ছবি: এম এ এইচ সাগর

রঞ্জু সরকার: এক সময়ের ব্যস্ত নির্মাতা শাহাদাৎ হোসেন লিটন বেশ কয়েক বছর ধরে সিনেমা নির্মাণ থেকে দূরে। চলচ্চিত্রর মন্দাবস্থা থাকার কারণে ব্যবসাকে বেছে নেন। তবে কিছুটা অভিমান থেকেও চলচ্চিত্র থেকে দূরে আছেন এ নির্মাতা। চলচ্চিত্রে শাহাদাৎ হোসেন লিটনের ক্যারিয়ার দীর্ঘ দিনের। চিত্রপরিচালক রানা মাসুদের সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন কয়েক বছর। এরপর ২০০৪ সালে ‘রুখে দাঁড়াও’ ছবির মাধ্যমে পূর্ণ চিত্রপরিচালক হিসেবে তার অভিষেক হয় চিত্রপুরীতে। একে একে শাহাদাৎ হোসেন লিটন নির্মাণ করেছেন ৫২টি সিনেমা। যার অধিকাংশ ছবিই ব্যবসা সফল। সর্বশেষ শাহাদাৎ হোসেন লিটন পরিচালিত ‘অহংকার’ ছবি মুক্তি পায় গেল বছর।

দীর্ঘ দিন ধরে মিডিয়া থেকে দূরে কিন্তু কেন? কখনই আমি অনেক বেশি ছবি করার পক্ষে ছিলাম না। হঠাৎ করে যখন আমাদের দেশে ডিজিটাল নামে একটা প্রতিযোগিতা শুরু হয়। তখন সিনেমা থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছি। ডিজিটাল প্রক্রিয়া আমাদের সমাজের জন্য একটা অসমাপ্তি প্রযক্তি। যে প্রযুক্তি পদ্ধতি ব্যবহার না যেনে ব্যবহার করছি। অল্প বিদ্যা ভয়ংকরী মতো হয়ে গেছে। ডিজিটাল ছবি নির্মাণ করছি ঠিকই কিন্তু সেগুলো সিনেমা হলে চলে না।

যোগ করে লিটন বলেন, আমাদের দেশের কিছু অদক্ষ লোক এসব পদ্ধতি নিয়ে এসেছে। তারা কোন জায়গা থেকে টাকা মেরে এসব এনেছে। তাদের অদক্ষতার জন্য আমাদের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি হুমকির মুখে। যারা মুল ধারার সিনেমা নির্মাণ করে বা বানিজ্যিক ছবি নির্মাণ করে সে সকল প্রযোজকরা হোচট খেয়ে চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে গেছে। সে সময় যে সকল প্রযোজকরা ছিলেন তারা সবাই লাভের আশায় সিনেমা নির্মাণ করতে এসেছেন। যখন দেখলেন ছবিতে লস হচ্ছে তখন তারা সরে যায়। আমরা যারা কষ্ট করে চলচ্চিত্রে কাজ করতাম তারা চেষ্টা করেছিলাম অদক্ষ লোকদের হাত থেকে চলচ্চিত্র রক্ষা করার।

তিনি বলেন, অনেকেই শখ করে সিনেমা বানাতে এসে লোকশান দিয়ে হাত গুটিয়ে নেয়। একটি ছবি যখন নির্মাণ হয় তখন কিন্তু একটা চরিত্র তৈরি করা হয়। চরিত্রটি যদি আমরা ঠিকমতো উপস্থাপন করতে না পারি তাহলে দর্শক চরিত্রটি বুঝবে না। অদক্ষ লোকগুলো যখন চলচ্চিত্রর হাল ধরে তখন চলচ্চিত্র ধ্বংসের পথে চলে যায়। আমরা যখন চলচ্চিত্রে কাজ করি তখন অনেক কষ্ট করে কাজ করতাম। যা কিছু উপার্জন করতাম এবং আমাদের নিজস্ব কিছু পুজি ছিল তা দিয়েও চেষ্টা করেছি অদক্ষ লোকের হাত থেকে চলচ্চিত্রটাকে বাঁচানোর। পরিশেষে অদক্ষ লোকগুলোই বিস্তার লাভ করে। যার কারণে আমাদের চলচ্চিত্র আজ ধ্বংসের পথে।

