রুহুল আমিন ভূঁইয়া: দেশীয় শোবিজে বিচ্ছেদের হিড়িক পড়েছে। দিন দিন বাড়ছে এর সংখ্যা। বিয়ের মাস-বছর না পেরুতেই দ্বন্দ্ব, কলহ শেষতক বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তে পৌঁছে যাচ্ছেন এ অঙ্গনের অনেকেই। অথচ এদের অনেকের মধ্যেই বিয়ের আগে থাকে দীর্ঘদিনের গভীর প্রেম ও বন্ধুত্ব। বিয়ের পরই সেই সম্পর্কে ফাটল শুরু হয়। দুজনের মধ্যে তৈরি হয় দূরত্বের দেয়াল। সাম্প্রতিক সময়ে শোবিজ অঙ্গনের এসব দাম্পত্য কলহ ও বিচ্ছেদ পাঠকদের জন্য প্রায় নিয়মিতই রসালো সংবাদ হয়ে ধরা দিচ্ছে। এই বিচ্ছেদে অনেক তারকাই তীব্র ভাবে নিন্দিত হচ্ছেন। অনেকেই হারাচ্ছেন স্বপ্নের ক্যারিয়ার। যার ফলে ইমেজ সংকটে পড়েছে পুরো শোবিজ অঙ্গন। বাংলাদেশের শোবিজ জগতে জুটি বেধেছেন অনেক তারকারাই। তবে কেউ সফল হয়েছেন আবার কেউবা হারিয়ে গেছেন বিচ্ছেদের ভিড়ে। যেমন তাহসান মিথিলা জুটি সবাই বাংলাদেশের আইডল মনে করতেন। কিন্তু ভেঙ্গে যায় তাদেরও সংসার। বাংলা চলচ্চিত্র যাঁদের কাছে ঋণী, এখন নিভৃত জীবন নিয়ে ভাল আছেন তাঁরা। জমজমাট পাঠকদের জন্য বাংলাদেশের কয়েকজন সেরা তারকা ও সফল জুটি নিয়ে এ আয়োজন।

আলী যাকের-সারা যাকের: মঞ্চের আলোয় আলোকিত দুজন। বন্ধুত্ব হতে সময় লাগেনি। চুপিসারে একে অপরকে গিফট করতেন নিজের প্রিয় জিনিসটা। ইংরেজিতে বেশ কৌশলী চিঠি লিখতেন আলী যাকের। ঝরঝরা সুন্দর হাতের লেখায় মুগ্ধ হতেন সারা। জবাবটাও দিতেন মজা করে। মনের অজান্তে দিনে দিনে বন্ধুত্বের সুতায় টান লাগে, বাড়তি কিছু চাচ্ছিলেন দুজনই। আজ কালকার ছেলে-মেয়েদের মতো তখন প্রেম করার অত সুযোগ আর ছিল কই! অগত্যা বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যান আলী যাকের। ব্যস, অতঃপর তাঁহারা সুখে-শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিলেন।

নাঈম-শাবনাজ: তখন ১৯৯০ সাল। প্রয়াত বরেণ্য চলচ্চিত্র নির্মাতা এহতেশাম তাঁর নতুন চলচ্চিত্র ‘চাঁদনী’র জন্য দুজন নতুন মুখ বাছাই করেন। সেই দুজনই হলো নবাব পরিবারের ছেলে নাঈম আর বিক্রমপুরের মেয়ে শাবনাজ। প্রথম ছবিতেই জুটি হিসেবে ব্যাপক সাড়া ফেলেন নাঈম-শাবনাজ। চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে গিয়েই ঘনিষ্ঠ হন নাঈম-শাবনাজ। শুরু থেকেই তাদের প্রেম কাহিনী মিডিয়ায় আসে। অবশেষে সব জল্পনা-কল্পনা ভেঙে ১৯৯৬ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন এ জুটি। চলচ্চিত্র তারকাদের জীবনে স্বাভাবিক যে কালিমার রেশ থাকে, তার কোন ছিটেফোঁটাও নেই তাদের ব্যক্তি জীবনে। বিয়ের পর দীর্ঘ প্রায় দেড় যুগেরও বেশি সময় পেরিয়ে আসা এ জুটির সময় কাটে দুই মেয়ে, সংসার আর ব্যবসা নিয়ে।

