নন্দিত অভিনেতা জাহিদ হাসান। অভিনয় জগতে তার নামই একটি বিশেষণ। টিভি নাটকের অন্যতম জনপ্রিয় তারকা তিনি। নব্বইয়ের দশকের গোড়ার দিকে টিভি নাটকের নায়কদের মধ্যে তিনি একটি জ্বলজ্বল মুখ। দীর্ঘ অভিনয় ক্যারিয়ারে অসংখ্য জনপ্রিয় কাজ উপহার দিয়ে সবার প্রিয় হয়ে গেছেন। চলচ্চিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের সুবাদে অর্জন করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারও। জনপ্রিয় তকমা অর্জন করেছেন পরিচালক ও প্রযোজক হিসেবেও। বর্তমানে অভিনয় নিয়ে তুমুল ব্যস্ত এ অভিনেতা। সমসাময়িক প্রসঙ্গে কথা বলেছেন জমজমাটের সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রুহুল আমিন ভূঁইয়া

বর্তমান ওয়েব সিরিজ নিয়ে অশ্লীলতার অভিযোগ রয়েছে। কোন ভাবনা থেকে ‘মাফিয়া’য় কাজের সিদ্ধান্ত নিলেন?

এই ওয়েব সিরিজটি গল্প নির্ভর। আন্ডারওয়ার্ল্ডের গল্প নিয়ে কাহিনি। গল্পে অশ্লীলতার কোন সুযোগ নেই। চরিত্রটি আমার ভালো লেগেছে বলেই কাজটি করছি। ‘মাফিয়া’র ভূমিকায় আমাকে দেখা যাবে। আমাদের চারপাশে অসাধারণ যেসব গল্প আছে, সেগুলো সুন্দরভাবে উপস্থাপিত হলে সেসব বিশ্ববাসীর হৃদয়ও স্পর্শ করবে।

বর্তমানে ধারাবাহিক নাটকে বেশি দেখা যাচ্ছে। তবে প্রায়ই শুনতে হয় ধারাবাহিক নাটকে ধারাবাহিকতা থাকে না। আপনার অভিমত?

সেটি বড় সিরিয়ালের ক্ষেত্রে হয়। সাত পর্বের ধারাবাহিক নিয়ে অভিযোগ নেই। ছোট ধারাবাহিক তিন চার দিন শূটিং করলেই হয়ে যায়। বড় ধারাবাহিকে অনেক দিন ধরে কাজ করলে সেটি হয়ে থাকে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করতে বলা হয়েছে। আসলে আদৌ কি মানা সম্ভব?

চাইলে সবই সম্ভব। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনেই শূটিং করছি। সবাই মাস্ক পড়ে কাজ করছে। শূটিং ইউনিটে লোকজন কম। শূটিংয়ের আগে রুমগুলো পরিস্কার করে নিচ্ছে। শট দিয়েই হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিস্কার করছে সবাই। নিরাপদে শূটিং করার জন্য ঢাকার দূরে খোলা পরিবেশে শূটিং করছি। সবাই দূরত্ব বজায় রেখে নিয়ম গুলো মেনে চলার চেষ্টা করছি। সবারই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করা উচিত। নিজে সচেতন হয়ে অন্যকে সচেতন করতে হবে। আমি সচেতন হলে আমার পরিবার নিরাপদ থাকবে। সবার সবার প্রতি সম্মান রাখতে হবে। তাহলেই এটি বাস্তবায়ন সম্ভব।

সিরিয়াস কমেডি থেকে সব ধরনের চরিত্রে সাবলীল। স্বপ্নের চরিত্র কি?

ভালো চরিত্র করা। যে কোন চরিত্রই চেষ্টা করি গল্পের মতো করে ফুঁটিয়ে তুলতে। সবার থেকে ভিন্ন ভাবে দেখানোর চেষ্টা করি। বরাবরই গল্পের ভিতর ঢুকে যাবার চেষ্টা থাকে। কতটুকু পারি দর্শক ভালো বলতে পারবেন।

এই মহামারি কেটে গেলে সমাজের কী কী পরিবর্তন হওয়া উচিত বলে মনে করেন?

অনেক কিছুরই পরিবর্তন হওয়া উচিত। পরিবর্তন হবেও। ঘরে থাকার পর অনেক কিছু শিক্ষা নিয়েছি। ঘরের মানুষের কষ্টগুলো বুঝতে পেরেছি। পরিস্কার পরিছন্নতা থাকার শিক্ষা পেয়েছি। সবাই যদি সৎ ভাবে নেয় তাহলে পজিটিভ বিষয়গুলো থেকে যাবে। আমি মনে করি আগামীতে সুন্দর পৃথিবী আসবে বলেই করোনা এসেছে। পৃথিবীটা সবার।

ঘরবন্দি থেকে কোন অভ্যাস পরিবর্তন করতে পেরেছেন?

অনেক অভ্যাস পরিবর্তন হয়েছে। প্রতিদিন ক্লাবে যেতাম সেটি বন্ধ হয়েছে। মাঝে নামাজে অনিয়মিত ছিলাম করোনার কারণে ঘরবন্দি থেকে নামাজে নিয়মিত হয়েছি। লকডাউনের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজই পড়ার চেষ্টা করছি। করোনা সবাইকে মানবিক হবার শিক্ষা দিয়েছি।

পরিচালনা ও প্রযোজনার কি খবর?

এ সময় অন্যদের কাজগুলো করব। যে কাজগুলো কথা দেওয়া সেগুলো শেষ করব। তাছাড়া মন মতো কাজ না হলে করব না। ঈদে বেশ কিছু নাটক প্রচার হয়েছে। তারমধ্যে বেশ কয়েকটি নাটক থেকে ভালো দর্শক সাড়া পেয়েছি।

টেলিভিশন নাটক বাজে সিন্ডিকেটে চলছে। করোনার পর এই সিন্ডিকেট ভাঙবে কি?

এগুলো থাকবেই। তবে না থাকাটা ভালো। যতটা কমবে ততটা ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভালো। বর্তমানে মার্কেটিং হেডরা শিল্পী নির্বাচনে নাম বলে দেয়। করোনায় পুরো বিশ্বে ক্ষতি হয়েছে। অনেক গুনী মানুষ চলে গেছে। করোনার কারণে যে ক্ষতি হয়েছে তা অপূরণীয়। ক্ষতি যেন সামনে না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সবাইকে সচেতন হতে হবে।

Previous articleকিশোর খুবই কষ্ট পেয়েছিল: লিপিকা এন্ডু
Next article‘পূবের জানালা রুদ্ধ’

Leave a Reply