বিএনপি এবং জামাত ঘরানার কিছু লোকের পাশাপাশি উগ্রবাদপন্থী কিছু কথিত আলেম ইউটিউবে চ্যানেল খুলে ক্রমাগত বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচার চালাচ্ছেন। যদিও এসব চ্যানেলের বিষয়ে সরাসরি ইউটিউব কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানানোর মাধ্যমে এগুলো বন্ধ করে দেয়া সম্ভব, কিন্তু এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কোনো উদ্যোগের বিষয় এখনও জানা যায়নি।
ইউটিউবে সম্প্রতি মেজর (অব:) দেলোয়ার নামের এক ব্যক্তি ক্রমাগত খুবই আপত্তিকর এবং রাষ্ট্রদ্রোহী বক্তব্য সম্বলিত কন্টেন্ট ছাড়ছেন। তার এসব কাজকারবার ফৌজদারী আইনে ধর্তব্য অপরাধ। কিন্তু এই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে কোনো আইনী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। এই সাবেক সেনা অফিসার কানাডাতে বসবাসরত। সফটওয়্যার ব্যবসার আড়ালে তার নানা ধরনের অবৈধ ব্যবসা আছে বলে জানা যায়। এমনকি তিনি পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই’র হয়ে ভারতীয় এবং বাংলাদেশী বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং ইমেইল আইডি ও সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট হ্যাকের কাজেও লিপ্ত বলে জানা গেছে। এছাড়াও এই সাবেক সেনা অফিসারের সাথে লন্ডনে পলায়নরত বিএনপি নেতা তারেক রহমানের নিয়মিত যোগাযোগ আছে বলেও জানা গেছে।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই অবসরপ্রাপ্ত সেনা অফিসারের নানা অপকর্মের বিষয়ে অনেক তথ্যই পাওয়া যায়। জানা গেছে, ঢাকাশপ ডটকমের নামে ব্যাংক থেকে হাতিয়ে নেয় ৭০ কোটি টাকা।
ফেসবুক বা ইউটিউবে লাইভে এসে বড় বড় নীতি কথা বলা এই দেলোয়ার হোসেনের যে নীতি-নৈতিকতাহীন অন্ধকার এক অধ্যায় রয়েছে তা হয়তো অনেকেরই অজানা। ঠিক যেমন অজানা তার প্রোফাইলে থাকা বহু কোম্পানীর নামের মধ্যে তার মালিকানাধীন বেঙ্গল টেকের নামটির কথা। একইভাবে তিনি বলেন না, কিভাবে তিনি অবসর নিয়েছিলেন, কেন তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল সেনাবাহিনী। 
 
বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার তথা হুন্ডি চক্রের অন্যতম হোতা দেলোয়ার ২০১৯ সালে কানাডার আদালত থেকে মুদ্রা পাচারকারীর অভিযোগ থেকে মুক্তি পান। কিন্তু বাংলাদেশে থাকা মুদ্রা পাচারকারীর তালিকা থেকে তার নাম কাটা যায়নি এখনো।
কানাডায় বসে যিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বড়বড় কথা বলেন, তিনি তার প্রোফাইলে বেশকিছু প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করলেও, তার নিজের অপরাধী প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করেন না। সেই প্রতিষ্ঠানটির নাম বেঙ্গল টেক ইনকনর্পোরেশন যা অর্থ পাচারে লিপ্ত।
 
এই দেলোয়ার ২০০৩ সালে ঢাকাশপ ডটকম নামে একটি  প্রতিষ্ঠানের নামে ভুয়া ঠিকানা ও তথ্য ব্যবহার করে অগ্রণী ব্যাংক থেকে হাতিয়ে নিয়েছিলেন ৭০ কোটি টাকা। ডেলটেকের নামে আদম ব্যবসা ও টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। রাজনীতিবিদ হওয়ার খায়েশে এলডিপিতে যোগ দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে তিনি গোপনে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান।
 
দেলোয়ারের মূল ব্যবসা ছিল অর্থ পাচার। কালো টাকা সাদা করতে চীনের একটি কোম্পানি থেকে নেয়া Zuke নামের একটি সফটওয়্যার পরিচালনার কথা বলা হয়। আর বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার করতে ব্যবহার হয় শামাইলা ফ্যাশন নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে, যার আইনগত মালিকানা দেলোয়ারের ভাই জাহিদ হোসেন রুবেলের।   
ইউটিউবের ওপর দুই নারদের নাম ইলিয়াস হোসেন ও কণক সরোয়ার। এরা দুজন বাংলাদেশে অবস্থানকালে রাষ্ট্র ও সরকার বিরোধী বিভিন্ন অপতৎপরতার পাশাপাশি অসামাজিক কাজকর্মে লিপ্ত ছিলেন। পরবর্তীতে এরা একাধিক মামলায় জেল খাটার পর জামিনে মুক্তি পেয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যান। সেখানে বসেই ইউটিউবে নানা ধরনের মিথ্যে এবং বানোয়াট তথ্য দিয়ে বিভিন্ন সময়ে লোকদের ব্ল্যাকমেইলিং করছেন বলেও অভিযোগ আছে। পাশাপাশি এরা যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বিএনপি-জামায়াত বিরোধী বাঙ্গালীদের নানাভাবে হয়রানি করার পাশাপাশি এদের জানমালের ক্ষতি সাধনের অপচেষ্টায়ও লিপ্ত আছেন বলে জানা গেছে।
মালয়েশিয়ায় পালিয়ে থাকা বিএনপির আরেক নারদ মাহমুদুর রাহমান শুধু ইউটিউবে অপপ্রচার চালিয়েই ক্ষ্যান্ত থাকছেন না। তিনি পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তায় বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নাশকতামূলক অপতৎপরতা চালানোর চেষ্টাও চালিয়ে যাচ্ছেন।
Previous articleহঠাৎ কেনো বধূ সাজলেন মাহি?
Next articleকরোনায় আক্রান্ত তানজিন তিশা

Leave a Reply