তৌকীর আহমেদ-বিপাশা: এক সময়ের জনপ্রিয় টেলিভিশন জুটি তৌকীর আহমেদ এবং বিপাশা হায়াত। তৌকীর আহমেদ মুলত নাটক নির্মাণ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এবং বিপাশা হায়াত ব্যস্ত নাটক লেখা ও ছবি আকাঁ নিয়া। জনপ্রিয় নাট্যদম্পতি জুটি তৌকীর আহমেদ ও বিপাশা হায়াত নাট্যজগতে দুজনই অসাধারণ, ব্যক্তি জীবনে তারা সবার জন্য রোল মডেল। এক সময়ের টিভি নাটকের তুমুল জনপ্রিয় জুটি তৌকীর-বিপাশা। এখন তারা বাস্তবেও জুটি ও সুখী দম্পতি। তৌকীর আহমেদ বর্তমানে অভিনয় এবং পরিচালনা নিয়ে ব্যস্ত। আর বিপাশা অভিনয় ও আকাঁ আঁকির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। নিয়মিত নাটক লিখছেন। সমীকরণটা ছিল এ রকম- শমী-তৌকির ও জাহিদ-বিপাশা। পর্দা ও পর্দার বাইরে এ দুই জুটি নিয়েই চর্চা হতো বেশি। কিন্তু হঠাৎ করেই ঘোষণা এলো, তৌকীর-বিপাশা বিয়ে করতে যাচ্ছেন। কারণ হিসেবে জানা গেল ভালোবাসার কথা। এখনো সেই ভালোবাসার ঘোরেই আছেন দুজন।

জাহিদ হাসান-মৌ: জাহিদ হাসান তখন টেলিভিশনের এক নম্বর অভিনেতা। আর মৌ দেশ সেরা মডেল। এ দুইয়ের সমন্বয়ে হানিফ সংকেত ‘ইত্যাদি’তে হাজির করেন দুজনকে। আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে গানে দুজন জমিয়ে পারফর্ম করলেন। আর শুটিংয়ের সময় দুজনের মনেই নাকি তখন ‘ইশক’ নামক ব্যাধি সংক্রমিত হয়েছিল। পত্রিকার এমন সংবাদে দুজনই ‘নাহ্’ বলে এড়িয়ে গেলেন। পরে অবশ্য স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন। জাহিদ হাসি মুখে তখন বলেছিলেন, বিশ্বাস করেন যখন এ নিউজ গুলো ছাপা হয়, তখন আমাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কই ছিল না। বরং এসব নিউজ আসার পর আমি ভেবেছি, আমাদের একটা রিলেশন হলে কেমন হয়! কারণ তখন সারাক্ষণ এ ব্যাপারটা মাথায় থাকত। যা হোক, সম্পর্কটা হয়েই গেল। কিন্তু মৌর মা কিছুতেই জাহিদকে নিজের জামাই হিসেবে মানতে পারেননি। অনেক যুদ্ধ করে মৌকে ঘরে তোলেন জাহিদ। আর এখন তারা দাম্পত্য জীবনেও জুটিবদ্ধ হয়ে আছেন।

