ইচ্ছে জাগে স্বপ্ন দেখার। ইচ্ছের আকাশে রঙিন ঘুড়ি উড়াতে কার না ভালো লাগে। কারো কারো জীবনে এই স্বপ্নগুলো কল্পনার চেয়েও চক চকে হয়ে ধরা দেয়। আবার কারো কারো জীবনে এই স্বপ্নরাই ফোঁটে সাদা-কালো ছবির মতো বিবর্ণ হয়ে। তো স্বপ্নেরা বাস্তবতার আলোয় প্রস্ফূটিত হোক আর নাই হোক স্বপ্ন দেখা তো আর থেমে থাকে না। তাহলে তো জীবনটাই হয়ে যেতো স্থবির, রঙহীন আর ম্রিয়মাণ।

সবাই স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসে। আর সবারই আকাঙ্ক্ষা থাকে নিজের স্বপ্ন পূরণের। শুধু বলেই থেমে না থেকে এগিয়ে চলেন সামনের দিকে। নিজের পথ নিজেই তৈরি করেন। এমনই এক তরুণ স্বপ্নবাজ মাগুরার ছেলে শাকিলুর রহমান। পড়াশোনা আর খেলাধুলা করে কেটেছে শৈশব। প্রাথমিকের গন্ডি পেরিয়ে মাধ্যমিক শেষ না করেই যোগ দেন শিশু সাংবাদিকতায়। এরপর একের পর এক প্রাপ্তি যোগ হয়েছে অর্জনের তালিকায়।

২০১৬ সালে ফেসবুকের এক বন্ধুর হাত ধরে জাতীয় অনলাইন পোর্টাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের শিশু সাংবাদিকতার সাইট ‘হ্যালো’তে কাজ শুরু করেন। এরপর থেকেই ‘হিজড়া শিশুরা কষ্টে আছে’ ও ‘ভিক্ষে নির্ভর মুক্তিযোদ্ধার জীবন’ এছাড়াও বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে হাট এবং ‘সোনাপুর বাঁশের সাঁকোর বেহাল অবস্থা’ এ রকম বেশ কিছু সংবাদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে প্রকাশের পর বেশ সুনাম কুঁড়ায় শাকিল। ২০১৮ সালে মনোনীত হয়েছিলেন মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডের সংবাদ বিভাগে পুরষ্কারের জন্য।

মাধ্যমিক শেষ করে শিশু সাংবাদিকতার পাঠ চুকিয়ে ঢাকায় আসেন তিনি। প্রথম সারির জাতীয় দৈনিক ও বেশকিছু অনলাইন পোর্টালে বিনোদন সাংবাদিক হিসেবে কাজ করেন। এরপর ভাবলেন চলচ্চিত্রের ডিজিটাল মার্কেটিং করবেন। যেই ভাবনা সেই কাজ কয়েক জন উদ্যামী তরুণের সাহায্যে ধীরে ধীরে গড়ে তুলেছেন এসকে মিডিয়া।

তরুণ এই উদ্যোক্তা শাকিলুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশে সিনেমা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সুযোগ বেশি একটা নেই। ভাবলাম এটাই করি তাই বেশ কয়েকজন মিলে এসকে মিডিয়া গড়ে তুলি। ‘নোলক’ সিনেমার মাধ্যমে এসকে মিডিয়ার ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের যাত্রা শুরু করি। এরপর একে একে বেশকিছু সিনেমার মার্কেটি কাজ করি। তারপর আস্তে আস্তে ওয়েব সিরিজ, নাটক ও মিউজিক ভিডিও নিয়ে করি। সম্প্রতি আমাদের ওয়েবসাইট এসেছে। তাছাড়া অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট এর কাজ চলছে। বিনোদন, খেলাধুলা, তথ্য প্রযুক্তি, ভ্রমণ, সাহিত্য সহ আরও বেশ কিছু বিভাগ নিয়ে কাজ করছে এস কে মিডিয়া।’

করোনাভাইরাসের কারণে যখন সারাদেশে লকডাউন। তখন এসকে মিডিয়া একটি বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করে। পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে ‘জনতার চো‌খে মান‌বিক পু‌লিশ’ নামের একটি সাক্ষাৎকার ভিত্তিক ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠান আয়োজন করে। এই অনুষ্ঠানটি বেশ সাড়াও ফেলেছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।

এ প্রসঙ্গে এসকে মিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা শাকিল বলেন, ‘প্রথমেই ধন্যবাদ দিতে চাই বাংলাদেশের ডাক্তার, নার্স, পুলিশ, সাংবাদিক ও অন্যান্য সেবাকর্মীরা আমাদের সুস্থ রাখতেই করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। তাদের জন্য আমাদের অনেক অনেক ভালোবাসা এবং শ্রদ্ধা। করোনার কারণে যখন সারাদেশে লকডাউন ছিল। তখন ভাবলাম ব্যতিক্রম কিছু শুরু করবো। তার দুইদিন পর হঠাৎ টিভিতে দেখলাম পুলিশ সদস্যরা করোনায় মৃত মানুষদের লাশ দাফন করছেন। তখনই মাথায় এলো আমাদের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ কর্মকর্তারা অনেক কষ্ট করছে। তাঁরাও আমাদের মতোই মানুষ, তাদেরও কষ্ট আছে, পরিবার আছে, মা-বাবা, ছেলে-মেয়ে সবই আছে। তাদের কষ্ট ও ভালোবাসার গল্প তুলে ধরার জন্য ‘জনতার চো‌খে মান‌বিক পু‌লিশ’ অনুষ্ঠানটি করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানটির পিছনে এসকে মিডিয়ার টিম মেম্বারদের অনেক কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। আমি ধন্যবাদ দিতে চাই দেশের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান ‘ওকোড’র সকল কর্মকর্তাদের কে। এছাড়াও নাহরীন আপু, সাদিয়া আপু, সুমন ভাই, সিমুল ভাইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা। আশা করি, সব সময় আপনাদের কে পাশে পাবো।’

এরই মধ্যে নতুন একটি প্রজেক্ট শুরু করেছে এসকে মিডিয়া। যেখানে এক সাথে বড়-ছোটপর্দার নির্মাতা, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের জীবনের গল্প তুলে ধরা হবে। শীঘ্রই এটি এসকে মিডিয়ার ফেইসবুক পেইজ ও ইউটিউবে প্রকাশ হবে।

শাকিল আরও বলেন, ‘শুরুটা এত সহজ ছিল না। এসকে মিডিয়ার টিম মেম্বারদের অনেক কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। এখন মোটামুটি একটা ভালো অবস্থান তৈরি হয়েছে। অনেকে নতুন কাজের প্রস্তাব দিচ্ছেন। তাছাড়া আমাদের আয় ও সন্তোষ জনক। আমরা মনে করি চলচ্চিত্রের ও সংস্কৃতিকের সুদিন আবার ফিরবে। এসকে মিডিয়া সব সময় সংস্কৃতির পাশে আছে, থাকবে।’

Previous articleচ্যালেঞ্জ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তরুণ উদ্যোক্তা সানা
Next articleমাহি-রোশানকে নিয়ে ‘আশীর্বাদ’ শুরু

Leave a Reply