ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর গত এক বছর আগে চট্টগ্রাম কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন এর অপদস্ত হয়েছেন বলে সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, শুরুতেই বলতে চাই কারো খারাপ সময়ে, তাকে নিয়ে বাহাস করা গীবত করা অবশ্যই নিন্দনীয় এবং এই কাজটা আমি কখনও করি না। তবে আজকে এই মানুষটিকে নিয়ে এই কথাগুলো বলার কারণ হলো আমার অসুস্থ মা আর আমাকে একটি পূজার রাতে নিমর্মভাবে হ্যারাস করার উপলব্ধি থেকে ওনাকে চেনা, আসল রুপ সম্পর্কে পরবর্তীতে জানা।

তিনি আরও লিখেন, চট্টগ্রাম কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন সাহেব ফেসবুকে সারাদিন অনেক ভাল ভাল কাজের ভিডিও দেন। চট্টগ্রামে অনেক বছর থেকে এসবের আড়ালে কি কি করেছেন তা ভুক্তভোগী ছাড়া কেউ মুখ ফুটে বলতে পারে না। গত বছর দূর্গা পূজার সময় আমার পরিবার সহ চট্টগ্রামে যাই৷ পূজামণ্ডপ ঘুরে আসার সময় কিছু ফ্যানদের সাথে ছবি তোলার সময় পূজামণ্ডপে একটা ছোট জটলা তৈরি হয় সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। আমি একজন অভিনেত্রী ছেলেমেয়ে গুলো আমার ফ্যান জানার পরেও সারা রাত আমার অসুস্থ মা ও আমাদের বিভিন্ন ভাবে অপদস্ত করা হয়।

আমার ছেলে ফ্যানদের নিয়ে আমাকে জড়িয়ে অনেক অশালীন কথাও তিনি বলেন। বারবার অশালীন কথা বলে বিভিন্নভাবে অপমান করে সেখান থেকে বড় একটা অংকের টাকা আদায় করার চেষ্টাও তিনি করেন। যেখানে আমাদেরকে উল্টা সরি বলার কথা কিন্তু টাকা না পেয়ে সেখানে অন্যায় ভাবে আমাকে অসুস্থ মাকে অপদস্ত করা হয়। পরবর্তীতে আমাদের পারিবারিক বন্ধুবান্ধব আর সাধারণ মানুষের চাপে পড়ে মধ্যরাতে বাধ্য হয়ে সমঝোতা করেন। সেই থেকে ভাবতাম এই লোকের আসল চেহারা একদিন না একদিন মানুষ জানবে। আজ তার শুরুটা দেখলাম। এই কথা সত্যি যে, প্রকৃতির বিচার বড়ই নিমর্ম সে তার ন্যায্য পাওনা তারে সঠিক সময়ে বুঝিয়ে দিবেই।

ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর বিকৃত তথ্য দিয়েছেন জানিয়ে মন্তব্য করেন চট্টগ্রাম কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন। তিনি কমেন্ট বক্সে লিখেন, আপনাদের সাথে অন্য কারও সমস্যা হয়েছিল। অন্যরাই আপনাকে এবং আপনাদের আটক করেছিল। পুলিশ যায় ঘটনা মীমাংসা করতে এবং আপনাদের উদ্ধার করতে। ঘটনা মীমাংসার পর আপনাদের কিছু ‘দাবি’ ছিল যা আইনত আমার পক্ষে পূরণ করা অসম্ভব ছিল। কিন্তু সেজন্য আপনি পুরো ঘটনা এভাবে বললেন তা দুঃখজনক। আর আপনার মতো সেলিব্রেটির কাছ থেকে আমি ‘মোটা অংকের টাকা খেতে চেয়েছি’- এটা হাস্যকর শোনাল না? আপনি তো সেদিনই কিংবা তার পরের দিনই আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে পারতেন। করলেন আজ! আর আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ। অভিযোগ মানেই তো অপরাধী নয়। তাই আমিও অপরাধী নই।

Previous articleভালো চলচ্চিত্রের বড়ই অভাব: পূর্ণিমা
Next articleশিল্পী বিশ্বাসের কন্ঠে শান্ত’র গান

Leave a Reply