ছবি: গোলাম সাব্বির

রঞ্জু সরকার: জনপ্রিয় অভিনেত্রী রোবেনা রেজা জুঁই। ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন ছিল সংগীত শিল্পী হবেন। গান করে সুনাম অর্জন করবেন। বেড়ে ওঠার সাথে সাথে স্বপ্নগুলোও ডালপালা মেলে। তবে তার সেই কাঙ্খিত স্বপ্নটি স্বপ্নই থেকে গেল! সংগীত শিল্পী হিসেবে সুনাম অর্জন না করতে পারলেও জুঁই নাম কামিয়েছেন অভিনেত্রী হিসেবে। এরইমধ্যে সাবলীল অভিনয়ের মাধ্যমে পেয়েছেন অসংখ্য দর্শকের ভালোবাসা। অনেকটা শখের বসে অভিনয়ে পথচলা শুরু। কিন্তু এখন অভিনয়ই তার পেশা। নির্মাতারও বেশ আগ্রহ নিয়ে নানা ধরনের চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজ করাচ্ছেন। যে কারণে অভিনয়ে জুঁই দারুণ ব্যস্ত। ইতিমধ্যেই তার অভিনয়ে মুগ্ধ হয়েছে দর্শক। সমানতালে কাজ করে চলেছেন নাটক, টেলিফিল্ম ও ধারাবাহিকে।

সম্প্রতি অভিনেতা রওনক হাসান পরিচালিত ‘বিবাহ হবে’ প্রথম ধারাবাহিকে অভিনয়ের পাশাপাশি নাটকের টাইটেল গানে কন্ঠ দিয়েছেন তিনি। এটিই প্রথম নয় এর আগেও নাটকের একটি টাইটেল গানে কন্ঠ দিয়েছেন জুঁই। যদিও নাটকটি এখনও প্রচার হয়নি। তবে এটি প্রচার হওয়া প্রথম গান। রওনক হাসানের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে গানটি অবমুক্ত হবার পর বেশ সাড়া পাচ্ছেন। ছয়ই সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাভিশনে তারকাবহুল ধারাবাহিকটি প্রচার শুরু হবে।

জুঁইয়ের বর্তমান ব্যস্ততা ‘এক কাপ চা’ ঘিরে। তবে এটি কোনো নাটক নয়। সম্প্রতি এ অভিনেত্রী উত্তরা একটি কফি শপ চালু করেছেন। নাম দিয়েছেন ‘এক কাপ চা’। সেটি নিয়েই এখন সকল ব্যস্ততা। কাজের ফাঁকে এখানে সময় দিচ্ছেন তিনি। শূটিং না থাকলে এখানে নিয়মিত পাওয়া যাবে তাকে। গেল ঈদুল আজহার তিনটি নাটকে জুঁইকে দেখা গেছে। ঈদের সাধারণ ছুটি কাঁটিয়ে শূটিং পাড়া মুখরিত হলেও এখনও শূটিংয়ে অংশ নেননি তিনি। তবে আগামীকাল থেকে একটি নাটকের শূটিংয়ে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

বর্তমান নাটকে অনেক চরিত্র হারিয়ে যেতে বসেছে। যদি বলি কেন্দ্রীয় চরিত্রের পাশাপাশি পার্শ্বচরিত্রগুলো কমে গেছে। এ নিয়ে অনেক আলোচনা হয়। আপনি এটিকে কীভাবে দেখেন? ছোটবেলা পরিবার কেন্দ্রিক নাটক বেশি দেখতাম। পাশাপাশি পার্শ্বচরিত্র থাকতো বর্তমানে তা সংখ্যায় কম। এখনকার নাটকে কেন্দ্রিয় চরিত্রকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। পার্শ্বচরিত্র সেভাবে পাওয়া যায় না। পাওয়া গেলেও সংখ্যায় কম। বরাবরই নির্মাতাদের কাছ থেকে শুনতে হয় বাজেট স্বল্পতার কারণে পার্শ্বচরিত্র ও পারিবারিক কেন্দ্রিক নাটক কম হয়। এতে করে দর্শকও অনেক কিছু থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

একটা পরিবারের মা, বাবা, ভাই-বোন সহ অনন্য মানুষ না থাকলে একটি চরিত্র উন্মোচন হয় না। পরিবার কেন্দ্রিক নাটকে দর্শককে অনেক কিছু দেখানো যায়। কিন্তু চরিত্র না থাকলে সেটি অভিনেত্রী হিসেবে আমি দেখাতে পারছি না। যার ফলে দর্শকও অনেক কিছু হারাচ্ছে। আমি দর্শক হিসেবে পরিবার ও গল্প নির্ভর নাটক খুব মিস করি।

তবে জুঁই মনে করেন এবারের ঈদে পরিবার ও গল্প নির্ভর কাজে বেশি নজর দেওয়া হয়েছে। আগের চেয়ে তু্লনামূলক এবার ঈদ নাটক অনেক ভালো হয়েছে। আমি নিজেও কয়েকটি নাটক দেখেছি। বেশির ভাগ নাটকে এবার গল্পে বেশ নজর দেওয়া হয়েছে। এটাই হওয়া উচিত। আমাদের গল্পের দিকে আরও নজর দেওয়া দরকার। গল্প নির্ভর কাজ চায় দর্শক। মাঝে গল্প নির্ভর কাজ কমে গিয়েছিল যা ঈদে পূর্ণতা এনেছে। এটা নিয়মিত হওয়া দরকার। বাজেট কমের কারণে সারা বছর এ রকম হচ্ছে না। ভালো বাজেট পেলে সেটি সম্ভব। প্রেমের গল্প থেকে বেরিয়ে মধ্যবিত্ত দেশ হিসেবে আমাদের চার পাশের গল্প দেখাতে হবে। আমাদের আশে পাশে অনেক গল্প আছে। গল্প নির্ভর কাজে মনোযোগী হতে হবে। গল্প নির্ভর কাজ হলে পার্শ্বচরিত্র যারা করেন তাদেরও কাজের সুযোগ হয়। ঈদে যে কয়টি কাজ দেখেছি পরিপূর্ণ মনে হয়েছে। এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে। -বললেন রোবেনা রেজা জুঁই।

Previous articleগীতিকার কবির বকুলের মালামাল ক্রোকের নির্দেশ
Next articleআজ গীতিকার রনক রায়হানের জন্মদিন

Leave a Reply