বিগত দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে প্রাচ্যনাট নাট্যচর্চা করে চলেছে। যারা তরুণদের নাট্যদল হিসেবে নাটক পাড়ায় বিখ্যাত। বাংলাদেশের শত শত গ্রুপ থিয়েটারের মধ্যে প্রাচ্যনাটেই সব থেকে বেশি তরুণ নাট্যকর্মী নিয়মিত ভাবে কাজ করে। আমাদের দেশের প্রেক্ষিতে দেখা যায় যে যখন একজন তরুণ কোনো একটি গ্রুপ থিয়েটারে সংযুক্ত হয় তখন প্রাথমিক পর্যায়ে তার কাজ করার সুযোগ থাকে কম বা নেই বললেই চলে। কারণ গ্রুপ থিয়েটার গুলোতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নির্দেশনা, অভিনয় বা ডিজাইনে দলের সিনিয়র নাট্যকর্মীরাই অংশগ্রহণ করেন। তাই তাকে বছরের পর বছর অপেক্ষা করতে হয় একটি প্রযোজনায় অংশগ্রহণ করার জন্য।

অনেকে ধৈর্য হারিয়ে মাঝ পথেই থিয়েটার চর্চা থেকে সরে যায়, আর যারা ধৈর্য ধারণ করে অপেক্ষা করে বহু বছর পর ভাগ্যে থাকলে একটি নাটক প্রযোজনায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ পায়। কিন্তু এই সব ক্ষেত্রে প্রাচ্যনাট সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম একটি নাট্যদল। প্রাচ্যনাট স্কুল থেকে কোর্স সমাপ্ত করে প্রতি ছয় মাস পর পর নির্বাচিত নতুন নাট্যকর্মীরা প্রাচ্যনাটের কাজ করার সুযোগ পায়। তবে তাদের নাট্যচর্চার জন্য বছরের পর বছর অপেক্ষা করতে হয় না। দলে সংযুক্ত হওয়ার সাথে সাথেই সে নাট্যচর্চার সুযোগ পায়। নাটকের যে যে ক্ষেত্রে আগ্রহী সে সেই ক্ষেত্রে তার চর্চা চালিয়ে যেতে পারে। যেমন কেউ নির্দেশনার কাজ করতে চায় আবার কেউ শুধু অভিনয়ে অথবা সেট-লাইট ডিজাইনে কাজ করতে চায়। মুল প্রযোজনার পাশাপাশি এসব নাটকের বিষয় শিখার জন্য প্রাচ্যনাটের অন্যতম বিভাগ হচ্ছে ইন-হাউজ নাট্যচর্চা।

ইন-হাউজ নাট্যচর্চায় দেখা যায় যে তরুণ নাট্যকর্মীরাই নাটক লিখছে, নির্দেশনা দিচ্ছে, অভিনয় করছে, সেট-লাইট-প্রপস-কস্টিউম ডিজাইন করছে, গানের সুর ও আবহ সংগীত নির্মাণ করছে। এভাবে যখন একটি প্রযোজনা তৈরি হয় তখন চ্যালেঞ্জ হিসেবে সামনে আসে তার প্রদর্শনীর আয়োজন করা। কারণ প্রদর্শনী করার জন্য প্রথম যেটা দরকার সেটা হচ্ছে একটি মঞ্চ তারপর পর্যাপ্ত আলো ও অন্যান্য কারিগরি ব্যবস্থা এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দর্শক। মঞ্চ স্বল্পতার কারনে আমাদের দেশের প্রেক্ষিতে মূল নাটকের প্রদর্শনী করতেই একটি দলকে মাসের পর মাস অপেক্ষা করতে হয় মঞ্চ বরাদ্দ পাওয়ার জন্য।

