রঞ্জু সরকার: অভিনেতা কাজী উজ্জ্বল। বাবা চরিত্রে অভিনয় করে আলাদা একটা অবস্থান তৈরি করেছেন তিনি। নাটক-চলচ্চিত্রে দুই মাধ্যমে কাজ করছেন। অভিনয়ের জন্য ছেড়েছেন সরকারি চাকরি। ১৯৮৩ সালে মঞ্চে কাজ শুরু করেন। আলাপকালে অভিনয়ের আসার গল্প বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি শিল্পটাকে ভালোবাসি। আর ভালোবাসি বলেই ক্লাস সেভেনে পড়াকালীন বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিলাম একটা যাত্রাপালায়। ছয় মাস পরে ফেরত আসি। এসে আবার পড়াশোনা শুরু করি। পড়ালেখা শেষ করে সরকারি চাকরি শুরু করি। একদিন আমার বস বললেন উজ্জ্বল সাহেব আপনাকে যে কোন একটা দিক বেছে নিতে হবে এক সাথে দুইটা কাজ হয় না। হয়তো চাকরি অথবা শিল্প। তখনই সিদ্ধান্ত নেই চাকরি ছাড়ার। চাকরি ছেড়ে শিল্পটাকে বেছে নিয়েছি। আমার বস আমাকে বাধ্য করেছিলো চাকরি ছাড়তে। তখন আমি বসকে বলেছিলাম আপনার মতো মানুষ সিনিয়র সচিব হলেও আপনাকে মানুষ চিনবে না কিন্তু আমি শিল্পী আমাকে হাজারো মানুষ চিনবে। তাকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে সেদিন বের হয়ে এসে ঠিকই আমার স্বপ্ন পূরণ করেছি। লক্ষ যদি ঠিক থাকে তাহলে যে কেউ তার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবে।’

উজ্জ্বলের বর্তমান ব্যস্ততা নাটক ঘিরে। কাজ করেছেন ‘নবাব এলএলবি’ শিরোনামের নতুন একটি চলচ্চিত্রে। এছাড়াও শিহাব শাহীনের একটি ওয়েব সিরিজের কাজ শেষ করেছেন। তবে এখনই নাম বলা নিষেধ। বাস্তব ঘটনা নিয়ে ওয়েব সিরিজটি। চলচ্চিত্রে কম দেখার কারণ জানিয়ে বলেন, ‘আমার সন্তানেরা চায় আমি নাটকে নিয়মিত কাজ করি। চলচ্চিত্রে তারা নিয়মিত চায় না। যার কারণে চলচ্চিত্রে কম কাজ করা। তাছাড়া এখন তো সেভাবে ভালো চলচ্চিত্র হচ্ছে না। ভালো চলচ্চিত্র পেলে কাজ করবো।’

করোনায় খুব আতঙ্ক নিয়ে শুটিং করছেন উজ্জ্বল। চেষ্টা করছেন সব ধরনের নিয়মনীতি মানার। বাইরের খাবার না খেয়ে পারলে খাচ্ছেন না। বাসা থেকে বের হওয়ার সময় বড় একটা চায়ের ফ্লাক্স নিয়ে আসেন। করোনকালীন বাসা ভাড়া নিচ্ছেন না তিনি। বলেন, আমার ইনকাম বন্ধ ছিল। বাসায় চার জন ছেলেকে ফ্রি থাকতে দিয়েছি। করোনা আমাদের অনেক কিছু শিক্ষা দিয়েছে। আমাদের মানবিক হতে শিখিয়েছে।

নাটকের বাজেটের কথা উল্লেখ করে এ অভিনেতা বলেন, ‘বর্তমানে নাটকের বাজেট কমে গেছে। যার কারণে ভালো মানের কাজ হচ্ছে না। আমাদের সবারই কম বাজেটে কাজ করতে হচ্ছে। খুব ক্রাইসিস মধ্যে দিয়ে কাজ করছি। আগে যে বাজেট পেতাম সেটা এখন কমে গেছে। একটা নাটকের সর্বোচ্চ বাজেট হচ্ছে দেড় লাখ টাকা। তাহলে আমরা যদি এক লাখ টাকা চাই সেটা কি কেউ দিবে? এই হলো আমাদের বর্তমান অবস্থা। এখন শিল্পমান ঠিক থাকছে না। নাটক এখন আর শিল্প নেই। সবার টার্গেট ব্যবসা। অভিনয় না জানা যে কেউ এখন চাইলে কাজ করতে পারে। কেউ শিখতে চায় না। অথচ অভিনয়ের জন্য শেখাটা জরুরি।’

এখনকার নাটক অভিভাবকহীন উল্লেখ করে কাজী উজ্জ্বল বলেন, ‘বর্তমান নাটকে বাবা-মা, চাচা-চাচী পরিবার কেন্দ্রিক চরিত্রগুলো বিলপ্ত। দুই জন শিল্পী দিয়েই এক টেবিলে নাটক শেষ হয়ে যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ নাটকের সিংগভাহ বাজেট নিয়ে নিচ্ছে। যার কারণে বাবা-মার চরিত্র নিয়ে গল্পকার ও পরিচালকের ভাবার সুযোগই নেই। বর্তমানে বাবা-মার চরিত্র তিন হাজার টাকায় প্যাকেজে পাওয়া যায়। বাজেট কমের কারণে বাব-মা ছাড়া নাটক নির্মাণ হচ্ছে। কেউ আমাদের নিয়ে ভাবছে না। আমাদের মূল্যায়ণ হয় না। এই হলো আমাদের শিল্পের অবস্থা। আমাদের এখানে মেধার মূল্যায়ণ নেই।’

Previous articleতারকাবহুল ওয়েব সিরিজ ‘বিলাপ’
Next articleচলচ্চিত্রে নবাগত প্রিয়মনি

Leave a Reply