সালমান শাহর সঙ্গে ভালোই দিন কাটছিল তাঁর। তবে প্রিয় মানুষের আকস্মিক মৃত্যুতে অসহায় হয়ে পড়েন ঘনিষ্ঠ সহকারী মতিউর রহমান মতি। আজও অবশ্য তাঁর অসহায়ত্ব ঘোচেনি। তবে সাম্প্রতিক সংকটে মহানুভবতার হাত বাড়িয়েছেন একজন। তাতে কিছুটা হলেও স্বস্তির নিশ্বাস মতির।

মতি মেয়েকে কোরআন শিখিয়েছেন সালমান শাহর কবর জেয়ারত করার জন্য। দৈন্যদশার জন্য সিলেটে গিয়ে কবর জেয়ারত করার ক্ষমতা নেই। ভাড়া দিতে না পারায় ঢাকায় থাকাও অনিশ্চিত তাঁর। এমন খবর পেয়ে তাঁর পাশে দাঁড়ালেন কোল এনার্জি কোম্পানি জেএইচএম ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মেহেদী হাসান বিপ্লব। সালমান শাহর মৃত্যুর দিনে এমন সহযোগিতায় আপ্লুত মতি।

‘স্নেহ’ ছবিতে প্রোডাকশন বয় হিসেবে কাজ করেছিলেন মতিউর রহমান মতি। প্রথম দিন শুটের সময় পানি দিতে গেলে ১২ বছরের মতিকে দেখে অবাক হন সালমান শাহ। এরপর থেকে সালমানের সহচর ছিলেন তিনি। সালমানের প্রয়াণের পর মানসিকভাবে ভেঙে পরেন মতি। মৃত্যুর দিন তিনি ছিলেন কক্সবাজারে। অনেক কষ্টে লোকাল বাস ও ট্রেনে চেপে ঢাকায় আসতে তাঁর দুদিন সময় লেগে যায়। তাই শেষ দেখাটাও হয়নি। নিয়ত করেছিলেন, কোনোদিন বিয়ে করলে, সন্তান হলে তাকে কোরআনের হাফেজ বানাবেন। তাকে নিয়েই প্রথম কবর জেয়ারত করবেন তিনি।

১১ বছর বয়সী মেয়ে আকলিমা মিম আর ছেলে সাত বছরের ইসমাইল হোসেন দুজনই মাদ্রাসায় পড়ছে। মেয়ে এখন পবিত্র কোরআন শরিফ পড়তে পারে। তবে তাদের নিয়ে সিলেটে গিয়ে কবর জেয়ারত করতে পারেননি। অর্থাভাব যেন মতির পিছুই ছাড়ছে না।

চলচ্চিত্রে মন্দাভাব। যে কারণে পরিবারের মুখে খাবার দিতে অক্ষম মতি। বাড়ি ভাড়া দিতে পারছেন না চার মাস। মিউজিক ভিডিও আর ইউটিউবের কিছু কাজে প্রডাকশন বয় হিসেবে কাজ করে কোনোমতে চলছে তাঁর সংসার। বাড়ি ভাড়া দিতে না পারলে অক্টোবরে বাড়ি ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে বাড়িওয়ালা। এমন অবস্থায় দিশেহারা মতি।

আজ সালমান শাহর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী। এমন দিনে মতিকে ডেকে তাঁর হাতে নগদ অর্থ তুলে দিলেন কোল এনার্জি কোম্পানি জেএইচএম ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মেহেদী হাসান বিপ্লব। এমন দিনে কারো সহযোগিতা পেয়ে কেঁদে ফেলেন মতি। তিনি বলেন, ‘সালমান ভাইকে হারিয়েছি ২৪ বছর। মৃত্যুর এত বছর পরও ভাইয়ের জন্যই আমি সহযোগিতা পেয়েছি। বিপ্লব স্যার আজ সকালে তাঁর অফিসে ডেকে আমাকে টাকা দেওয়ার সময় মেয়েকে নিয়ে সিলেটে গিয়ে ভাইয়ের কবর জেয়ারত করতে বলেছেন। আমি আগামীকালই সিলেট যাব কবর জেয়ারত করার জন্য। আপাতত বাড়িটি ছাড়তে হবে না। আজই বাড়িওয়ালাকে ভাড়ার টাকাটা দিয়ে দেব।’

মেহেদী হাসান বিপ্লব বলেন, ‘আমি আসলে একজন অসচ্ছল মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি। সালমান শাহর মতো জনপ্রিয় নায়কের সহযোগী এখন এমন খারাপ অবস্থায় আছেন, বিষয়টি আমি গতকালই শুনেছি। মনে হলো, যদি তাঁর কিছুটা সহযোগিতা হয়, এই ভেবে আমি তাঁর পাশে দাঁড়ানোর কথা চিন্তা করেছি।’

করোনাকালে জেএইচএম ইন্টারন্যাশনালের উদ্যোগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে প্রায় দুই হাজার দুস্থ মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রীর প্যাকেট হস্তান্তর করেন মেহেদী হাসান বিপ্লব। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় অসচ্ছল মানুষের পাশে তাঁকে দাঁড়াতে দেখা গেছে।

Previous articleযদি ফিরে আসতেন…
Next article‘সবার হৃদয়ে সালমান’

Leave a Reply