মোশাররফ করিম-রোবেনা রেজা জুঁই: মোশাররফ করিম বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা। তিনি বাংলাদেশের অভিনয় জগতের এক জনপ্রিয় মুখ। তেমনই এক জনপ্রিয় নাম রোবেনা রেজা জুঁই। পর্দায় এবং পর্দার বাইরের এই সফল জুটি ক্যামেরার সামনেও জুটি বেঁধে কাজ করেছেন। মোশাররফ করিম এর সাথে জুই এর প্রথম পরিচয় হয় ২০০০ সালে। মোশাররফ করিম ২০০৪ সালে বিয়ে করেন রোবেনা রেজা জুঁই কে। সে সময় মোশাররফ করিম জুইদের বাসার সামনের গলির একটি কোচিং সেন্টারে পড়াতো। সেই কোচিং সেন্টারেই কোচিং করতেন জুঁই। সেখান থেকেই দুজনের প্রাথমিক পরিচয়, প্রেম ও বিয়ে। তাদের একমাত্র সন্তান রায়ান করিম। বর্তমানে সুখে শান্তিতে একই ছাদের নিচে বসবাস করছেন তারা।

ফারুকী-তিশা: ঢালিউডের সবচেয়ে জনপ্রিয় দম্পতির নাম তিশা-ফারুকী। যাদের একজন হলেন নামকরা অভিনেত্রী এবং অপরজন বিখ্যাত পরিচালক। ঢালিউডের এই জুটি অবশ্য প্রেম করেই বিয়ের পিড়িতে বসেছিলেন। তাদের দুজনের মধ্যে প্রেমটা মূলত শুরু হয় তিশার একটি বিজ্ঞাপন দেখার পর থেকে। এরপর ফারুকী পরিচালিত ‘পারাপার’ টেলিফিল্মে কাজ করতে গিয়ে চেনা জানা শুরু দু’জনার। ‘সিক্সটি নাইন’ নাটক করতে গিয়ে ভালো বন্ধুত্ব তৈরি হয়। বন্ধুত্ব থেকে প্রেম। দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক পরিণতি পায় বিয়েতে। ২০১৩ সালের ১৬ জুলাই ফারুকী ও তিশা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

ওমর সানী-মৌসুমী: সুখময় দাম্পত্য জীবনের দুই যুগেরও বেশি সময় পার করেছেন দেশীয় চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় তারকা দম্পতি ওমর সানী ও মৌসুমী। তাদের বিবাহিত জীবনের ২৫ বছর পূর্ণ হয়েছে। তৎকালীন হোটেল শেরাটনে (বর্তমান রূপসী বাংলা) অত্যন্ত জাঁকজমকের সঙ্গে এই বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। পরিচয়টা হয়েছিল ‘দোলা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে গিয়ে। সেই সময়ে তাদের মধ্যে ভালো লাগাটা তৈরি হয়। এরপরই তাদের সুখের ট্রেনের যাত্রা যা আজও অমলিন। দীর্ঘ জীবনে তারা দুজনই চলচ্চিত্র শিল্পকে সেবা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। বলেছেন, যত দিন বাঁচবেন, ততদিন শিল্পের সেবা করে যাবেন।

অনন্ত জলিল-বর্ষা: চলচ্চিত্র অঙ্গনের আলোচিত নাম অনন্ত জলিল। ব্যবসায়ী হওয়া সত্ত্বেও হঠাৎ করেই চলচ্চিত্র অঙ্গনে প্রবেশ করেন তিনি। আর বলার অপেক্ষা রাখে না যে এই তারকা চলচ্চিত্র অঙ্গনে প্রবেশের সাথে সাথে যুগান্তকারী দৃষ্টান্ত রেখেছেন। তিনি একমাত্র তারকা যে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে অন্ধকার সময় থেকে আলোর ভুবনে ফিরিয়ে এনেছেন। বাংলা চলচ্চিত্রের বর্তমান সময়ের বহু আলোচিত দুই মুখ অনন্ত ওবর্ষা। বাস্তব জীবনের স্বামী-স্ত্রী। এ জুটি রূপালী পর্দায় নায়ক নায়িকা সেজে দর্শকদের উপহার দিয়েছেন একাধিক ছবি।

Previous articleমা হারালেন ডন
Next articleবগুড়ায় চালু হচ্ছে নতুন সিনেপ্লেক্স

Leave a Reply