তিনি মানবিক আত্মার পরিশুদ্ধ রূপ। কন্ঠের মতোই পবিত্রতায় বিশুদ্ধ তিনি। বিমোহিত শ্রোতারা পিনপতন নিরবতায় আর্তের মতোই আশ্রয় খোঁজেন তার গানে। বৈচিত্র্যপূর্ণ গানের সুরে আট থেকে আশি এখনও ভাসেন স্বপ্নের মায়াজালে। এটা হলো একজন প্রকৃত কন্ঠশিল্পীর কৃতিত্ব। আরও একটু বাড়াবাড়ি করে বলতে গিয়ে লিখতে হয় তিনি গানের জগতে মায়াজাল বিছানো এক সাক্ষাৎ দেবী। একজন নিরংকার। মানবিকচিত্তের মহিরূহ। বলছি সাবিনা ইয়াসমিনের কথা। আজ তার ভুমিষ্ট দিবস। তাকে পরিচয় করিয়ে দেবার মতো ধৃষ্টতা দেখাতে চাই না, কারণ তিনি-ই কোটি প্রাণকে পরিচিত করেছেন বিশ্বব্যাপী। তাই তার নামের সঙ্গে কোনো বিশেষণই মানানসই নয়; যা পড়ে তিনি নেচে উঠবেন। তারপরও শুরুর এই বিশেষণ প্রক্রিয়া কেবল ভালোলাগার, শ্রদ্ধার। যার অধিকার সবাই নন, কেউ কেউ।

শুরুর দিককার বিশেষণভরা শব্দগুলোর কতটুকু অধিকার তার আজ সংক্ষিপ্ত আকারে সে বর্ণনা তুলে ধরবো এ লেখায়। সম্প্রতি আমার প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর না ফেরার দেশে চলে গেছেন। অস্থির সময়ে এ সংবাদটি জাতির ওপর বাজ পড়ার মতোই। তাকে সারিয়ে তোলার চেষ্টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শ্রদ্ধেয় সৈয়দ আব্দুল হাদী, আলম খান, হানিফ সংকেতসহ হাতে গোনা দু’ চারজনকে দেখেছি দৌড়ঝাঁপ করতে। তাদের সেই দৌড়ঝাপে শেষতক দুরদেশে থেকেও সম্পৃক্ত হয়েছেন বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া ভারতীয় গায়িকা মিতালী মুখার্জিও। তাদের সঙ্গে সাবিনা ইয়াসমিনের নামটিও বেশ জোড়েসোরে উচ্চারিত হতে দেখেছি।

এই মানুষগুলো মুখের ভাষণে নিজেদের সীমাবদ্ধ না রেখে খেটে গেছেন। কিভাবে এন্ড্রু কিশোরকে সারিয়ে গানের ভুবনে ফিরিয়ে আনা যায় ভেবেছেন সে সব নিয়ে। তাকে সারিয়ে তুলতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। সহশিল্পী হিসেবে সে দায়কে স্বীকার করে আঁটঘাট বেধেই তারা নেমেছিলেন। সিঙ্গাপুরে একদল তরুনতুর্কিরাও সে দলে যুক্ত হয়েছিলেন। তাদের চ্যারিটি উদ্যোগে সামিল হয়েছিলেন তারা। উদ্দেশ্য দেশবিখ্যাত গায়ককে সারিয়ে গানে ফিরিয়ে আনা। এটা কেবল চেষ্টা। অন্তর্যামী তখনও মুচকী হাসছেন। শেষ খেলাটা যে তার হাতেই।

যাহোক যথারীতি সেই চ্যারিটি ফান্ড গঠনে অনুষ্ঠানের আয়োজন হলো সিঙ্গাপুরে। গাইবেন সাবিনা-রুনা-হাদী। সবদিকে প্রচার হলো। প্রবাসীরাও প্রমোদ গুণতে শুরু করলেন সেই মাহেন্দ্রক্ষণের। হঠাৎ আয়োজকদের সঙ্গে শ্রদ্ধেয় রুনা লায়লার থাকা-খাওয়া এবং যাতায়াত নিয়ে কিছু একটা গণ্ডগোল ওই সময় গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। বড় ঘটনা হওয়ার পরও বিষয়টি গণমাধ্যমে সেভাবে আসেনি। এই না আসার পেছনে বড় কারণ বা ষড়যন্ত্র নেই একরাশ ঘৃণাই যথেষ্ট। অথচ জানতো সকলেই কিন্তু হীনমন্য হৃদয়ের কারণটা আর পাবলিকলি করতে চাননি আমার স্বজাতিবন্ধুরা।

