অনিশ্চিত এক ভবিষ্যতের পথে ঢাকাই চলচ্চিত্র। বিগত বছরের হিসেব অনুযায়ী ঈদ ছাড়া তেমন দর্শক পায় না প্রেক্ষাগৃহ গুলো। তবে করোনা বদলে দিয়েছে বিগ বাজেটের ছবিগুলোর ভবিষ্যত। অদৃশ্য করোনায় বাক্সবন্দি হয়ে আছে সব ছবি। এক সময়ে দেশে ১৩০০ প্রেক্ষাগৃহ থাকলেও এখন সচল মাত্র ৬২টি। করোনার কারণে এর সংখ্যা কতটা নিচে নামবে তা নিয়ে সিনেমা সংশ্লিষ্টদের কপালে পড়েছে চিন্তার ভাজ। গভীর সংকটে ঢাকাই চলচ্চিত্র।

ঢাকাই সিনেমায় শিল্পী, গল্পকার সহ নানান সংকট বিদ্যমান। ছয় মাস সাতাশ দিন ধরে সিনেমা হল বন্ধ। এদিকে সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু হবে দেশের সব সিনেমা হল। এমন সিদ্ধান্তে স্বস্তি ফিরেছে সিনেমা হলের মালিকদের মধ্যে। তবে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিগুলোর প্রযোজকরা ঝুঁকি নিয়ে এখনই চাইছেন না সিনেমা মুক্তি দিতে। আগে পরিস্থিতি বুঝবেন তারপর মুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন। গেল দুই ঈদ ছিলো ছবি শূন্য। ইতিহাসে এবারই প্রথম সিনেমা হল ছিলো তালাবন্ধ। করোনা বদলে দিয়েছে চিরচেনা দৃশ্যপট।

কয়েক বছর আগেও কাকরাইল পাঁড়ায় ছিলো বেশ কিছু দেশের নামি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান অনেক আগেই বন্ধ হয়ে গেছে। আর খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে বাকি যে কয়টি আছে। করোনা এসেছে বাংলা চলচ্চিত্রর জন্য অভিশাপ হয়ে। চলতি বছর চলচ্চিত্রর বছর ভাবা হলেও সব হিসেব পাল্টে দেয় করোনা ভাইরাস। ঢাকাই সিনেমা চরম সংকটের মধ্য দিয়ে খুঁড়ে খুঁড়ে চলছে। সারাদেরশে প্রেক্ষাগৃহ কমে যাওয়া থেকে শুরু করে বেশ কিছু কারণে চলচ্চিত্রের আজ এই দশা।

১৯৭১ সাল থেকে ২০২০, ৪৯ বছরে বারবার সম্ভাবনার দ্বার খুললেও পুরো সাফল্য দেখতে পারেনি ঢাকাই চলচ্চিত্র। এখনও সংকটের মধ্যেই পরে আছে। ২০০০ সালের পর থেকে ঢাকাই চলচ্চিত্রে শুরু হয় অশ্লীলতার যুগ। এ সময় থেকে দর্শক হারাতে শুরু করে ঢাকাই ছবি। চলচ্চিত্র নির্মাতারা জানান যুদ্ধ পরবর্তী সময় ঢাকাই চলচ্চিত্র প্রথম ধাক্কা খায় ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার মধ্যে দিয়ে। এরপর স্বৈরী শাসনের সময় বারবার ধাক্কা খেয়েছে ইন্ডাস্ট্রি। যে রেশ রয়ে গেছে ২০২০ সালের শেষ প্রান্তে এসেও।

Previous articleঅর্থের অভাবে মর্গে অভিনেত্রীর মরদেহ, শিল্পী সংঘের সহায়তায় সমাধান
Next articleঅনন্য উচ্চতায় তাসনিয়া ফারিণ

Leave a Reply