সারা বিশ্ব এখন মানুষের হাতের মুঠোয়। প্রযুক্তি মানুষকে সব কিছু সহজ করে দিয়েছে। যার ফলে এক শ্রেণি এই প্রযুক্তির অপব্যবহার করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল ইন্টারনেটের অন্যতম মাধ্যম ইউটিউব। বর্তমানে সবার হাতে হাতে স্মার্ট ফোন। ডিজিটাল রোগে আক্রান্ত অনেকেই। জনে জনে চ্যানেল। যখন যেখানে খুশি সত্য-মিথ্যা যাচাই না করেই যা ইচ্ছে তাই আপলোড করা যায়। যার শিরোনাম থাকে উদ্ভট। নেই কোনো নিয়ন্ত্রণ, নেই জবাবদিহিতা। যার ফলে অনেকেরই সম্মানহানি হয়। সমাজে তৈরি হয় বিশৃঙ্খলা। ইউটিউবে সরকার বিরোধীও অনেকে অপপ্রচার করা হচ্ছে।

গত ১২ ডিসেম্বর ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস। দিবসের যথার্থ শ্লোগান ছিল ‘সত্য মিথ্যা যাচাই আগে, ইন্টারনেট শেয়ার পরে’। এটাই হওয়া উচিত তবে বাস্তবে হচ্ছেটা কি? যাচাই-বাছাই না করেই উদ্ভট শিরোনাম জুরে আপলোড করা হচ্ছে। যার শিরোনামের সাথে কনটেন্টের কোন মিল নেই। সম্প্রতি বিএফডিসির দিকে তাকালে এর প্রমাণ পাওয়া যাবে। চিত্রনায়ক ও শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান সম্পর্কে বিভিন্ন সময় মিথ্যা মানহানিকর ফেসবুক পোস্ট ও ভিডিও প্রচার করার অপরাধে কিছু দিন আগে ডিজিটাল নিরপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হয় চলচ্চিত্র অভিনেতা জামাল পাটোয়ারী। সচেতন জনগনরা মনে করছেন জামালদের মতো এ রকম অসংখ্য লোক আছে তাদেরও আইনের আশ্রয় আনা দরকার। তাহলে কিছুটা হলেও এর নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। না হলে সমাজের জন্য খু্বই ভয়াবহ হবে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সংগঠনের মধ্যে এফডিসিতে ব্যক্তিগত কিছু ঝামেলা তৈরি হলে সেটি ইউটিউবের মাধ্যমে প্রকাশ্যে আসায় চলচ্চিত্রর ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে বলে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট একাধিক লোক জানিয়েছেন। অভিনেত্রী কবরী, অভিনেতা শিবা সানু, আনিসুর রহমান মিলন সহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট অনেকেই বলছেন ব্যক্তিগত বিষয় কেন ইউটিউবের মাধ্যমে বাইরের লোকজন কেন জানবে? নিজেদের ব্যাপার নিজেদের মধ্যেই মিমাংসা করতে হবে। ইউটিউবের জন্য কোনো অফিস লাগে না, খরচ লাগে না, কর্মচারী লাগে না। ইনভেস্টমেন্ট ছাড়াই চ্যানেল মালিক। এসব চ্যানেলের কারণে হ্রাস পাচ্ছে টিভির দর্শক। আবার এক শ্রেণির মানুষ এসব ভিত্তিহীন তথ্য বিশ্বাস করছেন। যার ফলে বিপাকে পড়েন সম্মানী কিছু লোক।

ক্যামেরা, কথা ও ইউটিউব চ্যানেল সহজলভ্য হয়ে যাওয়ায় যার যেভাবে খুশি নিজ গতিতে কথা বলেই যাচ্ছেন। কথা যাই হোক তাদের টার্গেট ভিউয়ার্স। আর এসব কল্পকাহিনি অনেকেই যাচাই-বাছাই না করেই নেট দুনিয়ায় লাইক শেয়ার করে অন্যের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে। যা অন্যের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। ইন্টারনেটের কারণে হারিয়ে গেছে খেলার মাঠ। তরুণদের একমাত্র খোরাক ইন্টারনেট। যার ফলে কমে গেছে খেলার মাঠ, কমে যাচ্ছে খেলাধুলার সুযোগও। মাঠের খেলাধুলা ছেড়ে বর্তমান তরুণ প্রজন্ম ঝুঁকেছে ইউটিউবের দিকে, ইন্টারনেটের দিকে। ফলে বিনোদনের ডিজিটালের মাধ্যমটি মানসিক ভাবে চাপে ফেলছে।

ইন্টারনেট নির্ভর বিনোদনকে আপনি কীভাবে দেখেন? এমন প্রশ্নের জবাবে শিল্পী সমিতির সভাপতি ও অভিনেতা মিশা সওদাগর বলেন, আমি এটাকে খারাপভাবে দেখি না৷ মাধ্যমে অনেক পরিবর্তন হয়েছে৷ ভবিষ্যতেও হয়ত আরো পরিবর্তন হবে৷ আর মাধ্যম পরিবর্তন হয়ে যেটা এসেছে, তার অনেকগুলো ভালো দিক যেমন আছে, তেমনই খারাপ দিকও আছে৷ যেমন দেখুন, আগেও টিভি ছিল৷ এখনও আছে৷ কিন্তু আগে একটা ‘কনটেন্ট’ অনেকখানি ‘এডিট’ হয়ে যেত, এখন যেটা ‘আনএডিটেড’ অবস্থায় চলে যাচ্ছে, বিশেষ করে ইন্টারনেটে৷ অনেক চ্যানেলেই আমরা আজকাল দেখছি যে, যা ইচ্ছে তাই দেখাচ্ছে৷ আগে যেখানে খারাপ কনটেন্ট ঢুকে যাওয়াটা কঠিন ছিল, এখন সেখানে সেটা হরহামেশাই হচ্ছে৷ এতে যেটা হয়েছে, আগে পাঁচজন মানুষ যে খারাপ কনটেন্টটা দেখত, এখন সেটা ৫০ জন মানুষ দেখছে৷ ইন্টারনেটে অবশ্য আজও অনেক ভালো কিছু দেখার আছে৷ কিন্তু সমস্যা হলো, খারাপের মাত্রাটা এখন সহজলভ্য হয়ে গেছে৷ মিডিয়া ব্যক্তিত্বরা মনে করছেন ইউটিউবের জন্য নীতিমালা সময়ের দাবি। না হলে এভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে অনেক বড় ক্ষতি হবে।

Previous articleটেলিফিল্ম ‘জল কাদায়’
Next articleপ্রথমবার মিলনের সাথে জুটি হলেন রোমানা নীড়

Leave a Reply