মৃত্যুর আগ অব্দি ছিলেন আপ্যারাল, মৃত্যুর পরেও অপ্রতিদ্বন্দ্বী। সিনেমার অবির্ভাব ছিল ধূমকেতুর মতো। তিনি সালমান শাহ। আছেন হৃদয়ে, থাকবেনও চিরকাল। প্রস্তানের ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এ নায়কের প্রতি শ্রদ্বা। শুরুটা ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবি দিয়ে। এরপর খুব বেশি ছবি করা হয়নি সালমান শাহর। কারণ চলচ্চিত্রর রঙিন পর্দায় এই নায়কের সময় ঘড়ির বয়স ছিল খুবই অল্প। মাত্র তিন বছর পাঁচ মাস বারো দিন। ক্যারিয়ারের ছবির সংখ্যা যদিও সাতাশটি তবুও ভাটা পড়েনি তার জনপ্রিয়তায়। হয়তো তিনি নেই তবুও যে তিনি আছেন খুব বেশি।

‘স্বপ্নের পৃথিবী’তে তিনি স্বপ্নের নায়ক। এখন যদিও তিনি মেঘের ওপারে এই নায়কের ‘স্বপ্নের ঠিকানা’। তবুও ‘আশা ভালোবাসা’য়, ‘চাওয়া থেকে পাওয়া’ যে রয়ে যায়। জীবনের গোলক ধাঁধায় ‘জীবন সংসার’ কেটে গেছে বহু বহু দিন। তবু আজও আবেগের ‘দেনমহর’-এ ‘প্রেম পিয়াসী’ মনে তারুণ্যের মিছিল স্লোগান মুখর ‘তোমাকে চাই’। যদিও জানি ‘সত্যের মৃত্যু নেই’ তবুও ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘বিক্ষোভ’, ‘বুকের ভিতর আগুন’ আর চোখের ‘মহা মিলন’-এ ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘তুমি আমার’। জলের জোয়ার ভাটার খেলায় ‘এই ঘর এই সংসার’-এ হয়তো বেরিয়ে যাবে দিন মাস বছর। তবু ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ পর্যন্ত ভক্তকুলে ‘প্রেম যুদ্ধে’ শুধু তুমিই যে ‘সুজন সখি’। কোটি ‘আঞ্জুমন’, ‘প্রিয়জন’ স্নেহের সেই একটি নাম সালমান শাহ।

ক্ষণজন্মা এ নায়ককে হারানোর ২৪ বছর আজ। তবুও এতটুকু মলিণ হয়নি কেউর মন। যদি বলি বর্তমান অভিনেতা-অভিনেত্রী, পরিচালক কিংবা প্রযোজক অথবা সাধারণ দর্শকের কথা, হয়তো সেখানে প্রতিটি মিছিলের স্লোগানে আছেন তিনি। হৃদয় জুরে সবার একই সুর সালমান শাহ একজনই। তার শূণ্যতা কখনই পূরণ হবার নয়। চলচ্চিত্রর উঠোন জুড়ে যে রঙিন বাতাস মৃত্যুর ২৪ বছর পরও সেই আঁকাশে দ্যুতি ছাড়ানো ভীষণ রকম উজ্জ্বল একটি নক্ষত্র সালমান শাহ।

অভিনয় স্টাইল আর ব্যক্তিত্বে তিনি শুধু তরুণদের কাছেই নয় অগ্রজদের কাছেও প্রিয় পাত্র হয়ে উঠেছিলেন। মাত্র সাতাশটি সিনেমা দিয়েই মনোরঙিন করেছিল সিনেমা প্রেমীদের। দশকের পর দশকেও এতটুকু ভাটা পড়েনি তার জনপ্রিয়তা। তাই হয়তোবা এই প্রজন্মর মিছিলেও রয়েছেন ক্ষণজন্মা এই নায়কের প্রতি তুমুল মুগ্ধতা ও ভালোবাসার স্লোগান। হৃদয়জুড়ে তিনিই ঢালিউড যুবরাজ। প্রিয় এই নায়ককে দেখতে না পাওয়ায় এ প্রজন্মের তরুণরা মনে করছেন তাদের জীবনে এক অপূর্ণতা রয়ে গেছে। তবুও প্রিয় নায়কের হত্যার বিচার চান তারা।

এ প্রজন্মের পরিচালক ও চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন সালমান শাহ আজ বেঁচে থাকলে হয়তো চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির এই বেহাল দশা হতো না। তার অকাল প্রয়াণে ইন্ডাস্ট্রির অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। এখনও নায়ক সংকটে ঢালিউড চলচ্চিত্র। দুই যুগেও মেলেনি মৃত্যু রহস্যে জট। ভক্ত অনুরাগীদের প্রত্যাশা তবুও কমেনি বিন্দু পরিমাণ।

১৯৯৩ থেকে ১৯৯৭ মাত্র তিন বছর পাঁচ মাস বারো দিন। চলচ্চিত্রর উঠোনে যদিও বয়সটি ছিল এমনই তবুও এই অল্প সময়ে রঙিন সব গল্পে রাঙিয়েছেন সিনেমার রঙিন পর্দা। প্রিয় এ নায়কের হঠাৎ প্রস্তানে থমকে গিয়েছিল যে সময় আজও তা থমকে আছে। ভক্তদের প্রত্যাশা একদিন হয়তো বিচার হবে সেই হত্যাকান্ডের। আর সেদিন হয়তো ‘মায়ের অধিকার’-এ আঁচল ছেড়ে যাবে ন্যায়ের সু-বাতাস। যদিও থেমে গেছে জীবন প্রদ্বীপ তবুও শিখাটা যে ভীষণ রকমের উজ্জ্বল। সালমান শাহ ছিলো, আছে, থাকবে এভাবেই প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম।

Previous article‘ক্রাউন প্লাস’- এ গামছা পলাশের ‘যে মারলো এই বুকে ছুরি’
Next articleইমন থেকে যেভাবে হয়েছিলেন নায়ক সালমান শাহ

Leave a Reply