ছবি: এম এ এইচ সাগর

রঞ্জু সরকার: ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেতা সাঈদ বাবু। ১৯৯৫ সালে ভোলার একটি থিয়েটারের মাধ্যমে অভিনয় জীবন শুরু করেন। ২০০৫ সাল বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করেন। ২০০৭ সালে ‘এইতো প্রেম’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন। ২০১৮ সালে ‘পোড়ামন টু’ চলচ্চিত্রে খলনায়ক চরিত্রে অভিনয় করে প্রসংশিত হয় বাবু। এরইমধ্যে শেষ করেছেন শাহীন সুমন পরিচালিত ‘মাফিয়া’ ওয়েব সিরিজের কাজ। এখানে সুন্দরী চরিত্রে দেখা যাবে তাকে।

বাবু জমজমাটকে বলেন, ‘সুন্দরী হচ্ছে একজন পেশাদার খুনি। তার কোন দল নেই যখন যে তাকে কনটাক্ট করে তার দলেই কাজ করে। চরিত্রটি একটু ছাইয়া প্রকৃতির। যখন সে চরিত্রে যায় তখন আর তার মধ্যে ছাইয়া কাজ করে না। তার হত্যার ধরণগুলো খুবই মারাত্মক। একজন মানুষ ছাইকো না হলে এ ধরণের কাজ করতে পারে না। একটা মানুষকে খুন করতে হলে কিন্তু তার মন মানসিকতা স্বাভাবিক থাকে না। দর্শক ওয়েব সিরিজটি দেখে মজা পাবে।’

বর্তমান ব্যস্ততা কি নিয়ে? ‘নাটকের কাজ নিয়ে ব্যস্ততা যাচ্ছে। এছাড়াও আরও কয়েকটি ওয়েব সিরিজের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। নতুন দুইটি চলচ্চিত্রেও সাইনিং করেছি। চলচ্চিত্রে নিয়মিত হতে চাই। শুরু থেকেই চলচ্চিত্রে পজিটিভ কাজ করার চিন্তা করতেছি। আমাদের চলচ্চিত্রে নায়ককেই গুরুত্ব দেওয়া হয় কিন্তু একজন ভিলেনও কিন্তু একটা চরিত্র সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারে। সেও চলচ্চিত্রর একটি গুরত্বপূর্ণ চরিত্র। কিন্তু সেটি আমাদের দেশে দেখা যায় না। ভিলেনের এন্ট্রি মানেই বুঝি সুপার লেভেলের নাচ আর বেশি বেশি মদ খেতে হবে।’

তিনি বলেন, গল্পের প্রয়োজনে আমরা তাকে নেগেটিভ দেখি। কিন্তু তার দিক থেকে সে পজেটিভ। আমরা সব সময় হিরোকে দেখি গল্পের প্রয়োজনে। একজন ভিলেনও যে তার চরিত্র ফুটিয়ে তুলে নতুন লুক নিয়ে আসতে পারে এই চিন্তাটা আমাদের এখনও আসেনি। হয়ত আসতে সময় লাগবে। বাবুর পছন্দের অভিনেতার মধ্যে রয়েছে কিংবদন্তি অভিনতো হুমায়ুন ফরিদী। তার মতো বহুমাত্রিক চরিত্রে অভিনয় করতে চান তিনি।

Previous articleসোহাগ কাজীর ‘আলাল দুলালের মা’
Next articleআশাবাদী রওনক হাসান

Leave a Reply