আজ সেই ৬ সেপ্টেম্বর, এমনি দিনে বিকাল বেলা ঘরে বসে শুনতে পেলাম সালমান (ইমন) আর পৃথিবীতে নেই। কথা শুনে চমকে উঠলাম। বিশ্বাস হচ্ছিলো না। পরে বেশ কিছু লোকের সাথে যোগাযোগ করে মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত হলাম। ভাবলাম রাতের বেলা মরদেহ প্রাণের এফডিসিতে আসবে না। কাল সকালে এফডিসি গেলে মরদেহ দেখতে পাবো। কিন্তু শেষ দেখা আর আমার হলো না। এফডিসিতে মরদেহ এসেছিল ঠিকই কিন্তু যেদিন সালমান এই পৃথিবী থেকে চলে যায় সেদিন সন্ধ্যার পর পর। সালমান কত বড় শিল্পী ছিলেন তা এত বছর পর এসেও বোঝা যাচ্ছে।

সালমানের সাথে আমার একটি সিনেমা করার সুযোগ হয়েছিল। নাম ‘স্বপ্নের ঠিকানা’। তখন ওমর সানী, রাজ্জাক ভাই, আলমগীর, সোহেল রানা, জসিম, শাবানা, কবরী, ববিতা তাদের চলচ্চিত্র ছাড়া প্রেক্ষাগৃহের মালিকরা ঈদে কেউ সিনেমা নিতে চাইতো না। আমাদের ছবির প্রযোজক ঈদে সালমান অভিনীত ছবিটি মুক্তির দেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়। তখন ছবিটি মুক্তি দিতে প্রযোজক অনেক বাঁধার সম্মুখীন হয়। প্রযোজক তখন বলেছিল, পৃথিবীর সর্বশেষ ছবি যদি মুক্তি পায় তাহলে তিনি তার চলচ্চিত্রটি মুক্তি দিবেন। সেই মেতাবেক পবিত্র ঈদে ছবিটি মুক্তি পায়।

অন্য অন্য সিনেমার সাথে ছবিটি ব্যাপাক আলোড়ন সৃষ্টি করে। সালমানের ছবিটি যা আজও প্রসঙ্গক্রমে উদাহরণ হিসেবে আসে। প্রায়ত নায়ক জসিম একদিন বলেছিলেন সালমান শাহ যে অবস্থানে আছেন তাতে করে সালমান শাহ এক পাল্লায় আর অন্য পাল্লায় সমস্ত শিল্পীরা যদি বসে তাহলে সালমান শাহর পাল্লা বেশি ভাড়ী হবে। সত্যি সত্যি তাই হয়েছিল। সালমানের তুলনা শুধুই সালমান। তার মৃত্যুর পর অনেক মেয়েই আত্নহত্যা করেছিলো। বিভিন্ন জায়গায় সালমানের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে মানববন্ধন হয়েছিল। সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে মানববন্ধনে দেশের জনগনকে জানাতে চেয়েছিল, এটি কি হত্যা? নাকি আত্নহত্যা?

একবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে খেলা হয়েছিল শিল্পী ও কলাকুশলীদের নিয়ে। সে সময় মৌসুমী, শাবনাজ সহ আরও অনেক শিল্পী উপস্থিত ছিল। সঙ্গে সালমান শাহও ছিলো। মাঠ ভর্তি দর্শক। তখন সালমান ও মৌসুমী অভিনীত সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ মুক্তি পায়। ছবিতে সালমান ও মৌসুমীর অভিনয় সমাদৃত হয়। সালমান-মৌসুমী মাঠে প্রবেশ করার পরপর দর্শক খেলা ছেড়ে চিৎকার শুরু করে। তখন বোঝা গিয়েছিল সালমানের জনপ্রিয়তা কত। এত বছর পরও সালমানের এক ভক্ত রাশেদ খান ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ নামের একটি রিসোর্ট করেছেন নিজের জায়গায়। যেখানে সালমানের একটি ভাস্কর্যও তৈরি করেছেন।

সালমানের সাথে কাজ করতে গিয়ে দেখেছি সালমান ভীষণ আবেগপ্রবণ। দৃশ্য চিত্রায়ণ করার সময় কেন এই শটটি নিচ্ছি তার আগের কোন শট তারপর কোন শট সব শুনে শট দিতে তৈরি হতেন। এই হলো সালমান। সালমান নিজে ছবিটি দেখার পর অনেক পরিচালকের সামনে আমাকে বলেছিল মামা এ রকম চলচ্চিত্র নির্মাণ করুন। আমি বিনা সিডিউলে আপনার ছবি শেষ করে দেব। কিন্তু কপাল মন্দ। সালমানকে নিয়ে আর চলচ্চিত্র তৈরি হলো না। তার আগেই সালমান না ফেরার দেশে চলে যান। সালমান যেখানেই থাকুক, ঈশ্বর যেন তাকে শান্তিতে রাখেন।

লেখক: শিল্পী চক্রবর্তী, চলচ্চিত্র পরিচালক।

Previous articleঅর্থাভাবে সালমান শাহর সহচর মতি, পাশে দাঁড়ালেন বিপ্লব
Next articleচন্দ্রমুখী হচ্ছেন রাইমা সেন

Leave a Reply