ধীরে ধীরে চলচ্চিত্র থেকে গুটিয়ে নেন নিজেকে। এখনো ভক্তদের মনে শাবনাজ মানে এখনও সজীবতার বাতাস।

নব্বই দশকের নন্দিত জুটি নাঈম-শাবনাজ। বাংলা সিনেমার অন্যতম আদর্শ তারকা দম্পতিও তারা। যাদেরকে এখনও সিনেমার পর্দায় দেখার জন্য প্রতিনিয়ত দর্শক আগ্রহ প্রকাশ করেন। জীবনে চলার পথে কখনো কোথাও নাঈম-শাবনাজ দর্শকের মুখোমুখি হলে দর্শকরা অনুরোধ করেন তারা যেন আবার সিনেমায় ফিরেন। দর্শকের এই অকৃত্রিম ভালোবাসার মাঝে নিজেদেরকে প্রতিনিয়তই নতুন করে আবিষ্কার করেন নাঈম-শাবনাজ। কিন্তু নাঈম-শাবনাজ জানান আপাতত সিনেমায় ফেরার কোনো পরিকল্পনা নেই তাদের। দুজনই এখন বর্তমান জীবন নিয়ে ব্যস্ত। তাদের দুই সন্তান নামিরা ও মাহাদিয়ার জীবন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

এদিকে আজ (৫ অক্টোবর) বিবাহিত জীবনের ২৬ বছর পেরিয়ে ২৭ বছরে পা দিলেন এ তারকা দম্পতি। ১৯৯৪ সালের ৩০ জানুয়ারি নাঈমের বাবা খাজা মুরাদ ইন্তেকাল করায় মানসিকভাবে ভীষণ ভেঙে পড়েন এই নায়ক। ১৯৯৪ সালের ৫ অক্টোবর শাবনাজকে বিয়ে করেন। তবে করোনার কারণে দিনটি ঘিরে বিশেষ কোনো আয়োজন নেই বলে জানালেন শাবনাজ। ঘরোয়া ভাবেই দিনটি কাটাবেন। শফিউল আলম পরিচালিত ‘বিষের বাঁশি’ ছবিতে অভিনয় করতে গিয়েই নাঈম ও শাবনাজের প্রেমের সম্পর্কের গভীরতা বাড়ে। গতকাল ৪ অক্টোবর ছিলো নাঈম-শাবনাজ অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘চাঁদনী’র মুক্তির দিন। ১৯৯১ সালর ৪ অক্টোবর এহতেশামুর রহমান পরিচালিত ‘চাঁদনী’ মুক্তি পায়। সিনেমাতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে দেশীয় চলচ্চিত্রে নাঈম-শাবনাজ জুটির অভিষেক হয়।

নন্দিত অভিনেত্রী শাবনাজ উপহার দিয়েছেন অসংখ্য ব্যবসা সফল ছবি। চাহিদা থাকা সত্ত্বেও তিনি একটা সময় চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে যান। তবে কি অভিমান থেকে? প্রথমে প্রশ্নের ঝাঁপি খুলে দিয়ে জানতে চাই- চলচ্চিত্র থেকে দূরে কেন? উত্তরে নব্বই দশকের সুপারহিট এ নায়িকা বলেন, অভিমান নয়, পারিবারের জন্য দূরে সরে আসতে হয়েছে। কারণ এক সাথে দুই দিক সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিলাম। তাছাড়া আমার শ্বশুর মারা যাওয়ার পর নাঈম অনেক ভেঙ্গে পরে এতটাই ভেঙ্গে পরে যে অসুস্থ হয় ক্রমশ না বাঁচার অবস্থা হচ্ছে। তখন সরে আসার সিদ্ধান্ত নেই। ততোদিনে দর্শকের ভালোবাসা, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার সবই অর্জন করেছি। তবে নতুন করে ফেরার পরিকল্পনা নেই তার। বাকি জীবনটা পরিবার নিয়েই কাটিয়ে দিতে চান।

ভালোবাসার ২৬ বছর। কেমন কাটতেছে? প্রতিদিন যেভাবে কাটে সে রকমই কাটতেছে। আলাদা করে আয়োজন নেই। কখনোই আয়োজন করি না। প্রতিদিনই ভালোবাসার দিন। দুজনে ভালো আছি সুখী আছি এর চেয়ে বড় কিছু নেই। ঘরোয়া ভাবে কেক কাটা হয়েছে। এক সাথে দুপুরের খাবার খেয়েছি। ভালোবাসার বন্ধনে এখনও ভালো আছি।

প্রথম দেখার গল্প জানতে চাই- ক্যাপ্টেন এতেশামুর রহমান নাঈম কে নিয়ে প্রথম আমার বাসায় আসে। সেদিনই প্রথম দেখেছিলো। টিশার্ট পড়া, চোখে কালো চশমা, চুলে বড় দুটি বেনী মধ্যবিক্ত পরিবারের মেয়ে যে রকম হয় ঠিক সে রকমই। নাঈম দেখে চিন্তা করে এই মেয়ে সিনেমা করবে সেটা কিভাবে সম্ভব। তখন বলেছিলো ও (শাবনাজ) মনে হয় ছবি করতে পারবে না। প্রথম কথা কাজ নিয়েই। প্রথম দেখায় ছবি তুলেছিলাম। সে ছবিটি আজও সংগ্রহে আছে।

