অভি মঈনুদ্দীন, সিলেট থেকে ফিরে: লকডাউনের দিনগুলোতে অধিকাংশ সময়ই কেটেছে আমার পূণ্যভূমি সিলেটে। যে পূণ্যভূমির মাটিতেই শুয়ে আছেন বাংলাদেশের সিনেমার রাজপুত্র অমর নায়ক সালমান শাহ। সালমানের মৃত্যুবার্ষিকী এলেই যেন বিশেষ শহরের দাড়িয়া পাড়ার নানার বাসাতে সালমান ভক্তদের আসা যাওয়াটা যেন একটু একটু করে বাড়তেই থাকে। গেলো ৪ সেপ্টেম্বর বিকেলে সেই বাসাতে দশমবারের মতো যাবার সুযোগ হয় আমার। যেহেতু আমার গ্রামের বাড়ি সিলেটে, তাই সেখানে যাওয়া আসা আমার প্রায়শই হয়। আমার বাসা সুবিধ বাজারে হওয়াতে দাড়িয়াপাড়ায় যেতে খুব বেশি সময়ও লাগে না। ৪ সেপ্টেম্বর বিকেলে সালমান শাহ’র নানার বাসায় গিয়ে দেখা যায় গেট’র সামনে দাঁড়িয়েই কয়েকজন ছবি তুলছেন। কারণ এই বাসাতেই অর্থাৎ এই ‘সালমান শাহ হাউজ’-এ কেটেছে সালমানের ছোটবেলা। দূরন্ত সময়টা তিনি সেখানেই কাটিয়েছেন। জানালেন তার মামা কুমকুম।

বাসার সামনেই সালমান শাহ’র বেশ কয়েকজনের ভীড়ের মধ্যে থেকে আমিই জানতে চাইলাম তাদের সম্পর্কে, কে কোথা থেকে এসেছেন। তার ছোটবেলা কেটেছে টাঙ্গাইলের মধুপুরে। সেখানে শুটিং হয়েছিলো প্রয়াত শিবলী সাদিক পরিচালিত ‘আনন্দ অশ্রু’ সিনেমার। সালটা ১৯৯৫। বললেন মধুপুরের সন্তান শাকিল আহমেদ প্রিন্স। মধুপুরের কাকরাইদের বিএডিসি ফার্মেই মূলত শুটিং হয়েছিলো।

প্রিন্স বলেন, ‘যেহেতু আমার নানা নূরুল ইসলাম রাজ এই সিনেমার প্রযোজক ছিলেন, তাই আমার প্রিয় নায়ক সালমান শাহকে কাছে থেকে দেখার সুযোগ হয়েছিলো। সেই সময় কাছে দেখার সুযোগ হয়েছিলো শাবনূর, ডলি জহুর, হুমায়ূন ফরীদি, নানা শাহ’সহ আরো অনেককে। আমার খুউব মনে পড়ে সেই সময় ক্রিকেট খেলা বিএডিসি ফার্মের বাংলোতে বসে সালমান শাহর সঙ্গে খেলা উপভোগ করার সুযোগ হয়েছিলো আমার। খুব মনে পড়ে আমার নানার একটি লাল এক্সেল হো-া ছিলো। সেটা সালমান শাহর খুউব প্রিয় ছিলো। সেই হো-া তিনি শুটিং-এর সময়ের ফাঁকে ফাঁকে চালাতেন। খুব মধুর ছিলো সেই সময়টা। এতো জনপ্রিয় একজন নায়ক ছিলেন তিনি, কিন্তু তারমধ্যে বাচ্চা সুলভ আচরনটাই মুগ্ধ করেছিলো আমাকে। তার অকাল প্রয়াণে সবাই যেমন কষ্ট পেয়েছিলেন, আমার কেন যেন মনে হতো আমিই বোধ হয় সবচেয়ে বেশি কষ্ট পেয়েছিলাম। কারণ তার সঙ্গে এতো কাছে এসে সময় কাটানোর সুযোগ হয়েছিলো আমার যে আমি সেটা আজও মানতে পারিনি যে তিনি নেই। তাই সিলেটে এসে তার স্মৃতিচিহ্নটা দেখতে এলাম। দোয়া করি আল্লাহ যেন তাকে বেহেস্ত নসীব করেন। মাঝে মাঝে মনে হয় ইস! তিনি যদি আবার ফিরে আসতেন তাহলে নিশ্চয়ই আমি তার সঙ্গে দেখা করতাম, আনন্দ অশ্রু সিনেমার সময়কালের স্মৃতিচারণ করতাম। নিশ্চয়ই তিনি আমাকে চিনতে পারতেন। কতো কিছুই আসলে ভাবি সালমান শাহকে নিয়ে।’

