সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

কোলকাতার বেকার হোস্টেলে পাশাপাশি রুমে থাকতেন আমার আব্বা এবং বঙ্গবন্ধু। এ কারণে শৈশব থেকেই ওই পরিবারের সদস্যদের আমাদের জানা শোনা। আমরা মুক্তিযুদ্ধ দেখা মানুষ। পঁচিশে মার্চের কালো রাত, মুক্তিযুদ্ধ এবং ১৬ই ডিসেম্বরের ওই স্মরণীয় দিন-সবই দেখেছি। যুদ্ধের আগে পাকিস্তানিদের জাতীয় সংগীত গাওয়া এবং বিজয়ের পর আমার সোনার বাংলা-এ এক অন্য রকমের স্মৃতি, যা এ প্রজন্মের কেউ বুঝবে না। জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখেছি। পঁচাত্তরের ১৫ই আগষ্টের কালো রাত আমাদের স্বপ্ন লন্ডভন্ড করে দেয়। তখন বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা বিদেশে। এরপর কেটে যায় অনেকগুলো বছর। পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িটার সামনে দিয়ে আসা-যাওয়ার সময় হৃদয় কাঁদতো। স্বৈরাচারী জিয়ার অবৈধ সরকার তখন ওই বাড়িটার সদর দরজায় তালা দিয়ে রেখেছে। কারো প্রবেশাধিকার ছিল না সেখানে। ১৯৮১ সালের মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই আমাদের সবার মনে অন্য রকম এক অনুভূতি। জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা দেশে ফিরছেন। দেশ জুড়ে বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের মনে আনন্দের ঢেউ।

স্কুল জীবনে আমি ফিল্ম ক্লাবের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলাম। তখন ঢাকার শহরে হাতেগোনা চার থেকে পাঁচটি ফিল্ম ক্লাবের ঝংকার। আমিই ছিলাম সাধারণ সম্পাদক। ধানমন্ডির ফিল্ম ইনস্টিটিউট এন্ড আর্কাইভের অডিটোরিয়াম থেকে শুরু করে সোভিয়াত সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, জার্মান, ফরাসী এবং ভারতীয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে ফিল্ম ক্লাবগুলোর চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করতো। আমরাও করতাম। কিন্তু ওই সময়ে যখন অনেকেই স্বৈরাচারী জিয়ার ভয়ে মুখে বঙ্গবন্ধুর নামটি নিতেও সাহস করতেন না তখন একমাত্র আমার নেতৃত্বে পরিচালিত ফিল্ম ক্লাবই ধানমন্ডির সরকারী ফিল্ম ইনস্টিটিউট এন্ড আর্কাইভ মিলনায়তে বঙ্গবন্ধুর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করতো। যে কেউ এই সংগঠনের মিলনায়তন রেজিস্টার দেখলেই এটির প্রমাণ পাবেন। জিয়ার শ্বাসন আমলে এটা করা কতটুকু ঝুঁকিপূর্ণ ছিল তা সবারই জানা। অথচ আমি এটি করেছি- ঝুঁকি অবজ্ঞা করেই। কোন স্বার্থে নয়। কোন মতলবে নয়। বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসেই এটি করেছি। শেখ হাসিনা ফিরে এলেন। তারপর ৩২ নম্বরের দরজা খুললো। ঢাকায় আওয়ামী লীগের জনসভা হলেই ছুটে যাই। আমাদের প্রিয় আপার বক্তৃতা শুনতে। মাঝে মাঝে ৩২ নম্বরে যাই আপার সাথে দেখা করি।

আমি সোভিয়েত বার্তা সংস্কায় যোগ দিলাম। প্রথম ফোনটি আপাকে। বললাম, ইন্টারভিউ করবো। তিনি স্নেহমাখা কন্ঠে বললেন ‘চলে আয়’। গিয়ে দেখি আওয়ামী লীগের সামাদ আজাদ থেকে শুরু করে বড় বড় নেতারা বসে আছেন। আপা তাদের সবাইকে অন্য কামরায় পাঠিয়ে দিয়ে আমার পাশে বসলেন। তার চোখে মুখে উচ্ছাস। আপা এক নারী আত্নীয়কে লক্ষ করে বললেন, দেখো সোভিয়েত বার্তা সংস্থার বাঙালি ব্যুরো প্রধান। টেবিল ভর্তি খাবার এলো। স্নেহময়ী বোন শেখ হাসিনা নিজ হাতে তুলে দিলেন। প্রায় এক ঘন্টা পর আমি বিদায় নিচ্ছি। আপা দরজা পর্যন্ত এগিয়ে দিয়ে হাসি মুখে বলেলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রী হলে তোকে একটা টিভি চ্যানেল দেবো’। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। একবার নয়, অনেকবার। কিন্তু আমি কখনোই তাকে বলিনি, আপা আমার টেলিভিশন চ্যানেল! আমার জায়গায় আর যে কেউ হলেই এটি চাইতেন এবং পেতেনও। কিন্তু আমি চাইনি। কারণ শেখ হাসিনাকে মন থেকে শ্রদ্ধা করি কোন কিছু পাওয়ার আসায় নয়।

লেখক: সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, লেখক, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী কাগজ ব্লিটজ এর সম্পাদক।

Previous articleচিত্রনায়িকা মৌমিতাকে বিয়ে করলেন সাব্বির আহমেদ!
Next articleকরোনা থেকে সেরে উঠছেন টুটুল

Leave a Reply