সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে চিত্রনায়িকা মুনমুনের নাচের ভিডিও। টাঙ্গাইলের সখীপুরের পলাশতলী বাজার মসজিদের সামনে কুরুচিপূর্ণ এ নাচের কারণে সমালোচনার ঝড় উঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এদিকে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ করায় চিত্রনায়িকা মুনমুনের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন আদালত। মসজিদের পাশে কুরুচিপূর্ণ নাচের ঘটনায় এ নোটিশে দেয়া হয়। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) লিগ্যাল নোটিশটি পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মেহেদী হাসান। ওই লিগ্যাল নোটিশে তিন দিনের মধ্যে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে এই নায়িকাকে। অন্যথায় তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে নোটিশ পাঠানোর আগেই গতকাল ক্ষমা চেয়েছেন মুনমুন।

ভাইরাল হওয়া নাচের ভিডিও প্রসঙ্গে মুনমুন বলেন, ‘আমি ধর্মে বিশ্বাসী একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম। কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার জন্যে এটা করিনি। যতটুকুই হয়েছে, সেটি আসলে অনাকাঙ্ক্ষিত একটু ভুল। তাই আমি সবার কাছে অনুরোধ করবো এটা নিয়ে কোন ধর্মীয় গোষ্ঠীর মাঝে ধর্মীয় উন্মাদনা ছড়াবেন না প্লিজ। আমি দেশের জনপ্রিয় একজন চিত্রনায়িকা হিসেবে আপনাদের অনুরোধ করে বলছি প্লিজ এটাকে বিকৃত ভাবে প্রচার করবেন না। সবশেষে বলবো এটা দেখে যদি কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে ন্যুনতম আঘাত লাগে, এর জন্যে আমি আন্তরিকভাবেই দুঃখিত। আশা করবো এটাকে নিছক একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল হিসেবে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’

তিনি বলেন, ‘নাচের ভিডিওতে সাইনবোর্ড যুক্ত যে ঘরটিকে মসজিদ বলা হচ্ছে, সেটি আসলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি মসজিদ। এটির প্রায় পুরোটাই বন্যায় ভেঙে গেছে। সামনের অংশে তাই সাইনবোর্ড লাগিয়ে রাখা হয়েছে। ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর আমি সখীপুর পৌরসভার কাউন্সিলর মিল্টন সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি। উনিই আমাকে ওই দিন দাওয়াত করে নৌভ্রমণে নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, ওটি এখন একটি পরিত্যাক্ত মসজিদ। ওখানে নামাজের জামাত কিম্বা অন্য ধরনের ধর্মীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনা হয় না। বন্যায় মসজিদটি ভেঙে যাওয়ায় অন্যত্র মসজিদের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হচ্ছে।’

মুনমুন বলেন, ‘আপনারা নাচের ভিডিওটি দেখে থাকলে খেয়াল করবেন আমি নাচার সময় আমার পেছন দিকে সাইনবোর্ড ছিল। আমি যদি নাচের ওই সাইনবোর্ড দেখতাম তাহলে একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান হিসেবে আমি নাচ করতাম না।’

মুনমুনের কাছে প্রশ্ন ছিল নৌ ভ্রমণে গিয়ে নৌকায় না নেচে ওখানে নাচার কারণ কী? তিনি বলেন, ‘আমরা কয়েক ঘণ্টা নৌকা নিয়ে নদীতে ভ্রমণ করার পর আয়োজকরা ওখানে নৌকা থামিয়ে সবাইকে নিয়ে ওখানে যান। ওখানে গিয়ে দেখলাম আমাদের সবার খাওয়ার আয়োজন করা হয়েছে সেখানে। খাওয়া দাওয়ার পর মিল্টন ভাইসহ ওখানকার গণমান্য লোকজন আমাকে একটু নাচ করার অনুরোধ করেন। সবার অনুরোধে আমি হালকা নাচ করি।’

Previous articleমুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে শাপলা থেকে বাদ পড়ছেন ঝন্টু
Next article১০ বছর জেল হতে পারে রিয়ার!

Leave a Reply