প্রিন্সের মতো আরও এমন অনেক ভক্ত আছেন যারা একবার সিলেটে যান তারা তাদের প্রিয় নায়কের কবরে যান, কবর জিয়ারত করেন। আবার প্রিয় নায়কের নানার বাড়িও ঘুরে যান। বাংলাদেশের সিনেমার ইতিহাস সৃষ্টিকারী নায়ক সালমান শাহ। দেখতে দেখতে তার মৃত্যুর ২৪ বছর পেরিয়ে গেছে। মৃত্যুর ২৪ বছর পরও তিনি এখনো আকাশচুম্বী জনপ্রিয়। এখনো টিভি পর্দায় তার সিনেমা প্রচার হলে দর্শক আগ্রহ নিয়ে দেখেন। এখনো তার অভিনীত সিনেমার গান টিভিতে প্রচার হলে তা দর্শক এড়িয়ে যেতে পারেন না।

এমনও দেখা গেছে পাশাপাশি দুটি চ্যানেলের একটিতে নতুন কোন সিনেমা প্রচার হচ্ছে আবার অন্যটিতে সালমান শাহ’র সিনেমা প্রচার হচ্ছে। দর্শক যেন সালমান শাহ’র সিনেমা দেখার প্রতিই বেশি আগ্রহ প্রকাশ করেন। আবার শুধুমাত্র সালমান শাহ’র সিনেমার ক্ষেত্রেই এমন দেখা গেছে যে সিনেমা প্রচারের সময় নারী পুরুষ দর্শক শুধু সালমান শাহ’র পারফর্ম্যান্সই বেশি উপভোগ করেন। তার সঙ্গে কে আছেন তা কখনোই জরুরী কোন বিষয় নয় দর্শকের কাছে। মৃত্যুর এতো বছর পরও সালমান শুধুমাত্র তার দুর্দান্ত অভিনয় এবং ফ্যাশন-এ ভিন্নমাত্রা দিয়েই আজো দর্শকের হৃদয়ে গেঁথে আছেন।

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নায়িকা ববিতার সঙ্গে সালমান শাহ তিনটি সিনেমাতে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছিলেন। সিনেমাগুলো হচ্ছে বাদল খন্দকারের ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, দীলিপ সোমের ‘মহামিলন’, শিবলী সাদিকের ‘মায়ের অধিকার’ ও জাকির হোসেন রাজুর ‘জীবন সংসার’। দুটি সিনেমাতে সালমানের মায়ের ভূমিকায় এবং দুটি সিনেমায় সালমানের ভাবীর ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন ববিতা।

দীলিপ সোমের ‘মহামিলন’ সিনেমার শুটিং-এর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে ববিতা বলেন, ‘কক্সবাজারে এই সিনেমার শুটিং হয়েছিলো। একটি দৃশ্য ধারণ করা হচ্ছিলো পাহাড়ের উপর। আমার হাতে পিস্তল ছিলো। দৃশ্যটিতে শুটিং-এ অংশ নিয়েছিলাম আমি, রাজীব ভাই, শারমিন, সালমান শাহ, শাবনূর। সেই দৃশ্যটির ধারণের নানান সময়ে আমি শুটিং-এ আনা অন্য একটি চেয়ারে বসি। কারণ হোটেল থেকে আমার চেয়ারটি নিতে মনে ছিলো না। সালমান বিষয়টি খেয়াল করে এবং শুটিং-এ তার নেয়া চেয়ারটি আমাকে গিফট করে। আমি না করার পরও সালমান তার নিজের ব্যবহৃত চেয়ারটি তখনই আমাকে গিফট করে। সেই চেয়ারটি দীর্ঘদিন আমার কাছে সংরক্ষিত ছিলো। তারপর আবার যখন মোবাইল প্রথম বাজারে এলো। সেই সময় সাইজে মোবাইল অনেক বড় ছিলো। তো আমি সেই মোবাইল ব্যবহার করতে পারতাম না। সালমানই আমাকে একটি চিরকুটে মোবাইল ব্যবহার করার পদ্ধতি প্রথম শিখিয়ে দিয়েছিলো। যে কারণে পরবর্তীতে মোবাইল ব্যবহার করা আমার কাছে বেশ সহজ হয়ে গিয়েছিলো। তো সালমানের নিজের হাতের লেখা সেই চিরকুট’টি এখনো আমার কাছে বেশ যত্নে রাখা আছে। সেই চিরকুটের মাঝেই মাঝে মধ্যে আমাদের হারিয়ে যাওয়া সালমানকে খুঁজে বেড়াই। সালমান একটি কথা আমাকে প্রায়ই বলতো যে আপনি আমার আপন মা না হলেও আপনি আমার সুইট মা। মা ছাড়া সে আমাকে অন্য কিছুই আর ডাকতো না। সত্যিই এতোটা বছর পরও তাকে নিয়ে কথা বলতে গেলে আমি ভীষণ আবেগাপ্লুত হয়ে যাই।’

