ছবি: এম এ এইচ সাগর

রঞ্জু সরকার: ঢাকা-৫ আসন (যাত্রবাড়ী- ডেমরা) উপ-নির্বাচনকে ঘিরে শুরু হয়েছে নানা আলোচনা ও হিসাব নিকাশ। কাকে নৌকার মাঝি করলে এলাকার উন্নয়ন তরাণ্বিত হবে, এলাকাবাসীর কল্যাণ হবে তা নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে চলছে নানা সমীকরণ ও চুলচেরা বিশ্লেষণ। এ আসনের এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লা মৃত্যুবরণ করার পর আসনটি শূণ্য হয়। সামনে উপ-নির্বাচন। আসন্ন এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যেও ভোটের হিসাব কষাকষি শুরু হয়েছে। অনেকেই চাইতে পারেন এ আসনে আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন। কিন্তু বর্তমানে এ আসনে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন এশিয়ান টিভি ও এশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব আলহাজ্ব হারুন উর রশীদ সিআইপি।

হারুন উর রশীদ সিআইপি পরিশ্রমী, সহজ-সরল, বিনয়ী, ত্যাগী নেতা। উন্নয়ন যার চিন্তা চেতনা, মানুষের ভালবাসাই তার মূলমন্ত্র ও প্রেরণা। অন্যায়ের বিরুদ্ধে সাহসিকতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত তিনি। নিজের শ্রম, মিশে আছেন মাটি ও মানুষের মাঝে। এশিয়ান গ্রুপ, এশিয়ান টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব এবং গুলশান প্রেস ক্লাব, ঢাকা-এর সভাপতি আলহাজ্জ্ব মো.হারুন-উর-রশীদ সিআইপি। ১৯৫২ সালের ২ এপ্রিল আলহাজ্জ্ব ইমান আলী ও মিসেস রাবেয়া খাতুনের কোল আলোকিত করে পদ্মার বুক চিরে বয়ে যাওয়া মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে জন্ম নেন আলহাজ্জ্ব হারুন উর রশীদ। ব্যক্তিগত জীবনে ৪ ভাই, ২ বোনের মধ্যে তিনি জেষ্ঠ্য এবং ৮ সন্তানের জনক। ১৯৭৪ সালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে স্থায়ী আবাস গড়লেও সময়ের স্রোতে গা ভাসিয়ে তিনি শেকড় ভুলে যাননি কখনও।

চিরচেনা গ্রামকে সব সময় হৃদয়ে ধারণ করা এই মানুষটি সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে থাকেন সব সময়। ওয়ার্ডে, গ্রামে, স্কুলে, মাদ্রাসায়, ঈদগাহে, বাড়ি বাড়ি যার পদচারণা; মিলাদ মাহফিল, জানাজা, সামাজিক অনুষ্ঠান, মসজিদ, মন্দিরে যার সরব উপস্থিতি; সেই মানুষটিকেও পরম মায়ায় কাছে টেনে নেন সবাই। মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবনপণ সংগ্রামে দেশের স্বাধীনতার রক্তিম আলোকবর্তিকা হাতে নিয়ে দিগ্বিদিক ঘুরে বেড়ান হারুন উর রশীদ সিআইপি। যখনই মানুষ দুঃখ-দুর্দশার মধ্যে পড়ে়ছে, তখনই তিনি বাড়িয়ে দিয়েছেন সহযোগিতার হাত।

১৯৮৮ সালে যখন বানের জলে ভাসছে গোটা দেশ, খাদ্যের অভাবে যখন দিশেহারা বানভাসী মানুষ, তখন ত্রাণ সহায়তা নিয়ে অসহায় দুর্গতদের পাশে গিয়ে হাজির হয়েছেন তিনি। ১৯৯৮ সালের বন্যায়ও নিজেকে নিয়োজিত রাখেন মানুষের সেবায়। শুধু ত্রাণ সহায়তা দিয়েই ক্ষান্ত থাকেননি, খুলেছিলেন লঙ্গরখানাও। ২০০৯ সালে পিলখানা ট্র্যাজেডিতে নিহতদের পরিবারকে সহযোগিতার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র হাতে তুলে দিয়েছেন নগদ সহায়তা চেক।

আর কক্সবাজারের রামুতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে ভয়াবহ হামলার নিন্দা জানিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের পাশে থেকেছেন ট্রাকে ট্রাকে ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে। এছাড়াও ঢাকা-৪ ও ঢাকা-৫ নির্বাচনী এলাকায় পবিত্র ঈদ উল ফিতর, ঈদ উল আযহা ও বিভিন্ন পৌষ পার্বণে এলাকার জনসাধারণের মধ্যে বিভিন্ন উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন।

তিনি বরাবরই গরীব দুঃখীদের সাথে পাশে রয়েছেন, থেকেছেন। বিপদে আপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমন শুরু হওয়ার পর থেকে তিনি ব্যক্তি উদ্যোগে ও অর্থায়নে দেশের অসহায় মানুষের মাঝে যে পরিমান ত্রান সহায়তা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছেন সর্ব মহলে তা ব্যাপক প্রসংশা কুড়িয়েছে। তিনি এ আসনে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন আলোচনায় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছেন। এ আসনের জনগণও ত্যাগী এই নেতার মুল্যায়ন চান। এলাকার জণসাধারন তাকে এ আসনে উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রদান তথা এ আসনের সাংসদ হিসেবে দেখতে চান।

