দীর্ঘ ছয় মাস সাতাশ দিন পর অবশেষে খুলছে দেশের সিনেমা হল। আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে দেশের সকল প্রেক্ষাগৃহ খুলে দেওয়া হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেন বাংলাদেশ প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস ও সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল। তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ হল মালিক সমিতির সাথে আজ একান্ত বৈঠকে এমন সিদ্ধান্তর কথা জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিয়া আলাউদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন এলাহী সম্রাট। এর আগে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে গত ১৮ মার্চ বন্ধ হয়ে যায় দেশের সকল সিনেমা হল।

এ সময় মন্ত্রী জানিয়েছেন, আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে প্রেক্ষাগৃহ গুলো খুলে দেওয়া হবে। এর আগে গত ২০ সেপ্টেম্বর বিদেশ থেকে দেশে ফিরেই মন্ত্রী জরুরি ভিত্তিতে মিটিং করেন হল মালিক সমিতির সাথে। তখন সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হল মালিকদের কোন প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে না। তবে স্বল্প সুদে ঋণ দেওয়া হবে। মন্ত্রীর কথায় সায় দেন প্রদর্শক সমিতির নেতৃবৃন্দ। তারা বলেন, স্বল্প সুদে ঋণ প্রণোদনার চেয়ে বড় কিছু। প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

করোনা মহামারীর কারণে সবচেয়ে ক্ষতি হয়েছে বাংলা সিনেমার। প্রায় পাঁচ মাস শুটিং বন্ধ ছিল। বর্তমানে শুটিং চালু হয়েছে। কিন্তু বন্ধ আছে সিনেমা হল গুলো। এতে বেকার হয়ে পড়েছে সিনেমা পাড়ার লোকজন। বিশেষ করে হল সংশ্লিষ্ট কর্মজীবীদের অবস্থা করুণ।

করোনা ভাইরাসের কারণে প্রায় ছয় মাস সাতাশ দিন ধরে দেশের সব সিনেমা হল বন্ধ। এতে করে যেমন দর্শক হলমুখো হতে পারছেন না, তেমনই সিনেমার সঙ্গে যুক্ত অনেকের বিপুল আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে৷ হল মালিক থেকে শুরু করে কর্মচারী সকলের এক প্রকার আয় বন্ধ৷ অন্যদিকে নতুন নতুন সিনেমা পড়ছে শিডিউল জটিলতায়। একেক করে পিছিয়ে যাচ্ছ সিনেমার মুক্তি। তবে সিনেমা হল খোলার সিদ্ধান্তে সিনেপাড়ায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।

Previous articleএকক নাটক ‘হোম ডেলিভারি’
Next article‘গল্পের মধ্যে গল্প, আর বলতে বারণ’

Leave a Reply