হল খোলার সংবাদে শুটিং শুরু হয়েছে চারদিকে। এরইমধ্যে গুঞ্জন উঠেছে প্রেক্ষাগৃহে পুরাতন ছবি চলবে। আবার কেউ বলছেন নতুন ছবির কথা। একটা চক্র বলছেন নতুন ছবি ছাড়া প্রেক্ষাগৃহে দর্শক আসবে না। তবে দর্শকের মতামত ভিন্ন। তারা চাচ্ছেন নতুন কিংবা পুরাতন যে ছবিই হোক স্বশরীরে হলে এসে সিনেমা দেখতে। বিনোদনহীন আর থাকতে নারাজ। জীবনের জন্য প্রয়োজন বিনোদন। দীর্ঘ দিন বিনোদন থেকে বঞ্চিত তারা। তাই স্বশরীরে হলে এসে সিনেমা দেখতে চান।

এ প্রসঙ্গে কথা হয় বেশ কয়েক জন বাংলা চলচ্চিত্রের দর্শকের সাথে। সবার মুখে একই কথা তারা হলে গিয়ে সিনেমা দেখতে চান। বরিশালের অভিরুচি সিনেমা হলের নিয়মিত দর্শক গ্লোবাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মিজানুর রহমান শিমুল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় দীর্ঘ দিন ধরে বন্ধ। এরমধ্যে বেশ কয়েক দিন গ্রামে গিয়ে ঘুরে এসেছি। বিনোদন ছাড়া আর ভালো লাগছে না। সপ্তাহে চেষ্টা করতাম ব্যস্ততার ফাঁকে চার দিন সিনেমা দেখতে। তবে অনেক দিন হল বন্ধ থাকার কারণে বিনোদন থেকে বঞ্চিত আছি। পুরাতন কিংবা নতুন হোক হল খুললে বন্ধুদের নিয়ে সিনেমা দেখতে যাবো। ’

চন্দ্রিমা হলের মালিক ও হল মালিক সমিতির সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ বলেন, ‘যেহেতু স্বাস্থ্যবিধির জন্য হলের আসন সংখ্যা কমে গেছে সে ক্ষেত্রে নতুন ছবি নিতে হল মালিকদের বেগ পেতে হবে। তাছাড়া অনেকে নিতে পারবে কিনা সেটাও ভাবনার বিষয়। এ ক্ষেত্রে সরকার বিবেচনা করে যদি ছয় মাস বিদ্যুৎ বিল মওকুফ ও টিকিটের ভর্তুকি দেয় তাহলে নতুন ছবির ব্যাপারে হল মালিকরা আগ্রহ দেখাবে। যতদূর জানি আসাম সরকার ভর্তুকি দিয়ে হল খোলার ঘোষণা দিয়েছে। যেহেতু আসাম সরকার ভর্তুকি দিয়ে হল চালু রাখার ঘোষণা দিয়েছেন সে ক্ষেত্রে চলচ্চিত্রবান্ধব বাংলাদেশের সরকারকেও বিষয়টি ভাবার জন্য অনুরোধ করবো।’

এরপর তিনি প্রযোজকদের প্রতি নতুন ছবির প্রচারণায়  জোর দিতে আহ্বান জানান। বলেন, ‘পূর্বে দেখা গেছে প্রচারণার অভাবে ভালো মানের অনেক ছবিই দর্শকের কাছে পৌঁছাতে পারেনি। যেদিন থেকে হল খোলা সেদিন থেকে আমাদের খরচ গুনতে হবে। হল মালিকরা কারোনাকালে এ নিয়ে খুবই চিন্তিত। অনেকে আমাকে ফোন করছেন তাদের সমস্যার কথা বলছেন। তারা সমিতির মাধ্যমে সরকারের কাছে বিষয়টি তুলে ধরতে বলছেন।’

