বলিউডে নায়িকারাই শুধু মাদকাসক্ত! পুরুষেরা কী করেন? ঘর পরিষ্কার করেন, রান্না করেন আর জোড়হাতে তাঁদের বউদের জন্য ভগবানের কাছে প্রার্থনা করেন, ভগবান ওদের রক্ষা কর? টুইটে এ ভাবেই বলিউডের পিতৃতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক সাংসদ, টলিউড অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। তাঁর সোশ্যাল-বার্তা দিয়েই এই প্রথম বলিউডের সঙ্গে ড্রাগের নেশা নিয়ে এনসিবি তদন্তের প্রকাশ্য সমালোচনা করল টলিউড।

গণমাধ্যমকে মিমি বলেন, কোনও মেয়ে যদি কাজের মাধ্যমে ক্ষমতাশালী হয়। সুন্দরী হয়, অভিনেত্রী হয় তাঁকে সবাই দেখতে চাইবে। এখন মাদকযোগে এনসিবি শুধু অভিনেত্রীদের ডেকে পাঠাল? ছেলেরা কি ধোয়া তুলসী পাতা?। এক জন সাংসদ হিসেবে মিমি বিষয়টা আরও পরিষ্কার করে দিয়ে বলেন, করোনা ভ্যাকসিন, কৃষক বিলের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় থেকে সরে আসতেই এই অভিনেত্রীদের মাদক যোগের প্রসঙ্গ এনে মিডিয়াকে, সাধারণ মানুষকে দূরে রাখতে চাইছে বর্তমান সরকার।

নিজের অভিজ্ঞতার কথা মাথায় রেখে মিমি বলেন, আমি বিশেষ কারও পক্ষ নিচ্ছি না! তবে আমি জানি একজন মেয়ে হিসেবে কেমন করে ধাপে ধাপে লড়াই করে দীপিকাকে উঠতে হয়েছে। ও নিজের বক্তব্যও বলিষ্ঠ। সেই কারণেই ও পিতৃতন্ত্রের নজরে। ওর এত পরিশ্রম। ইমেজ সব নষ্ট হয়ে যাবে? আমার খুব খারাপ লাগছে।

দীপিকার কথা বলতে গিয়ে মিমি জানান, মাদক যোগ নিয়ে তদন্ত যদি করতেই হয় তা হলে আইনত হোক। বেছে, বেছে অভিনেত্রীদের এই সারিতে দাঁড় করানো হচ্ছে কেন। তাঁর কথায়, সুশান্তের মৃত্যুর পরেই সবাই জানাল বলিউডে মাদক ব্যবসা চলে। এর আগে এই বিষয় নিয়ে কই কোনও কথা তো ওঠেনি! কেন?

Previous articleবন্ধন বিশ্বাস’র ‘জাল’
Next articleডিসেম্বরে আসছে ‘বান্ধব’

Leave a Reply