নূপুরের রিনিক ঝিনিক ছন্দে আদুরে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ঢেউ খেলা আর প্রাণবন্ত অভিব্যক্তি তার চোখে ধাঁ ধাঁ ধরিয়েছিল শৈশবেই। সেই মোহমায়ায় ছোটবেলা থেকেই নাচের সাথে সখ্যতা গড়ে ওঠে এ সময়ের প্রতিভাদীপ্ত তরুণ প্রজন্মের নৃত্যশিল্পী শাহনাজ শারমিন অনন্যা। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে সিনিয়র ড্যান্স আর্টিস্ট হিসেবে কর্মরত। সমসাময়িক প্রসঙ্গে জমজমাটের একান্ত আলাপে কথা বলেন তিনি।

নাচের শুরুটা কিভাবে?

ছোটবেলায় পরিবারের উৎসাহেই নাচ ও গানের তালিম নেই। বাবা চাইতেন গান করি আর মা চাইতেন নাচ। কিন্তু বরাবরই আমার নাচের প্রতি আগ্রহটা বেশি ছিলো। তাই নাচটাই শেষ অবদি ধরে রাখি।

নাচ শেখার জন্য কার অনুপ্রেরণা বেশি পেয়েছেন বাবা না মায়ের?

যদিও মায়ের ইচ্ছেতেই নাচ শুরু করি কিন্তু পরবর্তীতে বাবা সহ পরিবারের সবার অনুপ্রেরণা পেয়েছি।

আপনার নাচের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা সম্পর্কে জানতে চাই-

আমার নাচের শুরুটা ছিলো দনিয়া সবুজ কুঁড়ি কচি কাচার মেলায়। সেখানে আমার নাচের প্রশিক্ষক ছিলেন শ্রদ্ধেয় তাহমিনা সেলিম আপু এবং ফারজানা নাসরিন লিজা আপু। তাদের হাতেই আমার নাচের হাতেখড়ি পরবর্তীতে জাগো আর্ট সেন্টার থেকে নয় বছর মেয়াদী নাচের কোর্স সম্পন্ন করি এবং শ্রদ্ধেয় বেলায়েত হোসেন খান স্যারের কাছ থেকে ভারত নাট্যমের তালিম নেই।

আপনি একজন নারী এবং নৃত্যশিল্পী কি ধরণের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয়?

আসলে আমাদের সমাজ এখন অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে। নারীরা সব সেক্টরেই পুরুষের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে। দিন দিন নারীরা আরো অগ্রসর হচ্ছে। তারপরও যতটুকু প্রতিবন্ধকতা আছে সময়ের সাথে সাথে আমরা সেটাও কাটিয়ে উঠতে পারবো বলে আশা করি।

লকডাউনের সময়টি কিভাবে কেটেছে?

এই সময়টাতে যেহেতু একদম ঘরে ছিলাম তাই অধিকাংশ সময়ই কাটিয়েছি নাচ নিয়েই। দেশ বিদেশের নানা ধরণের ড্যান্স ফর্ম দেখেছি। নতুন নতুন নাচ কম্পোজ করার চেষ্টা করেছি সেগুলো ফেসবুকের মাধ্যমে সবার সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আমাদের দেশে নাচ নিয়ে এখন অনেক ভালো ভালো কাজ হচ্ছে, সেগুলো দেখেছি। আর আমি রান্না করতে ভীষণ ভালবাসি নানা ধরণের রান্না করে টেবিল সাজানো আমার শখ। আমার রেসিপিগুলো মোটামুটি সবাই খুব পছন্দ করে। তাই বন্ধুদের অনুরোধে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলেছি যেখানে আমি আমার রান্নার রেসিপিগুলো সবার সাথে শেয়ার করি।

একজন তরুণ নৃত্যশিল্পী হিসেবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে কর্মরত আছেন। তরুণ প্রজন্মের নৃত্যশিল্পীদের জন্য কিছু বলুন?

আমি নিজেও একজন তরুণ নৃত্যশিল্পী সে জায়গা থেকে আমি নিজেও অনেক আশাবাদী। এখন অনেক ভালো কাজ হচ্ছে। আমরা নাচ নিয়ে পড়াশোনা করার সাহস পাই এবং নাচটাকে প্রফেশন হিসেবে নিচ্ছি এটা আমাদের অনেক বড় প্রাপ্তির জায়গা। এভাবে অগ্রসর হয়ে থাকলে আমরা খুব দ্রুত অনেক ভালো একটি জায়গায় পৌছে যাবো বলে আমি মনে করি।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

যেহেতু আমি একজন নৃত্যশিল্পী নাচের সাথেই আমার বসবাস। তাই পরিকল্পনা ও সব নাচকে কেন্দ্র করে। আমি শিখতে চাই। এখনও শেখার অনেক বাকি। আমাদের দেশের নৃত্য শিল্পকে বিশ্বের বুকে তুলে ধরতে আমাদের অবদান রাখতেই হবে। সেজন্য সঠিক দিক নির্দেশনার সাথে প্রয়োজন প্রচুর অনুশীলন আপাতত সেটারই চেষ্টা করছি।

Previous article‘স্পর্শের সন্ধানে’ জিদান-প্রিয়াঙ্কা
Next articleনতুন চলচ্চিত্রে মৌ খান

Leave a Reply