প্রশ্ন রাখি একজন অভিনেতা হিসেবে আপনি সালমানকে কীভাবে মূল্যায়ন করবেন? জবাবে ববিতা বলেন, ‘সত্যি বলতে কী সালমান শাহ অনেক বেশি ভালো অভিনেতা ছিলো। পোশাকে ফ্যাশনে নতুনত্ব তো সৃষ্টি করেছিলোই, সেটা সবাই দেখেছেন এবং তার ফ্যাশন এখনো অনেকেই ফলো করেন সাধারণ জীবনেও, শিল্পী জীবনেও। এটা অনেক বড় বিষয়। আর অভিনেতা হিসেবে সালমান নিজেই ছিলো অনন্য। এমনভাবে সংলাপ বলতো, এমনভাবে এক্সপ্রেশন দিতো এটা বুঝার উপায় থাকতো না যে অভিনয় নাকি সত্যি। পরিচালকের কাছ থেকে দৃশ্য বুঝে নিয়ে এমনভাবে সংলাপ বলতো যে তার সহশিল্পীর জন্যই সেই অভিনয়ের কাউন্টার দেয়া কঠিন হয়ে যেতো। সালমান সত্যিই অনেক বড় মাপের অভিনেতা ছিলো। তার মতো অভিনেতার অকাল প্রয়াণ সত্যিই আমাদের জন্য অনেক বেদনার, অনেক কষ্টের। এই কষ্টটা আমাদের বয়ে বেড়াতে হবে আরো দীর্ঘদিন। দোয়া করি আল্লাহ যেন তার আত্নায় শান্তি দেন, আল্লাহ যেন তাকে বেহেস্ত নসীব করেন, আমিন।’

সবার প্রিয় নায়ক সালমান শাহ’র জন্ম ১৯৭১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলায়। তার পিতার নাম কমর উদ্দিন চৌধুরী ও মাতা নীলা চৌধুরী। সালমানের দাদার বাড়ি সিলেট শহরের শেখঘাটে আর নানার বাড়ি দারিয়া পাড়ায়। যে বাড়ির নাম এখন ‘সালমান শাহ হাউস’। তার নানা পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’-এ অভিনয় করেছিলেন। অভিনয়ে সালমানও তাই সেই নানার কারণেই আসা। স্কুলে পড়ার সময় সালমান শাহ বন্ধুমহলে সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে বেশ পরিতি ছিলেন।

১৯৮৬ সালে ছায়ানট থেকে পল্লীগীতিতে পাস করেছিলেন তিনি। চলচ্চিত্রে আসার আগেই ১৯৯২ সালের ১২ আগস্ট বিয়ে করেন তিনি। স্ত্রী ছিলেন সামিরা হক। যদিও বা সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ সিনেমায় অভিনয় করেই আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা পান সালমান শাহ। কিন্তু তার আগেই তিনি নাটকে অভিনয় করেন। অভিনেত্রী সুইটি তার সঙ্গে সালমান শাহ’র একটি নাটকে অভিনয়ের কথা লিখে আজ ফেসবুকে শেয়ার করেছেন। সুইটি লিখেছেন, ‘আমার প্রথম নাটক স্বপ্নের পৃথিবী’ সালমান শাহর সঙ্গে। আজ তার মৃত্যুর পঁচিশ বছর হলো। অসম্ভব মেধাবী একজন শিল্পী ছিলেন সালমান শাহ। অসাধারণ মনের মানুষ এবং চমৎকার ছিলো তার ব্যবহার। তার আত্নার শান্তি কামনা করছি।’

