সৈয়দ ইকবাল: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য পুত্র, খ্যাতিমান আইটি বিশেষজ্ঞ সজীব ওয়াজেদ জয়, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্ঠা ও রূপকার। তাঁর প্রণীত রূপরেখা বাস্তবায়ন করছে বর্তমান সরকার। ২০০৯ সাল থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত তদারকিতে সারা বাংলাদেশে উন্নয়নের যে ধারা বইছে, তারই ধারাবাহিকতায় আজ বাংলাদেশের আইটি সেক্টরে ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের মন্ত্রে উদ্দীপিত হয়ে কিছু তরুণ এই সেক্টরে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। তাঁদেরই একজন মোহাম্মদ রাসেল। বাংলাদেশের শীর্ষ ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির কর্ণধার।

এই ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান শুধুমাত্র ক্রেতাদের কাছে সুলভে নানা ধরনের পণ্যই দিচ্ছে না, বরং এরই মাঝে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু বাংলাদেশে ই-কমার্সের অগ্রযাত্রায় ঈশ্বার্নিত হয়ে পড়েছে একটি অশুভ চক্র। আওয়ামী লীগ বিরোধী হিসেবে পরিচিত একটি দৈনিক, যেটি ০১/১১ পরবর্তী সময়ে শেখ হাসিনাকে নির্বাসনে পাঠানোর চেষ্টার পাশাপাশি পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের ঋণ প্রক্রিয়া বাঁধাগ্রস্ত করা; নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের নামে ছাত্রদের মাঠে নামিয়ে সরকারকে উৎখাতের চেষ্টা করাসহ নানাভাবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালিয়েছে; সেই পত্রিকাটিই এবার দেশের সম্ভাবনাময় ই-কমার্স সেক্টরকে ধ্বংসের মিশন নিয়ে বিষাক্ত ফনা তুলেছে।

উল্লেখ্য, এই পত্রিকার জন্মের পেছনের নানা কথা নানা সময়ে এসেছে। হাজার হাজার কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগও আছে এই পত্রিকার মালিকদের বিরুদ্ধে। ইভ্যালির সবচাইতে বড় ‘অপরাধ’ জাতীয় শোক দিবসের একাধিক নাটক কোম্পানিটি স্পন্সর করেছে, যেখানে বাংলাদেশের অন্য আর কোনো প্রতিষ্ঠানই স্পন্সরে আগ্রহও দেখায়নি। এমনকি ওই পত্রিকাটির মালিক পক্ষের প্রতিষ্ঠানগুলো বছরের পর বছর ধরে বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস এবং জাতীয় শোক দিবসের নাটক-টেলিফিল্ম ও চলচ্চিত্র স্পন্সরে প্রত্যক্ষভাবে অসহযোগিতার মাধ্যমে নিরুৎসাহিত করে আসছে নির্মাতা ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

ইভ্যালির কর্ণধার মোহাম্মদ রাসেল মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ শক্তি। বরাবরই তিনি বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস এবং জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নির্মিত নাটক-টেলিফিল্ম নিজে উদ্যোগী হয়ে স্পন্সর করেছেন। এ কারনেই স্বাধীনতা বিরোধী অপশিক্তর কাছে মোহাম্মদ রাসেল ও তার প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি মূখ্য শত্রুপক্ষ।

জানা গেছে, ইভ্যালি এরইমাঝে দেশীয় পণ্যের ব্যাপক বিপননের মাধ্যমে অসংখ্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের কার্যকর সহযোগীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। এরা প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি তরুণ উদ্যোক্তাদের অনেক প্রকল্পের পণ্য বিপননে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। ইভ্যালির বিরুদ্ধে কুচক্রী মহলের মূখপাত্র ওই পত্রিকাটি শুধু কুৎসা রটিয়েই ক্ষ্যান্ত হয়নি বরং এটির বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনসহ বিভিন্ন স্থানে উড়ো চিঠি পাঠিয়ে রাষ্ট্রযন্ত্রকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশে ই-কমার্সের প্রসারে ইভ্যালি যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করছে। এদের দেখাদেখি বহু তরুণ উদ্যোক্তা ই-কমার্স সেক্টরে আসছে। যা ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপরেখা বাস্তবায়নে এক উজ্জ্বল সাফল্য। সরকারের উচিৎ ইভ্যালিকে সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে টিকিয়ে রাখা। যেনো কোনো অপশক্তিই এই সেক্টরকে ধ্বংস করে দিতে না পারে।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক ও নাট্যকার

Previous articleবিয়ে করলেন অভিনেতা সাব্বির আহমেদ
Next articleদুই নায়কের সাথে আড্ডা দিবেন অরুণা বিশ্বাস

Leave a Reply