চলচ্চিত্র বিশ্লেষক আহমেদ তেপান্তর বলেন, ‘হল মালিকদের নতুন-পুরাতন ছবি চালানো নিয়ে যে দ্বিধা তৈরি হয়েছে তা অমূলক না। যতদূর অবগত আছি চলতি বছর চব্বিশটি ছবির মুক্তির তারিখ নির্ধারণ ছিলো। তার মধ্যে বড় বাজেটেরও বেশ কিছু চলচ্চিত্র রয়েছে। এখন  চাইলেই সব প্রযোজক প্রথম পর্যায়ে নতুন ছবি মুক্তি দিবে না। তারা সিনেমা হল খোলার পর পরিবেশ দেখে নতুন ছবি মুক্তির পরিকল্পনা করবে। যদিও এরইমধ্যে ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ‘বান্ধব’ নামের একটি ছবির মুক্তির ঘোষণা করেছে এক প্রযোজক। তবে এখন নতুন ছবি মুক্তি না দিয়ে পুরাতন ছবি মুক্তি দেওয়া যেতে পারে। হলের পরিবেশ দেখে নতুন ছবির পরিকল্পনা করতে পারেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুটি উপায়ে হলগুলোকে সচল ও প্রযোজকদের বাঁচিয়ে রাখা যেতে পারে। এরমধ্যে একটি বিষয় সরকার সরাসরি ভাবে প্রযোজকদের ভর্তুকি দিয়ে ছবি মুক্তির ব্যবস্থা করে হল চালু রাখতে পারে। যা ভারতে হচ্ছে। এই ভর্তুকির উপর দুই মাস হলের বিদ্যুৎ বিল মওকুফ করে হল মালিক ও প্রযোজকদের সুযোগ করে দিতে পারে চলচ্চিত্রবান্ধব সরকার। আর যদি সেটি সরকার না করে তবে প্রযোজকরা পুরাতন ছবিগুলো নাম মাত্র টাকায় বিক্রি করে দিতে পারে। সে ক্ষেত্রে দর্শকের রুচি যাচাই করা যাবে। এবং পুরাতন ছবির চাহিদাও বোঝা যাবে দর্শক আসলে কি চায়। তবে বিভিন্ন জায়গায় কথা বলে জেনেছি দর্শক সিনেমা হলে আসতে চায়।’

যেমন সিনেমা হল খোলার পক্ষে মত রয়েছে আবার হল না খোলার বিপক্ষেও মত রয়েছে। করোনাকালে ডিজিটাল মাধ্যমে সিনেমা দেখতে অভ্যস্ত হয়েছেন তারা হলে গিয়ে ছবি দেখতে আগ্রহী না। তারা ডিজিটাল মাধ্যমেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। তবে যারা একথা বলছেন তারা আসলে অতিথি দর্শক।

চলচ্চিত্রর কথা চিন্তা করে কিছুটা ঝুঁকি নিয়ে ‘বান্ধব’ সিনেমার মুক্তির পরিকল্পনা করছেন প্রযোজক অনুপম কুমার বড়ুয়া। ছবিটি আগামী ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে সারা দেশে মুক্তি পাবে বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন। অনুপম কুমার বড়ুয়া বলেন, ‘আগামী ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ‘বান্ধব’ সিনেমাটি মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। করোনার এ সময়ে ছবি মুক্তি দেওয়া কিছুটা ঝুঁকি হয়ে যায় তারপরও ঝুঁকি নিয়েই মুক্তির পরিকল্পনা করছি। যেহেতু ১৬ তারিখ সিনেমা হল খোলার পরিকল্পনা করেছে সরকার তাই পরবর্তীতে হলের অবস্থা বুঝে মুক্তির তারিখ জানিয়ে দেব।’

Previous articleপ্রতিদিনের ধারাবাহিক ‘স্মৃতির আল্পনা আঁকি’
Next articleজারা বিউটি পার্লারের দ্বিতীয় ব্রাঞ্চ’র যাত্রা শুরু

Leave a Reply