খাঁন আতাউর রহমানের ‘নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা’ ছবিতে নবাবের ঘাতক মোহাম্মদী বেগ চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন অভিনেতা আবদুল মতিন। আজ (১সেপ্টেম্বর) মঞ্চ, বেতার, টিভি ও চলচ্চিত্র অভিনেতা আবদুল মতিনের ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী। তার ছেলে অনজন রহমান জানান, মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর নিজ বাসভবন ঢাকার ওয়ারীস্থ, নারিন্দা রোডে সারা দিনব্যাপী কোরআন খতমের আয়োজন করা হয়েছে।

অভিনেতা আবদুল মতিন’র জন্ম ১৭ জুলাই ১৯২১। বাবা আবদুর রহমান আর মা বিবি সমীরন’র একমাত্র সন্তান আবদুল মতিন। ১৯৩৫ সাল থেকে নাট্যাভিনয়ে সাধনা ও উন্নয়নে ঢাকার প্রথম মুসলিম অভিনয় শিল্পী। বেতার, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের জন্মলগ্ন থেকে অভিনয় করেছেন আবদুল মতিন। বেতারের জন্মলগ্ন থেকেই যুক্ত এবং এর উন্নতি বিধানে ঘোষক, নাট্যপ্রযোজক, নাট্য লেখক ও সংগীত রচয়িতা হিসাবে সহায়ক।

১৯৫২ সালে বেতারের চাকুরিকালে ২১শে ফেব্রুয়ারি ভাষা আন্দোলনে শহীদদের সম্মানে প্রথম প্রতিবাদকারী ও বেতারের হরতালের আহবায়ক। বেতারের ২৪ ফেব্রুয়ারি যোগদানের দিনই সরকারী নথী ’লগবুক’এ সর্বপ্রথম বাংলা লেখক। ১৯৫৬ সালে আমেরিকার মেট্রোগোল্ডেন মায়া (এমজিএম) প্রযোজনা সংস্থার ঢাকায় নির্মিত প্রথম ডকুমেন্টরী ছবিতে অংশগ্রহনকারী। ১৯৬২ সালের ১ জুলাই সিলেট বেতার কেন্দ্রের অনুষ্ঠান প্রধান হিসাবে সিলেট বেতার কেন্দ্রের অনুষ্ঠান চালক। ৬৯ গণ অভ্যুত্থান ও স্বাধীনতা আন্দোলনে বিক্ষুব্দ শিল্পী সমাজের যুগ্ম মহাসচিব। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হলে মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর নেতৃত্ত্বে অচল ঢাকা বেতারকে সচল করার প্রথম ব্যবস্থাপক।

টেলিভিশন নাট্যশিল্পী ও নাট্যকারদের স্বার্থরক্ষণ উন্নয়নে টেলিভিশন নাট্যশিল্পী ও নাট্যকার সংসদ (টেনাশিনাস)র প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সংগঠক ও সমিতির গঠনতন্ত্রের রচয়িতা। অভিনেতা আবদুল মতিন মঞ্চ, বেতার ও টিভি নাটকের পাশাপাশি প্রায় দু’শোর অধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। শিল্পী সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সংগঠক আবদুল মতিনের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন বর্তমান শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। মতিন বাংলাদেশের বিখ্যাত সব পরিচালকের সাথে কাজ করেছেন। তাঁর মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য ঋত্নিক কুমার ঘটকের ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ এবং খাঁন আতাউর রহমানের ‘নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা’।

নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা ছবিতে নবাব সিরাজ উদ-দৌলা’র ঘাতক ‘মোহম্মদী বেগ’ চরিত্রে অভিনয় করে এখনো তিনি দর্শক হৃদয়ে অমর হয়ে আছেন। এছাড়াও তাঁর অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে- ফকির মজনু শাহ, সাত রং, সুতরাং লালন ফকির, জাগোহুয়া সাবেরা, আলোর মিছিল, আসামী, লাল সবুজের পালা, নাত বৌ, সাহেব, জিঘাংসা, কুয়াশা, ছদ্মবেশী, মিশর কুমারী, দ্বীপ নিভে নাই, সেতু, অনেক দিন আগে, লাঠিয়াল, চোর, পাগলা রাজা ও বড় ভালোলোক ছিল সহ প্রায় দু‘শো চলচ্চিত্র ইত্যাদি।

টেলিভিশনে উল্ল্যেখযোগ্য- বেগম মমতাজ হোসেন’র সকাল সন্ধ্যা ধারাবাহিক নাটকে ‘পরাণ ভাই’ এবং আনোয়ারা ও শুকতারা নাটকে অভিনয় করেন। অভিনেতা আবদুল মতিন ১৯৮৮ সালে ৩রা সেপ্টেম্বর/ ১৭ই ভাদ্র ইন্তেকাল করেন। বাংলা মাস অনুযায়ী তাঁর মৃত্যুবার্ষিকী পালন করায় এবার আবদুল মতিন’র মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হচ্ছে আজ (১ সেপ্টেম্বর)। মরহুমের সন্তান সিনিয়র সাংবাদিক, জাতীয় প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য অনজন রহমান এবং সেনকল্যাণ সংস্থা মংলায় কর্মরত লাভলু হাসান সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

Previous articleএশিয়া জয় করলো দীপের এইচবিও সিরিজ
Next articleউচ্ছ্বসিত কাজী সাজু

Leave a Reply