ট্রেলারের শুরুটা হয়েছে পালটে যাওয়ার গল্প দিয়ে। কিন্তু বদলে গেল কে, অমল নাকি রক্তিম? রহস্য জিইয়ে রেখেই শুরু ছবির ট্রেলার। ধীরে ধীরে গল্প যত এগিয়েছে ততই যেন রহস্য জমাট বেঁধেছে। অনির্বাণকে দেখা গিয়েছে বিভিন্ন শেডের চরিত্রে। কখনও স্কুলের শিক্ষক। যাঁর সামনের দাঁত বা ক্যানাইল টিথ থাকার কারণে ছাত্ররা তাঁকে ‘ড্রাকুলা স্যার’ বলে ডাকে। আবার তাঁকে স্বামীর ভূমিকাতেও দেখা গিয়েছে। সেই পর্যায়ে স্ত্রীর চরিত্রে দেখা গিয়েছে বিদিপ্তাকে। উঠেছে বাচ্চাদের দাঁত দেখিয়ে ভয় পাওয়ানোর ঝলক। ১৯৭১ সালের প্রেক্ষাপটে দেখা গিয়েছে মিমিকে। ‘ড্রাকুলা স্যার’ ছবিতে মিমির চরিত্রের নাম মঞ্জরী। সে বড়ই নিঃসঙ্গ, বিষন্ন। টিজারের পর ট্রেলারে দেখা পাওয়া গিয়েছে রুদ্রনীলের। ট্রেলারের রহস্যের মোচড়ের কোনও খামতি নেই।

সাংসদ হওয়ার পর প্রথম দেবালয়ের ‘ড্রাকুলা স্যার’ ছবিতে দেখা যাবে অভিনেত্রী-সাংসদকে। এর আগে ‘ধনঞ্জয়’ ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন মিমি এবং অনির্বাণ। তবে তাঁদের স্ক্রিন শেয়ার করতে দেখা যায়নি। ‘ড্রাকুলা স্যার’-এ এক ফ্রেমে ধরা দিলেন তাঁরা। ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন দেবালয় এবং কল্লোল লাহিড়ি। অমিত-ইশান জুটির কাঁধেই রয়েছে ‘ড্রাকুলা স্যার’-এর মিউজিকের দায়িত্বভার। ছবিটি পরিচালনা করেছেন দেবালয় ভট্টাচার্য। বহু প্রতীক্ষীত ছবির ট্রেলার দেখেই মুগ্ধ দর্শকরা। ছবি দেখার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন তাঁরা। আনলকের নিয়ম অনুযায়ী ৫ অক্টোবর খুলছে সিনেমা হল। এই পুজোতেই মুক্তি পাচ্ছে ‘ড্রাকুলা স্যার’।

Previous articleবিটিভিতে ‘মাননীয় আদালত’
Next articleভালোবাসার ২৬ বছর

Leave a Reply