স্বপ্নের পৃথিবী’ নাটকে সালমান শাহ অভিনয় করেছিলেন শুভ চরিত্রে। সেই সময় ‘তোমার প্রেমে আমি অন্ধ, বুঝিনা ভালো মন্দ, তোমাকেই ভালোবাসি, তুমি আমার হাসি আনন্দ’ গানটি বেশ জনপ্রিয়তা পায়। সুইটি বলেন, ‘সত্যি বলতে কী সালমানের চলে যাওয়ায় যেই শূণ্যতা তৈরি হয়েছিলো অবাক হলেও ভীষণরকম সত্যি সেই শূণ্যতা আজও পূরণ হয়নি, পূরণ হবেও না। কিছু কিছু শূণ্যতায় কোনভাবেই পূর্ণতা আসে না।’

মঈনুল আহসান সাবেরের লেখা ধারাবাহিক ‘পাথর সময়’-এ একটি চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে সালমান শাহ’র অভিনয় জীবন শুরু হয়। ওই নাটকের কেন্দ্রীয় চরিত্রে তৌকীর আহমেদ অভিনয় করলেও সালমান শাহ’র চরিত্রটি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পরবর্তীতে আরো বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেও দারুণ প্রশংসিত হয়েছিলেন সালমান। সিনেমার পাশাপাশি নাটকেও তার উপস্থিতি দর্শকের মধ্যে ভীষণ সাড়া ফেলেছিলো। যদিও বা মৌসুমীর সঙ্গে সিনেমাতে সালমানের অভিষেক হয়।

পরবর্তীতে মৌসুমীর সঙ্গে আরও দুটি সিনেমা ‘স্নেহ, ‘অন্তরে অন্তরে’তে অভিনয় করলেও আর কোন সিনেমাতে তাদের দেখা যায়নি। শাবনূরের সঙ্গেই বেশি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন সালমান শাহ যে জুটিকে এখনো সিনেমার অন্যতম সেরা জুটি হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়। সালমান শাহের সঙ্গে জুটি হয়ে আরো অভিনয় করেছিলেন শাবনাজ, শাহনাজ, লিমা, শিল্পী, শ্যামা, সোনিয়া, বৃষ্টি, সাবরিনা ও কাঞ্চি। সালমানের মৃত্যুর এতো বছর পরও পরবর্তীতে বাংলা সিনেমাতে অনেক নায়কের আবির্ভাব হলেও অভিনয় আর ফ্যাশন দিয়ে আর কোন নায়ক আজ পর্যন্ত সালমান শাহর জনপ্রিয়তাকে ছাপিয়ে যেতে পারেনি, অনেক চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিচালকের ভাষ্যমতে সালমান শাহ ছিলেন ধূমকেতুর মতো, এলেন দেখলেন জয় করলেন আবার চলেও গেলেন। কোন নায়কের মৃত্যুর এতো বছর পরেও ভক্তদের হৃদয়ে এতোটা ভালোবাসা নিয়ে বেঁচে থাকার দৃষ্টান্ত পৃথিবীর আর কোন দেশের কোন নায়কের ক্ষেত্রে দেখা যায়নি।

যে সময়টাতে সালমান মৃত্যু বরণ করেছেন, সেই সময়টাতে যারা ছোট ছিলেন, তাদের কাছেও ছোটবেলার গল্পের বিষয় ছিলেন সালমান শাহ। তারাও মনে মনে স্বপ্ন দেখেন, ইস! যদি একবার ফিরে আসতেন সালমান শাহ। কিন্তু মৃত্যুই সত্য, যে চলে যাবার সে চলেই যায় আর ফিরে আসে না কোন দিন।

Previous articleআজ মীর সাব্বির-প্রিয়াঙ্কার ‘স্বামী স্ত্রীর গল্প’
Next articleঅর্থাভাবে সালমান শাহর সহচর মতি, পাশে দাঁড়ালেন বিপ্লব

Leave a Reply