শোবিজের শুরুটা ততোটা সহজ ছিল না। অনেক কিছুতেই ছাড় দিতে হয়েছে। এমনও দিন গেছে না খেয়ে মতিঝিল থেকে মিরপুর হেটে যেতে হয়েছিল। অনেক কাজের পারিশ্রমিকও পাইনি। অনেক সময় পকেটে টাকা থাকতো না যার কারণে শুটিং শেষ করে বাসায় হেটে গিয়েছি। নতুন হিসেবে কেউ সহযোগিতা করেনি। শুরুতে অনেক কিছু সহ্য করে কাজ করতে হয়েছে। বেশ আক্ষেপ নিয়ে কথাগুলো বললেন তরুণ অভিনেতা হেদায়েত নান্নু।

প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান সিসিমপুরের শুটিং দিয়ে। এরপর বেশ কিছু নাটকে কাজ করেন। জীবনের প্রথম পারিশ্রমিক ছিল ৫০০ টাকা। তিন দিন শুটিং করে পাঁচশ টাকা পান। প্রথম পারিশ্রমিক পেয়ে কেঁদেছিলেন তিনি। শুরুর দিকের শুটিংয়ে রয়েছে তিক্তা অভিজ্ঞতা। কেউ মানুষ হিসেবে মূল্যায়ন করতো না। নতুন ছেলেদের কেউ সুযোগ দিতে চায় না। অথচ অভিনয় না জানা নতুন একটা মেয়ে আসলে সব ধরনের সাপোর্ট দেওয়া হয়। এ রকম যদি ছেলেদের দেওয়া হতো তাহলে অনেক দূর আগাতে পারতাম। কয়েক দিন আগে এক পরিচালক আমাকে বলে তোমার তো ভিউ নেই তোমাকে সবাই কেন কাজে নিবে। এখন ভিউয়ার্সের যুগ ভিউয়ার্স দিয়ে শিল্পীর মূল্যায়ন করা হয়। অশ্লীল সংলাপেও ভিউয়ার্স হয় তাই বলে শিল্পমান এতো নিচে নেমে গেছে? ভাবতে খুব দুঃখ হচ্ছে। -বললেন নান্নু।

নান্নু অভিনীত আরটিভিতে চলতি ধারাবাহিক ‘টিপু সুলতান’। প্রচারের অপেক্ষায় আছে আকাশ রঞ্জন পরিচালিত ‘পরিণতি’, হিমু আকরামের ‘দশ টাকার শান্তি’, ফরিদুল হাসানের নতুন ধারাবাহিক ‘বাহানা’ ওআবু হায়াত মাহমুদের ‘কোটিপতি’। নান্নু নিজেকে একজন দক্ষ অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চান। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অভিনয়ের উপরে অনার্স ও মাস্টার্স করেছেন। যুক্ত আছেন থিয়েটারে। এরইমধ্যে চলচ্চিত্রেও কাজ করেছেন তিনি। মুক্তির অপেক্ষায় আছে ‘পদ্মা পুরান’ চলচ্চিত্র। নান্নু চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে চান। এগিয়ে যেতে চান স্বপ্নের পথে।

Previous articleবিটিভির স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের চিত্রগ্রাহক প্রশংসিত
Next articleবিজ্ঞাপনে চঞ্চল-নোভা

Leave a Reply