বাংলা চলচ্চিত্র জগতের রাজপুত্র শালমান শাহ। মৃত্যুর দু’যুগ পর এখনও আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা তার। এখনও টিভি পর্দায় তার অভিনীত ছবি প্রচার হলে দর্শক আগ্রহ নিয়ে দেখেন। ঢাকাই ছবির রাজপুত্র বলা চলে সালমান শাহকে। তিনি নেই ২৪ বছর হলো। অথচ একবিন্দু কমেনি তার জনপ্রিয়তা ও আবেদন। বরং প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে আরও অনেক বেশি রঙিন হয়েছে তাকে নিয়ে ভালোবাসার রঙ।

ক্ষনজন্মা এই নায়ক রেখে গেছেন ২৭টি চলচ্চিত্র এবং অগণিত ভক্ত। সদ্য রুপালি পর্দায় অভিষেক ঘটা সালমান পর্দা থেকে বেরিয়ে হয়ে উঠেছিলেন কোটি তরুণের স্বপ্নের নায়ক। শুরুতেই বিশাল সাফল্য দিয়ে সালমান প্রাণসঞ্চার করে দিলেন মৃতপ্রায় চলচ্চিত্রে। তারপর শুধুই ইতিহাস। কেউ কেউ বলে থাকেন, সালমানের মতো জনপ্রিয় নায়ক হয়তো আর কখনোই কোনো দিন জন্মাবে না এই ইন্ডাস্ট্রিতে।

সালমান শাহ ১৯৭১ সালের ১৯ই সেপ্টেম্বর সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা কমর উদ্দিন চৌধুরী ও মাতা নীলা চৌধুরী। তিনি পরিবারের বড় ছেলে। যদিও তার জন্মনাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন। কিন্তু চলচ্চিত্র জীবনে তিনি সবার কাছে সালমান শাহ বলেই পরিচিত ছিলেন।

আজ ১৯ সেপ্টেম্বর সবার প্রিয় নায়ক সালমান শাহর জন্মদিন। বেঁচে থাকলে আজ ৫০ বছরে পা দিতেন তিনি। সালমানবিহীন এদেশে দীর্ঘ দিন ধরে তার জন্মদিন উদযাপন হয়ে আসছে। যা অন্য কোনো প্রয়াত নায়কের বেলায় তেমনটি চোখে পড়ে না কারও। এদিক থেকে এটা বড় একটি রেকর্ড। ১৯ সেপ্টেম্বর দিনটি এলে সালমান ভক্তরা জন্মদিনের কেক কাটেন এখনো।

তাকে নিয়ে আলোচনা করেন। তার সিনেমা প্রদর্শনীর আয়োজন করেন। সারাদেশে ছড়িয়ে আছেন তার ভক্তরা। সালমান শাহের মতো করে তারা মাথায় টুপি পরেন। প্রিয় নায়কের মতো করে সানগ্লাস পরেন। যা সত্যি বিস্ময়। নায়কের প্রতি ভালোবাসা বুঝি এমনই। আবার টেলিভিশন চ্যানেলগুলোও তার জন্মদিনে প্রতি বছর আয়োজন করে অনুষ্ঠানমালার। এবারও তা অব্যাহত থাকছে। তার সমাধিতে ফুল দিয়ে ভক্তরা স্মরণ করেন। দেশের নানা জায়গা থেকে সমাধিতে ভক্তরা যান। অবশ্য জন্মদিনের দিনটিতে একটু বেশিই যান। সালমান শাহ স্মৃতি পরিষদও ১৯ সেপ্টেম্বর এলেই দিনটি উদযাপন করে।

সালমান পড়াশুনা করেন খুলনার বয়রা মডেল হাইস্কুলে। একই স্কুলে চিত্রনায়িকা মৌসুমী তার সহপাঠী ছিলেন। ১৯৮৭ সালে তিনি ঢাকার ধানমন্ডি আরব মিশন স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। পরে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট ও ধানমন্ডির মালেকা সায়েন্স কলেজ (বর্তমান ডক্টর মালিকা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ) থেকে বি.কম. পাস করেন।

সালমান শাহ ১২ আগস্ট ১৯৯২ তার খালার বান্ধবীর মেয়ে সামিরা হককে বিয়ে করেন। সামিরা হক ছিলেন একজন বিউটি পার্লার ব্যবসায়ী। তিনি সালমানের ২টি চলচ্চিত্রে তার পোশাক পরিকল্পনাকারী হিসেবে কাজ করেন। সালমান শাহ ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান। ঢাকার ইস্কাটনে তার নিজ বাস ভবনে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় তার দেহ উদ্ধার করা হয়। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হলেও তার মৃত্যু নিয়ে রহস্য থেকে যায়।

অনেকেই সালমান শাহর মৃত্যুর জন্য তার স্ত্রী সামিরার দিকে অভিযোগের আঙুল তোলেন এমনকি পরবর্তীকালে সালমানের পরিবারের পক্ষ থেকে স্ত্রী সামিরা ও আরো কয়েকজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয় কিন্তু পরে এই মামলার আর কোন অগ্রগতি হয়নি ফলে সালমানের মৃত্যু নিয়ে রহস্য আর উদঘাটিত হয়নি। ২০২০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি পুলিশের তদন্ত বিভাগ জানায় যে সালমান শাহ আত্মহত্যাই করেছিলেন।

সালমান শাহ মানে দর্শকের ভালোবাসা আর চলচ্চিত্রের জন্য আশীর্বাদ। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৬ শুধুই সাফল্যের পথে হেঁটে যাওয়া। চলচ্চিত্রের আকাশে ধূমকেতুর মতো এখনো জ্বল জ্বল করে জ্বলছেন চির অমর নায়ক সালমান শাহ।

Previous articleমনির খানের ‘বুলবুলির মা’
Next articleমনোজ-প্রভার ‘টেডি বিয়ার’

Leave a Reply