অভিনেতা সুব্রত ও অভিনেত্রী দোয়েল দম্পতির মেয়ে দীঘির পুরো নাম প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। পাঁচ-ছয় বছরের ক্যারিয়ারে ৩৬টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছে সে। অধিকাংশ ছবিই ব্যবসা সফল। দীঘির অভিনয় সবার মন ছুয়ে যায়। ২০০৬ সালে ‘কাবুলিওয়ালা’, ২০১০ সালে ‘চাচ্চু আমার চাচ্চু’ এবং ২০১২ সালে ‘এক টাকার বউ’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য শিশুশিল্পী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পেয়েছে। দীর্ঘ আট বছরের বিরতি কাটিয়ে চলচ্চিত্রে নায়িকা হিসেবে কাজ শুরু করেছেন দীঘি। শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রে নায়িকা হিসেবে তাকে পর্দায় পাওয়া যাবে।

দীঘি থেকে রেনু হওয়ার গল্প জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অনেক আগে থেকেই রেনুর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি। শ্যাম বেনেগাল এর ছবিতে রেনু চরিত্রের জন্য নিবার্চিত হই সেই থেকে প্রস্তুতি শুরু। যার ফলে সমস্যা হয়নি। পড়াশোনা করেই নিজেকে তৈরি করছি। ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া’ ভাই দিয়ে শুরু। মোট পাঁচটি ছবি করতেছি। চলতি মাসেই ছবির কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছো। এটি শেষ হলেই দ্বিতীয় ছবির শূটিং শুরু হবে। বাকিগুলোর গল্প রেডি হচ্ছে।’

দীঘির নাটক ও ওয়েব সিরিজে কাজের আগ্রহ রয়েছে। তবে ছোটপর্দায় কিছুটা সময় লাগবে। তবে ভালো গল্প-চরিত্র হলে ওয়েব সিরিজে কাজ করতে আগ্রহী। তবে সিনেমাটি বুঝে ওয়েব সিরিজে কাজ করবেন। দীঘি সব ধরনের গল্পে কাজ করতে চান। দর্শক যেটা পছন্দ করবে তাতেই নিয়মিত হবেন। নিজেকে ভেঙ্গে চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে মেলে ধরতে চান। দর্শকের চাহিদা গুরুত্ব দিতে চান। দীঘি আশাবাদী তার অভিষেক ছবি সবাই গ্রহণ করবেন।

Previous articleকাজ করি মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য: শাকিব খান
Next articleচার পর্বের ধারাবাহিক ‘দুটি কুঁড়ি একটি পাতা’

Leave a Reply