বেশ ক’বছর ধরে চলচ্চিত্র, নাটক এবং সঙ্গীতাঙ্গনে যে চরম মন্দাবস্থা চলছে এটা থেকে বের হয়ে আসার নানা পথ-পদ্ধতি নিয়ে অনেকেই ভাবছেন। কিন্তু সবার ভাবনা কিংবা পরিকল্পনার মূলে আছে তারকা শিল্পীরা। এখানেই যতো সমস্যা! প্রথমত সঙ্গীতাঙ্গনের কথাই বলি। তারকা কণ্ঠশিল্পীদের পেছনে লাখ-লাখ টাকা বিনিয়োগ করে যখন অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো প্রায় ফতুর হতে বসেছে তখন আরমান আলিফ, সুকুমার বাউল কিংবা এমনি কিছু নতুন মুখ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের গানের মাধ্যমে বিপুল অংকের টাকা উপার্জন করে দিয়েছেন। গত তিন বছরের রেকর্ড দেখলেই বোঝা যায় তারকা শিল্পীদের একজনের গান থেকেও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান তাদের লগ্নিকৃত টাকাই ফেরত পায়নি। তারপরও ওই শিল্পীরা প্রতিযোগীতা করেই তাদের ভয়েস পেমেন্ট বাড়িয়েছেন।

অডিও শিল্পে এখন হাতে গোনা যে ক’জন কণ্ঠশিল্পীর গান রিলিজ দিয়ে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের লগ্নিকৃত অর্থ ফেরত পাচ্ছে তাদের মধ্যে অন্যতম এফ এ সুমন এবং ইমন খান। বাকী আর সবার গানেই বিনিয়োগের অর্থ ফেরত আসছে না। এটাই বাস্তবতা। গান মুক্তি দিয়ে লোকসান গুনতে-গুনতে ক্লান্ত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো এখন নতুন শিল্পীদের দিকেই ঝুঁকছে এবং পাশাপাশি নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে নাটক প্রযোজনা করছে। কিন্তু অডিও শিল্প ধ্বংসের মূলে যে ক’টি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান দায়ী তারাই এবার নাটক প্রযোজনার নামে কিছু অভিনয় শিল্পীর পারিশ্রমিক বাড়াতে-বাড়াতে এমন পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে যেখানে ওই শিল্পীদের দিয়ে নাটক বানিয়ে বিনিয়োগের টাকা ফেরত পাওয়াই মুশকিল।

একটা কথা এখানে বলে রাখি। নাটক প্রযোজনার ক্ষেত্রে সব চাইতে মূল্যবান বিষয় হচ্ছে স্পন্সর বা বিজ্ঞাপনদাতা। করোনা’র কারণে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার ফলে এরই মাঝে সব দেশেই বিজ্ঞাপনের হার কমছে। আগামীতে এই হার পঞ্চাশ ভাগের বেশি কমে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে সবচাইতে বড় সমস্যায় পড়বে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এবং টিভি চ্যানেলগুলো। এটা কি কারো মাথায় আছে? হাতে গোনা কিছু ইউটিউব চ্যানেল যেভাবে নাটকের কয়েকজন শিল্পীর পারিশ্রমিক বাড়িয়ে পরিস্থিতি অস্থির করে তুলছে তাতে অচিরেই নাটক সেক্টরের বিদ্যমান সঙ্কট ঘনীভূত হতে বাধ্য।

বাস্তবতা হলো চলচ্চিত্র, নাটক কিংবা সঙ্গীত সেক্টরে এখন চরম সংকট চলছে। বড়-বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোই এখন রীতিমত হিমসিম খাচ্ছে। এরই মাঝে বহু প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে- হারিয়ে গেছে মৌসুমী কিংবা সৌখিন প্রযোজকরা। হাতে গোনা কিছু অভিনয় শিল্পী এবং ইউটিউব চ্যানেলের কারণেই আমাদের নাটক সেক্টর মারাত্মক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে যাচ্ছে অচিরেই।

চলচ্চিত্রে বিদ্যমান খরা কবে দূর হবে সেটা কেউই জানে না। আগামী মাসে সিনেমা হল খুলছে। কিন্তু আমরা শুনছি শীত মৌসুমে নাকি করোনা ভয়ঙ্কর রূপ নেবে। এ কথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন। বিশেষজ্ঞরাও একই কথা বলছেন। এটাই যদি হয় তাহলে সিনেমা হল খুললেও দর্শক পাবে কিনা এটা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ আছে। তার মানে আমাদের চলচ্চিত্র সেক্টরের জন্য নিকটবর্তী কোনো সুসংবাদ নেই। চলচ্চিত্র সেক্টরকে রক্ষা করতে হলে আমাদের সিনেমা হল কিংবা সিনেপ্লেক্সের বিকল্প ভাবতে হবে। ওটিটি প্ল্যাটফর্মে সিনেমা মুক্তি দিতে হবে। এক্ষেত্রে অবশ্যই আমাদের সিনেমার নির্মাণ ব্যয় ব্যাপকভাবে কমাতে হবে। আর এ জন্য নতুনদের বেশি করে সুযোগ দিতে হবে। যেসব নির্মাতা বেশি বাজেট না পেলে সিনেমা বানাতে অক্ষম, তাদের মনে হয় অবসরে যাওয়ার সময় এসে গেছে। বাংলা নাটক বাঁচাতে হলে টিভি চ্যানেল এবং স্পন্সরদের শক্তিশালী ভূমিকা রাখতেই হবে। তাদের এখন তারকামুখি ভাবনায় পরিবর্তন এনে নতুনদের সুযোগ দেয়ার বিষয়টা সক্রিয়ভাবে ভাবতে হবে। আমাদের সবাইকে মনে রাখতে হবে দর্শক টানতে হলে ভালো গল্প চাই। শুধুমাত্র তারকা শিল্পী দিয়ে দুর্বল গল্পের নাটক বানিয়ে পুঁজি ফেরত পাওয়া দুষ্কর। আশা করি সংশ্লিষ্টরা বিষয়টা ভেবে দেখবেন।

লেখক: তাজুল ইসলাম, চলচ্চিত্র নির্মাতা।

Previous articleনাট্যমঞ্চের নীরবতা ভেঙ্গে চলতি মাসে লাল জমিনের তিন প্রদর্শনী
Next articleগান রক্তে মিশে আছে: মৌমিতা

Leave a Reply