হায়রে মানুষ রঙিন মানুষ, আমার বুকের মধ্যে খানে, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, জীবনের গল্প বাকি আছে অল্প, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, সবাই তো ভালোবাসা চায়, আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান, ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা, পড়ে না চোখের পলক, তুমি মোর জীবনের ভাবনা ও আমি চিরকাল প্রেমেরই কাঙাল’সহ অসংখ্য বাংলা গানের জনপ্রিয় শিল্পী, সংগীত অঙ্গনের উজ্জ্বল এক নক্ষত্রের নাম এন্ডু কিশোর। বরেণ্য এই শিল্পীর কন্ঠে আর কোন দিন গান শোনা যাবে না। কারণ গত ৬ জুলাই সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন গুনী এই শিল্পী। জীবনের গল্প বাকি রেখেই ওপারে পাড়ি জমান তিনি।

সম্প্রতি এ শিল্পীকে ঘিরে বেশ কিছু মিথ্যা খবর ছড়িয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী লিপিকা এন্ডু। রবিবার (২৩ আগষ্ট) এন্ডু কিশোরের ফেসবুক পেজে দীর্ঘ স্ট্যাটাসে এমন অভিযোগ করেন তিনি। লিপিকা লিখেন- ভেবেছিলাম আর কিছু লিখব না। কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন খবর দেখে না লিখে থাকতে পারলাম না। কিশোর বেঁচে থাকতে যারা কিছু বলার সাহস পায়নি আজ তারা অবলীলায় যা ইচ্ছা তাই বলছে। যাদেরকে কিশোর স্নেহ করত বা শ্রদ্ধা করত, তারা কি সুন্দর বানিয়ে বানিয়ে মিথ্যা কথা বলেছে বা লিখেছে।

মিথ্যা খবরের তালিকা জানিয়ে তিনি লিখেন, এক. আগের দিন কফিন বানাতে বলল। দুই. মায়ের পাশে সমাধি হতে চাই। তিন. বাক্রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল। চার. মুক্তিযোদ্ধাদের গান শোনাতে ইত্যাদি ইত্যাদি। আর ইউটিউবে তো ভুয়া খবরের ছড়াছড়ি। বিয়ে, ছেলে, মেয়ে, বাড়ি, গাড়ি, টাকা, সম্পত্তি নিয়ে মনগড়া গল্পের খবর আর ভিডিওর প্রতিযোগিতা চলছে। খুব অবাক হয়েছি। মিথ্যা খবর বানিয়ে কার কি লাভ হচ্ছে ঠিক বুঝতে পারছি না। অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান নাকি সামাজিক ভাবে লাভবান ঠিক জানি না।

এন্ডু কিশোরের কোনো ছাত্র বা শিষ্য ছিল না বলে জানান লিপিকা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হঠাৎ করে একজন নিজেকে শিষ্য বলে প্রচার করতে লাগলো। কিশোর ফোন করে তাকে বকা দিয়েছিল এবং বলেছিল কথাটা না লিখতে, কিন্তু সে সেটা শোনেনি। কিশোর খুবই কষ্ট পেয়েছিল এবং অসন্তুষ্ট ছিল। সে নিজেকে শিষ্য পরিচয় দিয়ে প্রতিনিয়ত ইউটিউবে ভুয়া ভিডিও ক্লিপ আর খবর দিয়ে চলেছে। মানুষ জন এই সব ভুয়া খবর কতটুকু বিশ্বাস করছে, সেটাও বোঝার উপায় নাই।

এন্ডু কিশোরের চিকিৎসা সহায়তা নিয়ে লিপিকা লিখেন- কিশোর একজন সত্যিকারের শিল্পী। একজন শিল্পীর যে গুনগুলো থাকা প্রয়োজন তা প্রায় সব-গুলোই ওর মধ্যে ছিল। সিঙ্গাপুরে কিশোরের চিকিৎসা খরচ হয়েছিল প্রায় পৌনে তিন কোটি টাকা। যার ২৪% দিয়েছিল বাংলাদেশ সরকার, ৩২% আমাদের পরিবারবর্গ ও আত্মীয়স্বজন আর সবচেয়ে বেশি ৪৪% দিয়েছিল দেশে ও বিদেশের অগনিত শিল্পী, ভক্ত, অনুরাগী যারা অন্তর থেকে চেয়েছিল কিশোর সুস্থ হয়ে দেশে ফিরে আসুক। কিশোরের একটা বড় আত্মতৃপ্তি ছিল সে আমাকে বলেছিল আমি এত অসুস্থ না হলে কোনদিন বুঝতেই পারতাম না যে, মানুষ আমাকে এত ভালোবাসে। আমার জন্য এভাবে দুই হাত বাড়িয়ে দিবে এবং সে দেশে ফিরে সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানাবে বলে অনেক কিছু ভেবে রেখেছিল। ভাবনা গুলো ভাবনাই থেকে গেল।

Previous articleশাকিব আমাকে ধ্বংস করে দিছে: মানিক
Next articleকরোনায় অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে: জাহিদ হাসান

Leave a Reply