এ থেকে উত্তরণের উপায়? অদক্ষ লোকদের সরিয়ে পুনরায় দক্ষ লোকদের নিয়ে আসতে হবে। চলচ্চিত্রর আলোর জন্য ভালোদের বসাতে হবে। চলচ্চিত্রে মেধাবী লোকের অভাব। দর্শক কিন্তু আমাদের বোঝাচ্ছে আমরা গুণগত মানের ছবি উপহার দিতে পারছি না। কিন্তু আমরা এখনও সাবধান হইনি। এখনও সময় আছে চলচ্চিত্রটি রক্ষা করার। আপনি যে ছবিই তৈরি করুন না কেন সেটির পূর্ণতা আনতে হবে। যথাযথ প্রয়োগ করতে হবে। এবং অদক্ষ লোকের হাত থেকে চলচ্চিত্রটি ফিরিয়ে আনতে হবে।

আমার বিশ্বাস কেউ না কেউ হাল ধরবে। ফের যদি চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে আসি তাহলে চলচ্চিত্র উন্নয়নের জন্য আসবো। চলচ্চিত্র কাজের চেয়ে লোকের সংখ্যা বেশি। চলচ্চিত্রে যে অস্থিরতা শুরু হয়েছে তা বেশি দিন স্থায়ী হবে না। কাজে ব্যস্ত হলে এটা থাকবে না। শাকিব প্রসঙ্গ টেনে লিটন বলেন, শাকিব অনেক ভাগ্যবান। চলচ্চিত্রর দূর সময়েও শাকিব এখনও এক-দুটি ছবি করে দর্শককে বিনোদিত করছে। শাকিব বিরামহীন কাজ করছে তার সিডিউল ফাঁসানো ব্যাপার না। এটুকু করতেই পারে। শাকিবের চেয়ে আমাদের মতো লোকের বেশি দোষ। কারণ তাকে বিশ্রাম না দিয়ে বিরামহীন কাজ করিয়েছি। যার ফলে সে সিডিউল ফাঁসিয়েছে। এর জন্য আমরাও দায়ী।

শাকিব খানকে নিয়ে বেশ কিছু ছবি উপহার দিয়েছেন। নতুন করে শাকিব-লিটন জুটি দেখা যাবে? না নতুন করে শাকিব কে নিয়ে কাজ করার ইচ্ছে নেই। বর্তমানে চলচ্চিত্রর বেহাল দশা। শাকিবের ছবিও চলে না। শুনলাম কিছু দিন আগে শাকিব পারিশ্রমিক কমানোর ঘোষণা দিয়েছে এমন সিদ্ধান্তর জন্য ওকে সাধুবাদ জানাই। শাকিব যদি এখন পাঁচ লাখ টাকায়ও ছবি করে তাহলেও নিবো না।

দীর্ঘ পাঁচ মাস ধরে সিনেমা হল বন্ধ। এমন অবস্থায় অনেকেই অনলাইনের জন্য সিনেমা নির্মাণের কথা ভাবছেন। বিষয়টি আপনার ভাবনায় কি? হলের জন্য অনেক বড় বাজেটের সিনেমা নির্মাণ হয়। সেটি যদি অনলাইনের জন্য নির্মাণ করা হয় তাহলে বাজেট ও মান অনেক কমে যাবে। অনলাইন থেকে নির্মাণ ব্যায় কিভাবে উঠে আসবে? তাছাড়া হলের দর্শক আলাদা অনলাইনের দর্শকও আলাদা। এতে ছবির মান থাকবে না। বিগ বাজেটের ছবি নির্মাণ করেও দর্শকের মন জয় করতে পারছি না তাহলে অনলাইনের জন্য নিম্ন মানের ছবি নির্মাণ করে কি ভাবে দর্শকের মন জয় করব? উপার্জন আসতে পারে তবে শিল্পের মান বৃদ্ধি পাবে না।

Previous articleরাব্বি-রুমার ‘পরান আমার পোড়ে’
Next articleচিত্রনায়িকা মৌমিতাকে বিয়ে করলেন সাব্বির আহমেদ!

Leave a Reply