ছবি: এম এ এইচ সাগর

চলচ্চিত্র অভিনেতা শিবা শানু। ১৯৯৮ সালে ‘মাতৃভূমি’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তার চলচ্চিত্রের শিল্পে অভিষেক ঘটে। এ পর্যন্ত অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। খল চরিত্রে এরইমধ্যে আলাদা একটা অবস্থান তৈরি করেছেন। শিবা শানু প্রথমবারের মতো কাজ করছেন ওয়েব সিরিজে। সমসাময়িক প্রসঙ্গে জমজমাটের সাথে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রঞ্জু সরকার

‘মাফিয়া’ প্রসঙ্গে বলুন-

আন্ডারওয়ার্ল্ডের গল্পে নিয়ে ওয়েব সিরিজটি। এটি পরিচালনা করছেন শাহীন সুমন। একজন ‘মাফিয়া’ আন্ডারওয়ার্ল্ড চালায়। সে নিজে খুন বা অন্যায় করে না তবে লোক ভাড়া করে বিভিন্ন অন্যায় কাজ করায়। আমি এই ওয়েব সিরিজে মহর আলী চরিত্রে অভিনয় করছি। এটি আমার প্রথম ওয়েব সিরিজ। এখানে থাকবে প্রেম, বিশ্বাসঘাতকতা, নিষ্ঠুরতায় মোড়ানো ভালোবাসা, ক্ষমতার মোহ, প্রতারণার গল্প। চমৎকার একটি গল্প নিয়ে ওয়েব সিরিজটি। আশা করছি দর্শকের পছন্দ হবে।

ওয়েব সিরিজ করতে এসে বিএফডিসিতে কোন অনুমতি বা জবাবদিহিতা করতে হয়েছে কি?

না। কারণ আমিতো একজন ফ্রিলেন্সার অভিনেতা। আমি কোন স্টাফ না সুতরাং কারো কাছে আমার জবাবদিহিতা করতে হয়নি।

বিএফডিসিতে এখন বিভিন্ন গ্রুপ চলছে এদের সাথে কাজ করা যাবে, ওদের সাথে কাজ করা যাবে না। এ ব্যাপারে আপনি কি বলবেন?

আমি আগেই বলেছি আমি কিন্তু কোন স্টাফ না। অতএব আমার কারো কাছে জবাবদিহি করতে হয় না। এটা আমার ব্যাক্তিগত কাজ আমার যেটা ভালো লাগে আমি সেটাই করি। এটাই তো হওয়া উচিত। আর একটা বিষয় হলো অভিনয় করতে হলে যে গ্রুপ মেইনটেইন করতে হবে এই বিষয়টা কখনো মাথায় ঢুকেনি, কখনও ছিল না। আমাকে তো মানুষ কাজে নেয় অভিনয় দেখে কোন গ্রুপে আছি এটা দেখে কেউ নেয় না। দর্শক আমার অভিনয় পছন্দ করে বলেই আমাকে সবাই কাজে নেয়।

সিনেমা নেই তার মধ্যে আবার ‘চলচ্চিত্র শিল্পী অধিকার রক্ষা ফোরাম’ নামের নতুন একটি সংগঠন হয়েছে। আপনার অভিমত?

কে বা কারা করেছে আমি অবগত নই। আমরা যারা শিল্পী আমাদের একটা সংগঠন আছে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। এ সমিতি থেকে একটা বাছাই কমিটি করেছে তারা মনে করেছে যারা যোগ্য শিল্পী তাদের রাখা হয়েছে আর যারা যোগ্য না তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। পূর্ণ সদস্য তারাই ভোট দিতে পারবেন। ১৮৪ জনকে বাদ দিছে ঠিক আছে বাট আমি বলব কিছু যোগ্য লোক ছিলো যাদের কে বাদ না দিলেও পারত।

এটাকে কেন্দ্র করে আজ বিএফডিসিতে যে বয়কটের আন্দোলন চলছে এ ব্যাপারে কি বলবেন?

আসলে এটাকে কেন্দ্র করে কিছু ঘটছে কি-না এটা আপনারা ভালো জানেন। আসলে এটা যারা করতেছে তারা হয়ত ভালো বলতে পারবেন। ১৮৪ জনকে বাদ দেওয়া এটাকে কেন্দ্র করেই হয়তো বয়কটের আন্দোলন। আমি বাংলা সিনেমার ডায়লগ এর মতো বলে শেষ করব, এটা আমাদের পারিবারিক ব্যাপার আমরা এটা পারিবারিক ভাবেই শেষ করতে চাই। বাহিরের মানুষ কেন জানবে? কেন অন্যদের জানিয়ে হাসির পাত্র হবো আমরা?

Previous articleদুই নায়কের সাথে আড্ডা দিবেন অরুণা বিশ্বাস
Next articleপাঁচ চলচ্চিত্রে নায়িকা হয়ে ফিরছেন দীঘি

Leave a Reply