আগে কে প্রেম নিবেদন করে? নাঈম। মেয়েরা কখনোই আগে প্রেম নিবেদন করে না। আমাদের মধ্যে একটা হিংসা ছিল কে ভালো অভিনয় করছে। এক ধরনের প্রতিযোগিতা ছিল। ‘চাঁদনী’ মুক্তির আগ পর্যন্ত নতুন ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হইনি। বাবার সাথে কথা ছিল একটি ছবিই করব। যদি ছবিটি হিট হয় তাহলে নিয়মিত হবো। ‘চাঁদনী’ মুক্তির পর ছবিটি সুপারহিট হয় এবং নাঈম আমি জুটি হয়ে নতুন পাঁচটি ছবি চুক্তি করি। আমাদের মধ্যে ভালো একটা বোঝাপড়া ছিল। কাজ করতে গিয়ে বন্ধুত্ব তৈরি হয়। প্রতিটি শিল্পীর সাথেই কাজের অভিজ্ঞতা ভালো ছিলো। এক সাথে কাজ করায় দর্শক আমাদের জুটি গ্রহণ করে। বন্ধুত্ব তৈরি হলেও আমাদের কাজের বাইরে সে রকম কথা হতো না। অনেক ধরনের গ্রুপিংয়ের কথাও শুনতে হতো। যতোটা পারতাম চুপচাপ থাকতাম।

যোগ করে বলেন, বন্ধুত্ব থেকেই প্রেমের শুরু। আশে পাশের মানুষ জনও বলতেন নাঈম তোমাকে পছন্দ করে, কেয়ার করে। এক সাথে কাজ করতে গিয়ে এক সময় অনেক কাছে চলে আসি। যখন নাঈমের বাবা বুঝতে পারলেন আমরা একটা সম্পর্কে আছি তখন আমার বাবার কাছে আসে। দেখা করতে এক মন মিষ্টি নিয়ে এসেছিলো (হা.হা.হা)। বাবা বললেন এতো মিষ্টি কেন? তখন বিষয়টি তাকে অবগত করে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

জীবন সঙ্গী হিসেবে নাঈম কেন সেরা মনে হয়েছে? প্রতিটি মানুষই হিসেব করে কে তাকে মূল্যায়ণ করে, কে সম্মান দিচ্ছে তার মতো বুঝতে পারে। আমাদের চব্বিশ বছরে শুধু ভালোবাসা ছিলো তা কিন্তু নয় মনোমালিন্যও ছিল। মন খারাপ থাকলে নাঈম বিভিন্ন ভাবে মন ভালোর করার চেষ্টা করতেন। কখনোই মন খারাপ করে থাকতে পারতাম না। নাঈম প্রচন্ড কেয়ারিং একটা ছেলে। কখনো রাগ করে থাকতে পারিনি। কেউ যদি ওর প্রতি রাগ করে তাহলে ওর কেয়ারের জন্য করবে। আমার সব কিছুতেই প্রাধান্য দিতেন। কথার কখনোই অমূল্যায়ণ করেনি। যে কোন বিষয়ে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নিতো। সব কিছুতেইে আমি ছিলাম। আমাকে না রাখলে কোন কিছু হজম করতে পারতো না। এই জিনিস গুলোই আমাকে দুর্বল করে দেয়। একটা মেয়ে এর চেয়ে বেশি কিছু চায় না। ভালোবাসার চেয়ে বড় কিছু নেই।

চলচ্চিত্রে অনিয়মিত হবার কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদি একটা সময় নির্ধারণ থাকতো তাহলে নিয়মিত হতে পারতাম। তবে সেটা তো সম্ভব নয়। কাজ করলে সংসার করতে পারতাম না। একটা পরিবার আছে তো। যার ফলে সংসারে মনোযোগী হওয়া। প্রযোজনীয় সব কিছুই পেয়েছি। নাঈমের বাবা মারা যাওয়ার পর আমরা সিদ্ধান্ত নেই বিয়ের। ছোট করে ঘরোয়া ভাবে বিয়ে করি। দুই বছরে প্রেম তারপর বিয়ে।

শাবনাজ সর্বশেষ ‘ডাক্তার বাড়ি’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। তবে আর কখনোই তাকে চলচ্চিত্রে পাওয়া যাবে না। হাজারো ছবির সাক্ষী এফডিসির ৩,৪ নম্বর ফ্লোর ভেঙ্গে বহুদল ভবন তৈরি হচ্ছে। খবরটি শুনে আফসোস করেন তিনি। কারণ এ ফ্লোরে রয়েছে অসংখ্য স্মৃতি। বর্তমানে শাবনাজ চলচ্চিত্র অনেক দূরে যার কারণে সেভাবে চলচ্চিত্রর খবর রাখতে পারেন না। কাছের কিছুর মানুষদের সাথে যোগাযোগ আছে। আশা ব্যক্ত করেন ভালো কিছু হবে। চলচ্চিত্র আবারও ঘুরে দাঁড়াবে সেই প্রত্যাশা করেন নন্দিত এ নায়িকা।

সিনেমায় যারা অভিনয় করেন তাদের সবারই স্বপ্ন থাকে জয় করবেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। যেমনটি করেছিলেন অভিনেত্রী শাবনাজ। ১৯৯৬ সালে ‘নির্মম’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য তার হাতে ওঠে সিনেমার সর্বোচ্চ এই সম্মাননা। নব্বই দশকের এই অভিনেত্রীর ক্যারিয়ার যখন তুঙ্গে ঠিক তখনই চলচ্চিত্রকে বিদায় জানিয়ে শুরু করেন সংসার জীবন। যদিও আজও অভিনয়গুণে ভক্তদের হৃদয়ে বাস করেন তিনি।

Previous articleবিরতি কাটিয়ে শুটিংয়ে ফিরলেন সালমান খান
Next articleমিউজিক ভিডিও ‘গোলা ভরা দুঃখ’

Leave a Reply