এলাকাবাসীও মনে করেন, আলহাজ্ব হারুন উর রশীদ শুধু নির্বাচন করার জন্য নয়, তিনি বরাবরই মানুষের বিপদে আপদে পাশে থেকেছেন, ডাকা মাত্র এলাকার মানুষ তাকে পাশে পেয়েছে। তিনি সৎ, বিনয়ী. পরিশ্রমী, উদার, সফল ও ত্যাগী একজন ভালো মানুষ ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক। হারুন উর রশীদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর থেকে তিনি মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ঝড়, বন্যা, খরাসহ মানবিক বিপর্যয়ে তিনি সর্বদা জনকল্যাণে কাজ করে চলেছেন। বিভিন্ন মসজিদ, মাদরাসা, কবরস্থান, ঈদগাহ মাঠ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নানা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে অনুদান প্রদানসহ সহযোগীতা প্রদান করে চলেছেন। এ আসনে আসন্ন উপ-নির্বাচনে এশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব, সফল উদ্যোক্তা, শিল্পপতি মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হারুন উর রশীদ সিআইপিকে এ আসনে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোরালো দাবী জানাচ্ছি। তাকে নৌকার মাঝি করা হলে এলাকার মানুষ বিপুল ভোটে তাকে জয়যুক্ত করবে বলে এলাকাবাসী মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন।

ঢাকা-৫ আসনকে মডেল সিটি বানানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করলেন আলহাজ্ব মো. হারুন-উর-রশীদ (সিআইপি)। ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী হারুন উর রশীদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছি, জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যার নেতৃত্বে দেশজুড়ে এখন চলছে উন্নয়নের নানা যজ্ঞ। পদ্মা সেতু না হওয়ার জন্য এ দেশেরই কিছু লোক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় মনোবলের কারণে পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। কর্ণফুলী টানেলসহ নানা উন্নয়ন কাজ হচ্ছে সারা দেশে। ঢাকা-৫ আসন থেকে আমাকে যদি মনোনয়ন দেওয়া হয় তবে এই এলাকার উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব। ঢাকা-৫ আসনকে মডেল সিটি বানাতে চাই। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মধ্য দিয়ে যারা যড়যন্ত্র করেছে, তারা এখনো ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মুছে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল, তারা সেটা করতে পারেনি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।

ঢাকা-৫ আসনের মানুষের জন্য নিবেদিত প্রাণ এই মানুষটির আকাশছোঁয়া স্বপ্ন এদেশের সাধারণ মানুষকে নিয়ে। তাই যে কেউ ডাকলেই সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। বলা হয়, কেউ স্বার্থপর হয়ে সুখী, কেউ স্বার্থ বিলিয়ে সুখী। হারুন-উর-রশীদ সিআইপি স্বার্থ বিলিয়ে সুখীদের দলে। ‘সবার সুখে হাসব আমি, কাঁদব সবার দুঃখে, নিজের খাবার বিলিয়ে দেব অনাহারীর মুখে’ পল্লীকবি জসীম উদ্দীনের এই কবিতাটিই তিনি বুকে ধারণ করেন সব সময়। গত ৩টি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করার লক্ষ্যে ক্রমাগতভাবে দলের মনোনয়ন লাভের জন্য সচেষ্ট থাকায় তাকে বিভিন্ন সময়ে দলের হাই কমান্ড থেকে বার বার আশ্বস্ত করা হয়েছিল ধৈর্য্য ধারণ করার। তিনি অনেক ধৈর্য্য ধরেছেন এবং দলের বৃহত্তর স্বার্থে বার বার সেক্রিফাইজও করেছেন।

যেহেতু ঢাকা-৫ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা ইন্তেকাল করায় ঐ আসনে উপ-নির্বাচন হবে, তাই ঢাকা-৫ আসনের উপ নির্বাচনে বাসিন্দাদের খুশির জোয়ারে ভাসাতে চান হারুন উর রশীদ সিআইপি, থাকতে চান মানুষের হৃদয়ে। এলাকাবাসীরাও আশা করেন, নৌকার কান্ডারি হলে তিনিই পড়বেন বিজয়ের মালা; তাদের প্রত্যাশার পালেও লাগবে প্রাপ্তির হাওয়া।

কেননা; প্রতিবছর উৎসব-পার্বণে, আপদে-বিপদে তিনি জনগণের পাশে থাকেন সব সময়। ঢাকা-৫ আসনেই তার স্থায়ী বসত বাড়ি, প্রতিষ্ঠা করেছেন যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল ও কলেজসহ বহু স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা। তাই ঐ আসনের জনগণ দল-মত নির্বিশেষে হারুন উর রশীদ সিআইপি-কে এবার এম.পি হিসেবে পেতে উন্মুখ হয়ে আছেন। ‘পিতা দিয়েছেন স্বাধীনতা, কন্যা গড়েছেন দেশ, এ আমাদের জন্মভূমি, সোনার বাংলাদেশ’। এই স্লোগান মনে প্রাণে ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যেতে চান আলহাজ্ব মো. হারুন উর রশীদ (সিআইপি)।

Previous articleএকক নাটক ‘তমা’
Next articleসিসিমপুর এবার মাছরাঙা টেলিভিশনে

Leave a Reply