তরুণ প্রজন্মের গায়িকা মৌমিতা বড়ুয়া। গান তার নেশা, রক্তে মিশে আছে গান। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান) শেষ করেছেন। গানের জগতে নানা জানা-অজনা কথা উঠে এসেছে জমজমাট প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে।

গায়িকা হওয়ার ইচ্ছে কি ছোটবেলা থেকেই?

সংগীতের বীজটা বপন হয় জন্ম থেকেই। আমার বাবা ত্রিদিব বড়ুয়া রানা একজন বিশিষ্ঠ কন্ঠশিল্পী, সুরকার ও সংগীত পরিচালক (তালিকাভুক্ত বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশন)। যার কারণে সংগীত আমার রক্তে মিশে আছে। গায়িকা হওয়ার ইচ্ছে ছিলো কিনা জানি না তবে গান গাওয়া আমার নেশা ছিলো। চ্যানেল আই সেরা কন্ঠ প্রতিযোগিতায় ২০১৭ সালে অংশ নিয়ে মিডিয়ায় আত্নপ্রকাশ করি।

কাজের শুরুটা কি ভাবে?

সেরা কন্ঠ প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করার পর প্রফেশনাল ক্যারিয়ার শুরু। সে সময় যতেষ্ট পরিবারের সাপোর্ট পেয়েছি। যেহেতু বাবা এ জগতের মানুষ সেহেতু সংগীত আমাদের পুরো পরিবারের কাছে ঈশ্বরের আরাধনার মতো বিষয়। আমার মা পেশায় একজন আইনজীবী। ব্যস্ততার মাঝেও আমার আর আমার বোনের গানের জন্য প্রচুর সময় ব্যয় করতেন মা। তাই শুরু থেকে এখন পর্যন্ত পুরো পরিবারের পূর্ণাঙ্গ সাপোর্টেই আমার এতোদূর আসা।

মিডিয়া কাজের ক্ষেত্রে অনেক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। কখনো এমনটা হয়েছে কি?

নতুন হিসেবে গান শোনার আগেই অনেকে অনেক সময় কাজ দেয়ার ব্যাপারে ভরসা করতে পারতেন না। আবার কেউ কেউ এতোটা ভরসা করেন তখন ভালো কাজ করতে পারার জন্য আলাদা আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়। তবে সব কথার শেষ কথা আমি নিজেকে যতটা ইমপ্রুভ করতে পারবো ততোই আমার প্রতিবন্ধকতা ক্রমশ দূর হবে।

মিডিয়াতে নতুন যারা গানের জগতে আসতে চায় তাদের উদ্দেশ্যে কি উপদেশ দিবেন?.

ক্রমাগত নিজেকে ইম্প্রুভ করতে হবে। নিজের ত্রুটিগুলোর দিকে বেশি নজর দিতে হবে। তাহলেই প্রতিবন্ধকতা কমে আসবে।

আপনার প্রিয় গায়ক?

মাহমুদুন নবী, নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরী, কুমার বিশ্বজিত, মোহাম্মদ রফি, মান্না দে, পন্ডিত অজয় চক্রবর্তী, ব্রায়ান এডামস, লিওনেল রিচি আর অবশ্যই আমার বাবা।

গান নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা?

গান নিয়েই মূলত সব পরিকল্পনা। নিজের মৌলিক গানের ভান্ডারকে আরো পরিপূর্ণ করতে চাই। এবং অবশ্যই মানসম্মত কাজ করতে চাই। সবার দোয়া আর ভালোবাসায় এগিয়ে যেতে চাই অনেক দূর।

Previous article‘মিডিয়ার মন্দাবস্থা নতুনরাই দূর করতে পারবে’
Next articleনীরব নিথর কঙ্কাল এফডিসি!

Leave a Reply