জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সন্দেহের তীর এখন ঢাকাই চলচ্চিত্র, নাটক এবং সঙ্গীতাঙ্গনের ৬৫ শিল্পীর দিকে। তাদের সবার বিরুদ্ধেই রয়েছে কর ফাঁকিসহ বিদেশে টাকা পাচারের অভিযোগ। এনবিআর এর এই উদ্যোগের পাশাপাশি অভিযুক্ত শিল্পীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনও তদন্তে নামছে।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি দেশের বেশ কয়েক জন শিল্পীর আয়কর ফাঁকির বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এদের মধ্যে নাটকের শিল্পীদের সংখ্যাই বেশি। প্রকাশিত সংবাদে দাবী করা হয়, বর্তমানে হাতে গোনা কয়েকজন অভিনেতা বিএনপি নেতার ইউটিউব চ্যানেলের সাথে মিলে সিন্ডিকেট গড়ে তাদের পারিশ্রমিক বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছেন। প্রতি বছর ওই অভিনেতারা কোটি কোটি টাকা আয় করলেও তাদের আয়কর রিটার্নে সামান্য একটা অংশ দেখানো হয়। আয়কর ফাঁকি দেয়ার এই বিষয়টা চলছে অনেক বছর ধরেই।

এনবিআর সূত্র আরো জানায়, পার্শ্ব অভিনেত্রীর অবস্থানে থাকা কিছু শিল্পীর প্রদর্শিত আয়ের সাথে তাদের সম্পদের একেবারেই মিল নেই। এমনকি তাদের অনেকেই আয়কর দেন না। পাশাপাশি সনাতনী ধর্মের এক অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে ভারতে টাকা পাচারের অভিযোগেও আছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি সূত্র জানায়, কিছু শিল্পীর বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচারের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে। যারা ভারতসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ক্যানাডায় কোটি কোটি টাকা পাচার করেছেন। অনেকেই প্রতি বছর একাধিকবার বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে বিপুল অংকের অর্থ খরচ করেন। এমন কিছু অভিনয় শিল্পী আছেন, যারা একদমই আয়কর দেন না, অথচ নিজেরা দামী গাড়ীতে চড়েন, বিলাসী জীবন যাপন করেন। ঢাকায় তাদের কারো-কারো কোটি টাকা মূল্যের ফ্ল্যাট আছে।

সূত্রটি বলছে, মাঝারী সারির একজন অভিনয় শিল্পী দৈনিক দশ হাজার টাকা আয় করলেও তাদের প্রতিমাসে গড়ে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা আয়।

বাজার পড়ে যাওয়াদের শেষ সম্বল বহুপর্বের নাটক:

অভিনয় শিল্পী, যাদের এক পর্বের নাটকে কাস্ট করা হয় না বা যাদের বাজার পড়ে যায়, তারা বহুপর্বের নাটকে নিয়মিত হন। যদিও তখন তাদের পারিশ্রমিক কমে যায় তবু মাসে কুড়ি দিন কাজ করতে পারলে ওরা বছরে ৮-১০ লাখ টাকা আয় করেন। কিন্তু ওদের কেউই আয়কর রিটার্নে এর দশ ভাগের একভাগও দেখান না।

আবার মাঝারী সারির এমন কিছু নারী অভিনয় শিল্পী আছেন, যাদের দৃশ্যমান এবং অদৃশ্যমান মিলিয়ে প্রতিমাসে গড় আয় দশ লাখ টাকারও বেশি। ঢাকা শহরেই তারা কোটি কোটি টাকা দামের ফ্ল্যাটে থাকেন। ঢাকা শহর এবং অন্যান্য শহরে তাদের বাড়ি, ফ্ল্যাট, দোকানসহ নানা ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। তারা বিলাসী জীবন যাপন করছেন। তাদের কারো-কারো ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির হোতাদের সাথে দহরম-মহরমের পাশাপাশি মাদক সিন্ডিকেটের সাথেও ঘনিষ্ট যোগাযোগ আছে। এসব অভিনয় শিল্পীদের সম্পর্কে এরই মাঝে খোঁজখবর নিতে শুরু করেছে দুদক।

 

Previous articleশেষ হলো ‘বিউটি সার্কাস’
Next articleবৈশাখী টিভির অনলাইন আড্ডায় অভিনেতা শিশির আহমেদ

Leave a Reply