আহমেদ তেপান্তর: গত ২৫ আগস্ট একনেক বৈঠকে সিনেমা হল বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘বিশেষ তহবিল’ গঠনের নির্দেশনা পেয়েছে তথ্যমন্ত্রণালয়। তথ্যমন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্রটি আরও জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাপত্র কয়েকদিন আগেই বাংলাদেশ ব্যাংকে পৌঁছেছে। নির্দেশনা দ্রুত বাস্তবায়ন করতে তথ্যমন্ত্রণালয়ের অনুকূলেও একটি নির্দেশনা এসেছে। নির্দেশনা অনুযায়ী তথ্যমন্ত্রণালয় ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছে এবং প্রদর্শক সমিতির নেতৃবিন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

এ ব্যাপারে প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস বলেন, আমরা এখনও নির্দেশনাপত্রের কিছু অবগত নই, তবে মন্ত্রণালয়ের ঊর্দ্ধতন এক কর্মকর্তা সিনেমা হলের বিদ্যমান অবস্থা এবং নতুন সিনেপ্লেক্স নিয়ে প্রাক্বলিত একটি বাজেট আমাদের দিতে বলেছেন। সেটি নিয়ে বিশ্লেষণ করবে তথ্যমন্ত্রণালয়।

তিনি আরও বলেন, গত ২৮ জুন ব্যক্তিগতভাবে তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাকে প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরি। একই সঙ্গে শিল্পের সুবিধাবঞ্চিত এ খাতে বিদ্যুতের প্রসঙ্গ নিয়েও আলোচনা করি। তিনি বেশ মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং পরবর্তী করণীয় নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন। সেই আলোকেই তাকে মাধ্যম করে গত ৬ জুলাই প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি সিনেমা হল বাঁচাতে ৩৫০ কোটি টাকার একটি পুনর্ব্যবহারযোগ্য তহবিল বরাদ্দে আবেদনপত্র দিই। সেই আলোকে তথ্যমন্ত্রণালয় প্রাথমিকভাবে সচল ও বন্ধ সিনেমা হলগুলোকে চালু করতে কি পরিমাণ অর্থ কোন কোন খাতে লাগবে তার একটা প্রাক্বলিত হিসাব দিতে বলেছেন। এছাড়া নতুন সিনেপ্লেক্স করতে সম্ভাব্য ব্যয় কি পরিমাণ হবে সেটারও একটা বাজেট আমরা তৈরি করেছি। এগুলো নিয়ে দু-একদিনের মধ্যে আমরা তথ্যমন্ত্রণালয়ে যাবো।

এক প্রশ্নের জবাবে সুদীপ্ত কুমার দাস বলেন, তথ্যমন্ত্রণালয় আমাদের প্রাক্বলিত বাজেট যাচাইবাচাই করে বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠাবে। এরপর সেটি তথ্যমন্ত্রণালয় হয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাবে। কেবল তখনই প্রধানমন্ত্রী বিশেষ তহবিলের পরিমাণ কি হবে সেটা জানাবেন। ঋণ প্রকল্পের পরিমাণ নিয়ে এখন যেসব আওয়াজ হচ্ছে এর কোনো ভিত্তি নেই। সব ফাঁকা আওয়াজ এবং মনগড়া।

এ ব্যাপারে তথ্যমন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘বিশেষ তহবিল’ কত টাকার হবে এটা এখনও নির্ধারণ হয়নি। তবে ৫০০ কোটি টাকার হতে পারে। আমরা একটা হিসাব করছি প্রদর্শক সমিতি থেকে একটা হিসাব চেয়েছি। যাচাইবাছাই করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটা প্রস্তাবনা যাবে তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন ঠিক কত টাকা হলে এবং কোন উপায়ে খরচ হলে কার্যকর একটা সুফল সবাই পাবে। আর একটা কথা হচ্ছে এই তহবিল কিন্তু সিনেমা হল খাতকে উন্নয়ন করতে। এখানে অন্যখাত গুলিয়ে ফেলা যাবে না।

উল্লেখ, সিনেমার দুর্দশার কারণে দেশের বহু হল বন্ধ হয়ে গেছে। বন্ধ সিনেমা হলগুলোকে কার্যক্রমে ফেরাতে উদ্যোগ নিতে হলের মালিকদের জন্য সম্প্রতি একনেক বৈঠকে বিশেষ তহবিল গঠনে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রদানমন্ত্রী। ওই সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিনেমা হল মালিকরা কেউ আসে না, কেউ ভাড়া দিয়ে গেছে। আবার কেউ বিক্রি করে দিয়েছে। কেউ সিনেমা হল ভেঙে বহুতল ভবনও করছে। হল মালিকরা যদি সমঝোতা করতে চায়, চালাতে চায়, তা হলে একটা বিশেষ তহবিল করে তাদের আমরা সহযোগিতা করব।

Previous articleসোহাগের রিমান্ড চেয়েছে সিআইডি
Next articleফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি বাঁচাতে নুসরাতের আর্জি

Leave a Reply