রুহুল আমিন ভূঁইয়া: পৃথিবীটা নাকি ছোট হতে হতে বোকা বাক্সতে বন্দি হয়ে যাচ্ছে। লকডাউনের চাপে, তিন মাসের দমবন্ধ করা পরিস্থিতিতে শ্বাস নেওয়ার জন্য নাটক-ওয়েব সিরিজ মুক্তির সাময়িক পথ খুঁজে নিয়েছে ফেসবুক, ইউটিউবের মতো ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে। বাংলা নাটক ও সিনেমা যেন লক ডাউনের তিন মাসে হয়ে উঠল সিনেমার মতো, যা বড় পর্দায় নয়, দেখা গেছে হাতে ধরে রাখা স্মার্টফোনে। দর্শক যদি এতেই অভ্যস্ত হয়ে ওঠেন তাহলে, যখন আবার খুলবে সিনেমা হল, তখন কি দর্শকরা যেতে চাইবেন না বলাকা, মধুমিতায়? শোনা যাচ্ছে বন্ধ হয়ে যাওয়া হলগুলো আর নতুন করে খুলবে না কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘ দিন ধরে সিনেমার ব্যবসা মন্দা হওয়ায় লোকশান গুনতে হচ্ছে হল মালিকদের। করোনা যেন মরার উপর খাঁড়ার ঘা। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন হল বন্ধ করে দেওয়ার। কেউ কেউ আবার ভাবছেন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে সিনেমা মুক্তির কথা। কি ভাবছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ও শিল্পীরা? তারই উত্তর খুজতে চেষ্টা করেছে জমজমাট প্রতিবেদক।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনলাইনে সিনেমা মুক্তির রীতি চালু হলেও বাংলাদেশে এখনও তা সম্ভব হয়নি। নির্মাতারা বলছেন সম্ভাবনার পাশাপাশি ঝুঁকির কথাও মাথায় রাখতে হচ্ছে তাদের। এ প্রসঙ্গে পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন বলেন, ‘ডিজিটাল মাধ্যমে সিনেমা দেখা আজ না হয় কাল বাস্তবায়ন হবেই। বর্তমানে সব কিছু অনলাইন নির্ভর হয়ে গেছে। একটা সময় সিনেমাও অনলাইনে মুক্তি পাবে। আস্তে আস্তে সেটি চলে আসবে। নিদিষ্ট সময় মানুষ ছবি দেখতে চায় না। সবাই নিজের নিয়ন্ত্রনে দেখতে চায়। সামনে ডিজিটাল মাধ্যমের জন্যই কনটেন্ট বানানো হবে।’

চিত্রনায়ক আলেকজান্ডার বো বলেন, ‘হলের দর্শক আলাদা অনলাইনের দর্শক আলাদা। সবাইকে হলের দর্শক নিয়ে ভাবতে হবে। সবাই শুধু ব্যবসার চিন্তাই করছেন ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে কিছু ভাবছে না। ব্যবসা করতে হবে তবে ইন্ডাস্ট্রির জন্যও ভাবতে হবে। হলের দর্শক খেটে খাওয়া মানুষ। খেটে খাওয়া মানুষের জন্য ছবি বানাতে হবে। তারা যখন ছবি দেখে তখনই একটি ছবি ব্যবসা সফল হয়।

পরিচালক দেবাশীষ বিশ্বাস বলেন, ‘তারা যে প্ল্যাটফর্মে ছবি মুক্তি দিচ্ছে তাদের মতো আমাদের প্ল্যাটফর্মে তেমন শক্ত অবস্থান তৈরি হয়নি। আমাদের দেশে এটি বাস্তবায়ন হতে আরো সময় লাগবে।’

নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, ‘একটি সিনেমা তৈরি হয় অনেক বড় বাজেটে। সে ক্ষেত্রে অনলাইনে ছবি মুক্তি দিলে সেই টাকাটা কিভাবে উঠে আসবে সেটাও ভাবনার বিষয়।’

শাহাদাৎ হোসেন লিটন বলেন, ‘হলের জন্য অনেক বড় বাজেটের সিনেমা নির্মাণ হয়। সেটি যদি অনলাইনের জন্য নির্মাণ করা হয় তাহলে বাজেট ও মান অনেক কমে যাবে। অনলাইন থেকে নির্মাণ ব্যায় কিভাবে উঠে আসবে? তাছাড়া হলের দর্শক আলাদা অনলাইনের দর্শকও আলাদা। এতে ছবির মান থাকবে না। বিগ বাজেটের ছবি নির্মাণ করেও দর্শকের মন জয় করতে পারছি না তাহলে অনলাইনের জন্য নিম্ন মানের ছবি নির্মাণ করে কি ভাবে দর্শকের মন জয় করব? উপার্জন আসতে পারে তবে শিল্পের মান বৃদ্ধি পাবে না।’

বাংলা চলচ্চিত্রর ইতিহাসে এই প্রথম দুই ঈদে বন্ধ ছিল প্রেক্ষাগৃহ। করোনা পরবর্তী সময়ে বাংলা চলচ্চিত্রর ভবিষ্যৎ কি সেটিই এখন দেখার বিষয়।

Previous articleঊর্মিলা’র ‘শোপিস জামাই’ মীর সাব্বির
Next articleজুটি বাঁধলেন শাওন-প্রকৃতি

Leave a Reply