সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী: বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের তাণ্ডব চলছে। অনেকেই বলছেন শীত মৌসুমে করোনা’র প্রকোপ আরো জটিল আকার ধারণ করবে। জানুয়ারী মাসে দেখা দেয়া করোনা কবে দূর হবে কেউই বলতে পারছে না। অনেকেই বলছে, ভ্যাকসিন না আসা অব্দি নিস্তার পাবে না বিশ্ব এই মহামারী থেকে। আবার কেউ কেউ বলছে, ভ্যাকসিন এলেও সেটা সবার কাছে পৌঁছতে অন্তত দু’বছর লেগে যাবে। করোনা ভ্যাকসিনের দাম নিয়েও অনেক প্রশ্ন। কারণ, এ যাবৎ পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে বলা হচ্ছে করোনা ভ্যাকসিনের দাম পড়বে আট হাজার টাকার বেশি। এতো টাকা খরচ করে অনেকের পক্ষেই হয়তো ভ্যাকসিন নেয়াই অসম্ভব। এক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশের সরকার কি তাদের জনগনকে বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিন দেবে?

করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে এরই মাঝে চরম মন্দা দেখা দিয়েছে। আমাদের পার্শ্ববতী দেশ ভারতে করোনা সংকটের ফলে হুহু করে বাড়ছে বেকারত্ব। ভারতে সংক্রমিতের সংখ্যা এখন পাঁচ কোটির বেশি। এই ভয়াবহ অবস্থার মধ্যেই এগিয়ে আসছে সনাতনী ধর্মের অন্যতম উৎসব দুর্গা পূজা। অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে এই পূজা উদযাপিত হবে ভারত, বাংলাদেশসহ নানা দেশে।

কিন্তু সমস্যা হলো, করোনা পরিস্থিতির কারণে এরই মাঝে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদ এবং ইহুদী সম্প্রদায়ের রোস হাসানাহ অনুষ্ঠিত হয়নি। বাংলাদেশে ঈদের জামাত ছিলো খুবই সীমিত। অন্যদিকে ইহুদী ধর্মাবলম্বীরা তাদের ধর্মীয় উৎসব পালন করতে পারেন নি, কারণ ইসরায়েলে চলছে তিন সপ্তাহের জন্যে কঠোর লকডাউন। ভারতেও লকডাউন চলছে বিভিন্ন শহরে।

গত কয়েক বছর যাবত বাংলাদেশে খুবই আড়ম্বরপূর্নভাবে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপিত হচ্ছে। এ বছর সেটা আদৌ সম্ভব কিনা এ নিয়ে সবার মনেই আছে সংশয়। একইভাবে ভারতেও পূজা উদযাপনে বিঘ্ন ঘটাতে পারে করোনা। অনেকেই বলছে, করোনা সঙ্কট এবং বিদ্যমান আর্থিক মন্দার কারণে ভারতীয়দের পক্ষে এবার আগের মতো করে দুর্গাপূজা উদযাপন অসম্ভব। তাছাড়া কেন্দ্রীয় সরকার হয়তো পূজা উদযাপনের ক্ষেত্রে নানা ধরনের কড়াকড়ি আরোপ করবে।

২০২০ সালটাই করোনা মহামারীর কারণে বিশ্ববাসীর কাছে চরম নিরানন্দের বছরে পরিণত হয়ে গেছে। সবাই প্রহর গুনছে কবে এই আপদ দূর হবে। অনেকেই ভ্যাকসিনের আশায় মুখিয়ে আছে। কারো মনেই যেনো স্বস্তি নেই, শান্তি নেই। আমরা সবাই এই মহামারীর কাছে যেনো জিম্মি হয়ে পড়েছি।

এতো সব কিছুর পরও বাংলাদেশের মানুষ সাহসিকতার সাথে করোনা’র সাথে ক্রমাগত যুদ্ধ করে যাচ্ছে। সবাই বিশ্বাস করছে এই সঙ্কট যেমনি হুট করে এসেছে, ঠিক তেমনি ভাবেই হুট করে কোনো এক সকালে উধাও হয়ে যাবে। বাঙ্গালী বীরের জাতি। কোনো সংকটেই আমরা সাহস হারাই না। এ কারণেই হয়তো এই বাংলায় শারদীয় দুর্গোৎসব রঙ হারাবে না। দুর্গা দেবীকে বলা হয় দুর্গতিনাশিনী। তার আগমনে কি এই ধরণীর মানুষগুলো করোনা দুর্গতির কবল থেকে রক্ষা পাবে না?

লেখক: সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, মিডিয়া বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ এর সম্পাদক।

Previous articleহঠাৎ শুটিংয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেন অপূর্ব!
Next articleশিল্পীদের আয়কর নথি খতিয়ে দেখবে এনবিআর

Leave a Reply