ফাইভস্টার মানের হোটেল আর বিজনেস ক্লাসের বিমানের টিকিটের প্রত্যাশিত দাবি পূরণ না হওয়ায় রুনা আর তার মিউজিক দলকে এন্ড্রু কিশোরের জন্য আনা যায়নি। ঘটনা যখন এ পর্যায়ে তখন তাৎক্ষণিক নোটিশে ভারত থেকে উড়ে গিয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিলেন মিতালী মুখার্জি। আর সাবিনা ইয়াসমিন বলে দিলেন যাচ্ছি চ্যারিটি ফান্ডের জন্য, যে অর্থে চলবে কিশোরের চিকিৎসা। তাই যে দু-চারদিন থাকি কোনো রকম একটা থাকার জায়গা হলেই হয়ে যাবে তাতে যদি অর্থ সংগ্রহটা আরও কিছু বেশি হয়। তিনি তাই করেছিলেন। খুব সাধারণ মানের একটা বাসায় সাবিনা ইয়াসমিন, সৈয়দ আব্দুল হাদী এবং মিতালী মুখার্জি আর তাদের মিউজিক দল গাদাগাদি করে থেকে বুঝিয়ে দিলেন বাহিহ্যিক আড়ম্বরপূর্ণ জীবনের সুযোগ মানবিক হৃদয়ের অন্তরায়।

সাবিনা ইয়াসমিনের নেতৃত্বে সকলে মিলে শিল্পীরা যে কতটুকু মানবিক আর মাটির মতোই কোমল হতে পারে তা দেখিয়ে দিলেন। অথচ বরাবরের মতোই সবার অগোচরে থেকে গেলো সে ঘটনাও। রুনা লায়লার সেই ঘটনায় আর সবার মতো তিনিও অবাক হয়েছিলেন। তবে সে অবাকের সঙ্গে কোনো প্রশ্ন চিন্তার ভাঁজ পড়েনি। খুব স্বাভাবিকভাবেই মেনে নিজেকে তৈরি করে স্টেজে সহশিল্পীর জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। সঙ্গী হিসেবে পেয়েছিলেন আশি পেরুনো চিরসবুজ সহশিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদী এবং স্নেহের মিতালী মুখার্জিকে। সেখানে আরও একজন ছিলেন যিনি সবার স্নেহের কন্ঠশিল্পী মোমিন বিশ্বাস। ওই ঘটনা নিয়ে সাবিনা ইয়াসমিন প্রকাশ্যে বা অপ্রকাশ্যে কোনো অভিযোগ করেন নি। বরং দৈনন্দিন জীবনে আর দশটা ঘটনার মতোই মেনে নিয়েছেন। হয়তো ভুলে গিয়েও থাকবেন।

ওই সফরে তার মানবিক পরিশুদ্ধ আত্মার প্রকাশ এখানেই শেষ হতে পারতো। কিন্তু ওপরে বসে থাকা বিধাতা যে কন্ঠদেবীকে দিয়ে আরও কিছু করাতে চাইছেন সেই অদৃষ্টকে তিনি এড়াবেন কি করে? না এড়াননি বরং চ্যারিটি আয়োজক কমিটি তাদের হাতে যৎসামান্য সম্মানি তুলে দিলেন তারা সে অর্থ ওই সময় অসুস্থ সুরকার সেলিম আশরাফের (প্রয়াত সুরকার) চিকিৎসার জন্য দিয়ে দিলেন। ব্যক্তিগতভাবে ওই আসরেই এন্ড্রু কিশোর সেলিম আশরাফের জন্য কিছু অর্থ তুলে দেন। আর এভাবেই সুখে-দুঃখে শেষ হয় একটা ঘটনাবহুল সময়ের। যে সময়টায় অর্থ আর আভিজাত্যের টানে মোহাবিষ্ট মানুষ দেখেছি, তেমনি দেখেছি হৃদয়ের ঐশর্যমণ্ডিত কিছু দেবদেবী, যারা আমাদের এ গ্রহেরই সন্তান। সাবিনা ইয়াসমিন হলেন সেই ঐশর্যের রানী। হয়তো আবার কোনো ঘটনায় এমনি করে তাকে ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখা যাবে। সুস্থ থাকুন শ্রদ্ধেয় সাবিনা ইয়াসমিন। এ জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ সম্পদ আপনি, হয়তো কখনও কখনও ভুল হবে আপনাকে বিচারে তবুও অবিচল থাকুন ন্যায়দন্ড হাতে জাতির পাশে।

Previous articleভিত্তিহীন সংবাদে চটেছেন অভিনেত্রী এ্যানি খান
Next articleসত্য ঘটনা অবলম্বনে সিনেমা ‘জানোয়ার’

Leave a Reply