মোবারক তার ছোট ভাই রাশেদকে লেখাপড়া শিখিয়ে পুলিশ অফিসার বানাতে গিয়ে তার বিয়ের বয়স কখন যে পেরিয়ে গেছে, সে নিজেই জানে না। আজ রাশেদ ঢাকায় বড় পুলিশ অফিসার। কিন্তু মোবারক তার আর বিয়ে হচ্ছিল না। গ্রামের লোকজন তাকে চিরকুমারের উপাদী দিয়েছে। গ্রামে ডির্ভোসী মেয়ে ছমিরন যার তিন তিনটা স্বামীর সংসার টেকেনি। মোবারক এই ছমিরনের পিছনে ঘোরে। ছমিরন বলেন তার চাইতে ভাল ভাল তিন তিনটা জামাই তার লাষ্টিং করেনি। আর সে তো সামান্য।

তাই সে মোবারককে বিয়ে করতে চায় না। মোবারক গ্রামের ঘটক মুক্তার আলীকে নিয়ে নানা জায়গায় পাত্রী দেখতে যায়। পাত্রীরা মোবারকের বয়স দেখে মোবারককে চাচা, খালু বলে সম্বোধন করে। ঘটে নানা রকমের হাস্যকর ঘটনা। রুহুল আমিন পথিক’র এমনই গল্প নিয়ে নাটকটি নির্মাণ করেছেন সোহাগ কাজী। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিন করেছেন মীর সাব্বির, মৌমিতা মৌ, ডন, সাইফ খান, প্রিয়াঙ্কা জামান, শামীম আহমেদ প্রমুখ।

মৌমিতা মৌ বলেন, ‘পারিবারিক গল্প নিয়ে নাটকটি। এখানে একটি পরিবারের বউয়ের জন্য ভাই ভাই যে মনোমালিন্য হতে পারে তা উঠে আসবে গল্পে। দর্শক নাটকটি দেখে আনন্দ পাবে।’ নির্মাতা জানান, খুব শীঘ্রই নাগরিক টিভিতে নাটকটি প্রচার হবে।

Previous articleদিনমজুরের করুণ গল্পে ‘আহা জীবন’
Next articleঠোঁট ফুলে গেছে, চুমু খেতে খেতে আমি ক্লান্ত: ইমরান হাশমি

Leave a Reply