বাউল সম্রাট শাহ আবদুল করিমের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার স্মরণে প্রথমবারের মতো বিদেশের মাটিতে ‘শাহ আবদুল করিম স্মরণ উৎসব’ আয়োজিত হতে যাচ্ছে। আজ (১২ সেপ্টেম্বর) লন্ডনে আয়োজনটি অনুষ্ঠিত হবে।

এই আয়োজনে যুক্ত হচ্ছেন সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার উজানধল গ্রামের শাহ আবদুল করিমের উত্তরাধিকার বাউল শিল্পীরা। এছাড়াও কলকাতা থেকে যুক্ত হচ্ছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় লোক গানের দল ও আবদুল করিমের ভাবশিষ্য কালিকাপ্রসাদের দল দোহার।

অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনায় থাকছেন থিয়েটারকর্মী ও টিভিথ্রি’র জনপ্রিয় উপস্থাপক জয় দেব দুলু। সঙ্গে আরও থাকছেন উপস্থাপক, গীতিকার ও কবি জাহাঙ্গির রানা।

শাহ আবদুল করিম স্মরণ উৎসব-এ গাইবে কলকাতার লোকব্যান্ড ‘দোহার’ শাহ আবদুল করিম স্মরণ উৎসবের সভাপতি শফিকুল ইসলাম জানান, আমরা এই প্রথমবারের মতো লন্ডনে শাহ আবদুল করিম স্মরণ উৎসব আয়োজন করতে যাচ্ছি। এপার বাংলা, ওপার বাংলা এবং যুক্তরাজ্যের শিল্পীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে এই অনুষ্ঠানটিকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা থাকবে আমাদের।

থিয়েটারকর্মী ও টিভিথ্রি’র উপস্থাপক জয় দেব দুলু জানান, বাউল সম্রাটের স্মরণে বিদেশের মাটিতে প্রথমবারের মতো আমরা যে অনুষ্ঠানটি আয়োজন করতে যাচ্ছি, আশা করবো আপনারা সবাই এর সঙ্গে থাকবেন।

উপস্থাপক, গীতিকার ও কবি জাহাঙ্গির রানা জানান, বাংলাদেশ ও পশ্চিম বাংলার পরে সবচেয়ে বেশি বাঙালির বসবাস এই যুক্তরাজ্যে। এখানকার মানুষেরা নানানভাবে সম্পৃক্ত আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে। এই কারণে লন্ডনে এই উৎসবটি হওয়া খুব জরুরি।

এ অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার টিভিথ্রি বাংলার চেয়ারম্যান নাশীত রহমান জানান, বিদেশের মাটিতে শাহ আবদুল করিমের স্মরণে প্রথমবারের মতো যে উৎসবটির আয়োজন হয়েছে, সেটির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পেরে আমরা গর্বিত।

এ অনুষ্ঠান সম্পর্কে শাহ আবদুল করিমের ছেলে শাহ নূর জালাল বলেন, বাউল সম্রাটের স্মরণ উৎসবে সুনামগঞ্জ থেকে আমি ও শিষ্যরা উপস্থিত থাকবেন। এই অনুষ্ঠানের আয়োজকদেরে অসংখ্য অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

কলকাতার বিখ্যাত লোকব্যান্ড ‘দোহার’র সদস্য রাজিব বলেন, এই অনুষ্ঠানে আবদুল করিমের ভাবশিষ্য দোহারের শুধু গানই থাকছে না, থাকবে আরও অনেক কথা।

আজ (১২ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাজ্য সময় বিকাল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলবে অনুষ্ঠানটির মিডিয়া পার্টনার টিভিথ্রি বাংলা।
শাহ আবদুল করিম বাংলাদেশের কিংবদন্তী সংগীতশিল্পী, সুরকার, গীতিকার ও সংগীত শিক্ষক, যিনি বাউল সংগীতকে অনন্য উচ্চাতায় নিয়ে গেছেন। বাংলা সংগীতে অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০০১ সালে তাকে একুশে পদক পুরস্কারে ভূষিত করে।

Previous articleইমরানের নতুন গানে মারিয়া নূনী
Next articleসাব্বির-পরশী’র ‘কাঁদে যখন’

Leave a Reply