ছবি: এম এ এইচ সাগর

ঢাকাই চলচ্চিত্রের নামকরা পরিচালক এফ আই মানিক। ‘স্বপ্নের বাসর’, ‘কোটি টাকার কাবিন, ‘চাচ্চু’, ‘দাদীমা’র মতো জনপ্রিয় ছবির নির্মাতা তিনি। কিন্তু মাঝে নির্মাণে বিরতিতে ছিলেন। সেই বিরতি কাটিয়ে আবারো নির্মাণে ফিরছেন অসংখ্য ব্যবসা সফল ছবির পরিচালক এফ আই মানিক। মঙ্গলবার (২৫ আগষ্ট) শাপলা মিডিয়া থেকে নতুন চলচ্চিত্রর ব্যাপারে চূড়ান্ত কথা হয়। নাম ঠিক না হওয়া ছবি দিয়েই ‘কামব্যাগ’ করছেন তিনি। ছবিতে জুটি হবেন শিশুশিল্পী থেকে তারকা খ্যাতি পাওয়া প্রার্থনা ফারদিন দীঘি ও শান্ত খান।

আলাপকালের শুরুতে পুরানো প্রসঙ্গ টেনে মানিক জমজমাটকে বলেন, ‘দুই বছর আগে সেলিম খানের একটি ছবি করার কথা ছিল। নায়ক ছিল শাকিব খান। তখন শাকিবও চেয়েছিল আমি ছবিটি করি। কারণ আমার একটু গ্যাপ ছিল তাই শাকিব মিটিংয়ে ডেকে বললেন বাবা আপনি ছবিটা করেন। আপনি গ্যাপের পর ছবি করলে সুপারহিট হয়। তখন আমিও সরল মনে ছবিটি করার আগ্রহ দেখাই। ছবির নাম ছিল ‘কিছু কিছু মানুষের জীবনে’। একটা পর্যায়ে গিয়ে শাকিব আর সিডিউল দেয়নি। সিডিউল চাইতে চাইতে একটা সময় আমিও হতাশ হয়ে পরি। আনাড়ি শাকিবকে নৃত্য পরিচালক আজিজ রেজা আমার হাতে এনে দেয়। তারপর আড়াই মাস প্রচন্ড টেনিং করে তাকে তৈরি করি। তাকে দিয়ে অসংখ্য হিট ছবিও উপহার দিয়েছি। সে শাকিব খান কি-না আমাকে সিডিউল দেয় না। ভাবতেও কষ্ট লাগে।’

তিনি বলেন, ‘ডিপজল একদিন ডেকে পাঁচটি ছবি বানিয়ে দিতো বললেন তখন এক বছরে পাঁচটি ছবি বানিয়ে দেই। সে সময় ছবিগুলো সুপারহিট হয়। ততোদিনে শাকিবও স্টার হয়ে যায়। আবারও শাকিব ডেকে ছবির কাজ শুরু করতে বললেন। তখন দুটি ছবির জন্য তাকে বাসায় গিয়ে টাকাও দিয়ে আসি। তবে শাকিব দুটি ছবিরই সিডিউল বাতিল করে। সেলিম খানের ছবিরও সিডিউল বাতিল করে দেয়। যে ছেলেকে তৈরি করেছি সে শাকিব আমার ছবির সাইনিং মানি ফেরত দিয়েছে। সম্পদ বিক্রি করে ও লোন নিয়ে তারকাবহুল সিনেমা ‘জজ ব্যারিস্টার’ নির্মাণ করি। মুক্তির পর ছবিটি পাইরেসি হয়ে যায়। তাতে আমার বড় ক্ষতি হয়ে যায়। কারণ সব কিছু বিক্রি করে ছবিটি নির্মাণ করি।’

আক্ষেপ নিয়ে এফ আই মানিক বলেন, ‘আমার পাঁচটা বছর শাকিব শেষ করে দিছে। আমি ধ্বংস হয়ে গেছি। শাকিবের সাথে ২০-২৫টির মতো ছবি হয়েছে। আমার সব খবরই সে অবগত তারপরও আমার সাথে এমন করেছে। যাকে বড় বড় চরিত্র দিয়ে পজিশনে আনলাম সেই আমাকে ফাঁসিয়ে দিলো। একবারও মনে হয়নি ছবিটি বাতিল করা ঠিক হবে না। সর্বশেষ ‘দুই পৃথিবী’ ছবির পর থেকে এ্যাকশান কাটের সাথে নেই। আমার সাতটি বছর ধ্বংস হয়ে গেছে। প্রযোজকও বললেন যাকে তৈরি করলেন সে আপনাকে সিডিউল দিলো না। সব সময় শাকিবের ভালো চেয়েছি। কখনো যাতে ও কষ্ট পায় সে রকম কিছু করিনি। আজ আমার সব সম্পদ ধ্বংস হয়ে গেছে, আমি নিঃস্ব। ফের সেলিম খান ডেকে নতুন ছবি দিয়েছে। দেড় দুই মাসের মধ্যে নতুন ছবির শুটিং শুরু করব।’

তিনি বলেন, ‘আমি আর বসে থাকবো না নতুন শাকিব জন্ম দেব। শাকিবের পেছনে আমার তো অনেক অবদান ছিল। সেগুলো বলতে চাই না নিজেরই খারাপ লাগে। শাকিবের কাছে আমি তো কিছু চাইনি। তারপরও সে এমন কেন করল? আমি চাই শাকিব ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করুক। সে যেটা করেছে তার করা উচিত হয়নি। বর্তমানে চলচ্চিত্রর অবস্থা ভালো না। চলচ্চিত্রর এই দূর সময়েও শাকিব নীরব। তার উচিত ছিল সবাইকে ডেকে নতুন ছবি নির্মাণের পরিকল্পনা করা।’

দীর্ঘ পাঁচ মাস ধরে সিনেমা হল বন্ধ। অনেক হলই নতুন করে খুলবে না। এমন অবস্থায় অনেকেই ডিজিটাল মাধ্যমের জন্য নির্মাণের কথা ভাবছেন। আপনার অভিমত কি? ‘একটা সময় কিন্তু ডিজিটাল মাধ্যমেই সিনেমা মুক্তি পাবে। তবে একটু সময় লাগবে। অনলাইনের জন্য সিনেমা নির্মাণ করলে অল্প বাজেটে সিনেমা নির্মাণ করতে হবে। চলচ্চিত্রর সুদিন ফেরাতে সবারই এগিয়ে আসতে হবে।’ মানিক মনে করেন কাজী হায়াত, মালেক আফসারী তিনি সহ চলচ্চিত্রর গুনী নির্মাতারা এগিয়ে আসলেই আবারও চলচ্চিত্র ঘুরে দাঁড়াবে। এফ আই মানিক পরিচালিত মুক্তির অপেক্ষায় আছে তারকাবহুল সিনেমা ‘এ দেশ তোমার আমার’। সিনেমা হল খুললেই ছবিটি মুক্তি পাবে।

Previous articleআমরা সব দিক দিয়েই ঝুঁকিতে আছি: দিলারা জামান
Next articleকিশোর খুবই কষ্ট পেয়েছিল: লিপিকা এন্ডু

Leave a Reply