আর সে ক্ষেত্রে ইন-হাউজের জন্য মঞ্চ পাওয়াতো কল্পনাতীত। সে সমস্যা সমাধানের জন্যে প্রাচ্যনাটের মহড়া কক্ষকেই প্রয়োজন অনুযায়ী রূপান্তর করা হয় স্টুডিওর মত একটি মঞ্চ যাতে সংযুক্ত থাকে সীমিত আকারে আলো ও অন্যান্য কারিগরি ব্যবস্থা। সবশেষে আসে দর্শক সংযুক্তির বিষয়টি। মহড়া কক্ষের আয়তন অনুযায়ী দর্শক সংখ্যা নির্ণয় করা হয়। দর্শক প্রধানত হয় দলের অন্যান্য নাট্যকর্মী, নাট্যকর্মীদের বন্ধু ও আত্মীয়রা। অন্যান্য দলের নাট্যকর্মীরাও খুব আগ্রহ নিয়ে দর্শক সারিতে আসন গ্রহণ করেন। তাদের মধ্যেও এক ধরনের আবিষ্কারের উত্তেজনা দেখা যায় যে নতুনরা কি ভাবছে বা তারা কি ধরনের কাজ করছে। এ সকল আয়োজনও নতুনরাই করে তাই প্রযোজনা ব্যবস্থাপনার শিক্ষাও ভালোমতই হয়ে যায়। ইন-হাউজ নাটক প্রদর্শনী শেষে চা-চক্রের সাথে আয়োজন করা হয় প্রশ্ন-উত্তর পর্বের যেখানে দর্শকরা প্রযোজনায় সংশ্লিষ্ট সকলকে নাটক নিয়ে প্রশ্ন করে থাকে।

এ সেশনটির মাধ্যমে একদিকে যেমন তরুণ নাট্যকর্মীরা অনেক কিছু বুঝতে ও শিখতে পারে অন্যদিকে দর্শকদের সাথে এক রকমের শৈল্পিক সম্পর্ক তৈরি হয়। ২০১০ সালে প্রাচ্যনাটের ইন-হাউজ প্রযোজনা গুলো নিয়ে প্রথমবারের মত আয়োজন করা হয়েছিলো ‘মহলা মগন’ শিরোনামে উঠান নাটকের মেলা। দশ বছর পর ২০২০ সালে যখন করোনা মহামারীতে প্রায় স্থবির হয়ে পরেছে নাট্যচর্চা ঠিক তখন প্রাচ্যনাট পরিকল্পনা করছে তাতে গতি সঞ্চারনে। সে লক্ষ্যেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে আবার আয়োজন করা হচ্ছে উঠান নাটকের মেলা ‘অবসাদে বিরুদ্ধ স্রোত মহলা মগন’ শিরোনামে। উৎসবের আয়োজন চলছে বেশ সর্তকতার সাথে। করোনা পরিস্থিতি মাথায় রেখে দর্শক আসন সংখ্যা কমিয়ে আনা হয়েছে। সে জন্য অবশ্য একটি নাটকের দুটি প্রদর্শনী হবে শুক্রবার ও শনিবার।

এভাবে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু করে প্রতি শুক্র ও শনিবার মোট পাঁচটি ইন-হাউজ প্রযোজনা প্রদর্শীত হবে। প্রযোজনাগুলোও নির্বাচন করা হয়েছে করোনা পরিস্থিতি মাথায় রেখে। যাতে একটি প্রযোজনা দলে কম সংখ্যক অভিনেতা-অভিনেত্রী ও নেপথ্য শিল্পী থাকে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে মহড়াও চলছে। প্রদর্শণীতে দর্শকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহান করা হয়েছে। দর্শক প্রবেশ দ্বারে থাকছে স্যানিটাইজার, থার্মাল স্ক্যানার এবং বাধ্যতামূলক করা হয়েছে মাস্ক। মোট কথা মুল প্রযোজনার প্রদর্শনীর আয়োজন করার পূর্বে পরীক্ষামূলক প্রস্তুতি এই উঠান নাটকের উৎসব।

Previous articleনাসির উদ্দিন মাসুদ’র ‘সুলতান ভাই’
Next articleখোলামেলা দৃশ্য থাকতেই পারে এটা খারাপ কিছু না: জয় রাজ

Leave a Reply